সেরা ৫ ক্যামেরা স্মার্টফোন – ২০১৫

By -

Apple - iPhone 6 - Cameras - 222

ক্যামেরাযুক্ত স্মার্টফোনসমূহ ইতোমধ্যেই প্রথাগত পয়েন্ট-অ্যান্ড-শুট ডিজিটাল ক্যামেরার বাজারে ভাগ বসিয়েছে। সচরাচর ব্যবহারকারীরা ব্যক্তিগত ছবি তোলার কাজ তাদের মোবাইলের ক্যামেরার মাধ্যমেই সেরে নিচ্ছেন। কোথাও ঘুরতে কিংবা কোনো অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময় আলাদা একটা ক্যামেরা বহন করা কারও কারও কাছে বাড়তি ঝামেলা মনে হয়। আর এক্ষেত্রে স্মার্টফোন ক্যামেরার ব্যবহার বেশ জনপ্রিয়।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 1,213 other subscribers

মোবাইল ফটোগ্রাফি’তে উন্নয়ন এনে ভোক্তাদের মুঠোয় জায়গা করে নিতে স্মার্টফোন কোম্পানিগুলোর মধ্যে চলছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। এই দৌড়ে কেউই একক আধিপত্য বিস্তার করে রাখতে সক্ষম নয়। উদাহরণস্বরূপ নকিয়ার ৪১ মেগাপিক্সেল পিওরভিউ প্রযুক্তির কথাই ধরুন। এটি কিন্তু অসাধারণ এক ক্যামেরা কৌশল যা মোবাইল ফটোগ্রাফিতে চমক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিল। তবে সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যারের চাহিদামাফিক সামঞ্জস্য অব্যাহত না থাকায় এই মুহুর্তে সেটি তেমন একটা আলোচনায় নেই।

এই পোস্টে আমরা এমন পাঁচটি ক্যামেরা স্মার্টফোন সম্পর্কে জানব যেগুলো ২০১৫ সালের শুরুতে ‘সেরা ক্যামেরাফোন’ খেতাব পেয়েছে। একই সাথে জানিয়ে রাখছি, এই তালিকা প্রকৃতপক্ষে চিরস্থায়ী কোনো র‍্যাংকিং নয়, বরং বিভিন্ন সাইট বিভিন্ন দিক বিবেচনা করেই এসব র‍্যাংকিং করে থাকে। তবে হ্যাঁ, এই পোস্টে উল্লিখিত স্মার্টফোনগুলো নিঃসন্দেহে চমৎকার ফটোগ্রাফি উপহার দেবে। চলুন শুরু করি।

১. আইফোন ৬ প্লাস

iphone 6 plus img 2

অ্যাপলের আইফোন ৬ প্লাস হচ্ছে এ পর্যন্ত মুক্তিপ্রাপ্ত সবচেয়ে বড় স্ক্রিনের আইফোন। প্রযুক্তি বিশ্লেষকদের মতে, কোনো ফোনই ত্রুটিমুক্ত নয়- কিন্তু আইফোন ৬ প্লাস প্রায় পরিপূর্ণভাবেই ত্রুটিমুক্ত। এর দ্রুত ফোকাস ও ভিডিও ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন ফিচার বেশ গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে।

আইফোন ৬ প্লাসে দেয়া হয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ব্যাক ক্যামেরা (৩২৬৪ x ২৪৪৮ পিক্সেল) ও ১.২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা (৭২০ পিক্সেল)।

সর্বশেষ এই ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনে অ্যাপল মূলত ক্যামেরা মেগাপিক্সেলের চেয়ে লাইট সেন্সর ও অন্যান্য প্রযুক্তিগত উন্নয়নকেই প্রাধান্য দিয়েছে। ডিভাইসটি স্ক্রিন সাইজ হচ্ছে ৫.৫ ইঞ্চি (১০৮০ x ১৯২০পি, ৪০১ পিপিআই); আর এতে আছে অ্যাপল এ৮ চিপ, ডুয়াল কোর ১.৪ গিগাহার্টজ সিলোন এআরএম ভি-৮ ভিত্তিক সিপিইউ। আইফোন ৬ প্লাসের র‍্যাম সাইজ ১জিবি।

মূল্যঃ আনলকড ১৬ জিবি আইফোন ৬ প্লাস স্মার্টফোনের দাম ৭৪৯ ডলার। অধিক স্টোরেজ চাইলে দামও বেশি হবে।

২. স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫

Samsung Galaxy S5

এন্ড্রয়েড চালিত স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫ এ রয়েছে ৫.১ ইঞ্চি ফুল এইচডি (১০৮০পি, ৪৩২পিপিআই) সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লে, ১৬ মেগাপিক্সেল রেয়ার (এইচডিআর ফোরকে ভিডিও রেকর্ডিং), ২.১ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, ২.৫ গিগাহার্টজ কোয়াড কোর প্রসেসর, ২জিবি র‍্যাম, ২৮০০ এমএএইচ ব্যাটারি, ১৬/৩২জিবি স্টোরেজ, মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট (৬৪জিবি এক্সপ্যান্ডেবল), ফোরজি এলটিই, ওয়াইফাই, এন্ড্রয়েড ৪.৪ কিটক্যাট প্রভৃতি।

গ্যালাক্সি এস৪ থেকে গ্যালাক্সি এস৫’এ কিছুটা (০.১ ইঞ্চি) বড় স্ক্রিন দেয়া হয়েছে। এর পিক্সেল ডেনসিটি আগের (৪৪২ পিপিআই) থেকে কম। এছাড়া লেটেস্ট এই গ্যালাক্সি ডিভাইসের ক্যামেরাও এর পূর্বের ভার্সন থেকে ৩ মেগাপিক্সেল বেশি সেন্সর নিয়ে আসছে। নিশ্চয়ই লক্ষ্য করেছেন, অ্যাপল আইফোনের মতই ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার যুক্ত করা হয়েছে গ্যালাক্সি এস ফাইভে। এর মাধ্যমে সেটের আইডেন্টিটি ভেরিফিকেশন ছাড়াও স্পেশালি পেপাল অথেনটিকেশন সম্ভব হবে।

মূল্যঃ ১৬জিবি স্টোরেজ সমৃদ্ধ আনলকড স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫ এর দাম ৫৮০ ডলার থেকে শুরু।

৩. স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫ অ্যাকটিভ/স্পোর্ট

Samsung Galaxy S5 Active

স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫ অ্যাকটিভ/স্পোর্টস স্মার্টফোনে রয়েছে ৫.১ ইঞ্চি (১০৮০ x ১৯২০পি, ৪৩২পিপিআই) স্ক্রিন, কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮০১ চিপসেট, কোয়াডকোর ২.৫ গিগাহার্টজ ক্রেইট ৪০০ সিপিইউ, ১৬ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ, ২জিবি র‍্যাম, ১৬ মেগাপিক্সেল ব্যাক ক্যামেরা (৩৪৫৬ x ৪৬০৮পি), ২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা (১০৮০পি) প্রভৃতি।

এন্ড্রয়েড চালিত এই স্মার্টফোনটির বিশেষত্ব হচ্ছে, এটি পানি ও আঘাত নিরোধক কেসিং দ্বারা সুরক্ষিত।

মূল্যঃ ১৬জিবি স্টোরেজ সমৃদ্ধ আনলকড স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৫ এর দাম ৬৫৯.৯৯ ডলার থেকে শুরু।

৪. এইচটিসি ডিজায়ার আই

htc desire eye

এইচটিসি ডিজায়ার আই স্মার্টফোনে পাচ্ছেন ৫.২ ইঞ্চি (১০৮০ x ১৯২০পি, ৪২৪ পিপিআই) স্ক্রিন, কোয়াডকোর ২.৩ গিগাহার্টজ ক্রেইট ৪০০ সিপিইউ, ২জিবি র‍্যাম, ১৬জিবি স্টোরেজ প্রভৃতি।

এইচটিসি ডিজায়ার এন্ড্রয়েড ফোনে থাকছে ১৩ মেগাপিক্সেল (৪২০৮ x ৩১২০পিক্সেল) ব্যাক ক্যামেরা। স্মার্টফোনটিতে চমক হিসেবে দেয়া হয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা যা উচ্চমানের সেলফি তোলার জন্য খুবই উপযোগী।

মূল্যঃ ১৬জিবি স্টোরেজ সমৃদ্ধ আনলকড এইচটিসি ডিজায়ার আই এর দাম ৫৪৯ ডলার থেকে শুরু।

৫. প্যানাসনিক লুমিক্স স্মার্ট ক্যামেরা সিএম১

DMC-CM1 Lumix

এন্ড্রয়েড চালিত এই ডিভাইসটি প্রথমত একটি ক্যামেরা, তারপর স্মার্টফোন। এতে থাকছে ৪.৭ ইঞ্চি (১০৮০ x ১৯২০পি) স্ক্রিন, কোয়াডকোর ২.৩ গিগাহার্টজ ক্রেইট ৪০০ সিপিইউ, ২ জিবি র‍্যাম, ১৬ জিবি স্টোরেজ প্রভৃতি।

ডিভাইসটিতে রয়েছে ২০ মেগাপিক্সেল ব্যাক ক্যামেরা (৪৯৯২ x ৩৭৪৪পি) ও ১ইঞ্চি ফটো সেন্সর। এর ফ্রন্ট ক্যামেরাটি ১.১ মেগাপিক্সেল।

মূল্যঃ প্যানাসনিক লুমিক্স স্মার্ট ক্যামেরা সিএম১ এর দাম প্রায় ১০০০ ডলার।

প্রযুক্তির সব তথ্য জানতে ভিজিট করুন www.banglatech24.com সাইট। নতুন পোস্টের নোটিফিকেশন ইমেইলে পেতে এই লিংকে গিয়ে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

 
Advertisements

Comments

Leave a Reply