শাওমি কি এবার ৪৩২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার ফোন নিয়ে আসবে?

স্মার্টফোন প্রযুক্তির ক্ষেত্রে নিজেদের পদচিহ্ন রাখতে বেশ বদ্ধ পরিকর শাওমি। হাই-মেগাপিক্সেল ক্যামেরা তাদের ফোনগুলোতে প্রদান করার মাধ্যমে ইন্ডাস্ট্রিতে আলোচনার নাম হিসেবে থেকেছে কোম্পানিটি। শাওমি ১২এস আলট্রা ও শাওমি ১২ আলট্রার মত ডিভাইসের মাধ্যমে মোবাইল ফটোগ্রাফি টেকনোলজিকে দৃঢ় করেছে শাওমি। উল্লেখিত দুইটি ফোনেই গ্রাউন্ডব্রেকিং ১-ইঞ্চি ক্যামেরা সেন্সর ব্যবহার করা হয়। কিছুদিন ধরেই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে স্যামসাংয়ের HW1 ও HW2 ১-ইঞ্চি ৪৩২ মেগাপিক্সেল সেন্সর নিয়ে। উক্ত অসাধারণ প্রযুক্তি সর্বপ্রথম শাওমির ফোনে দেখা যেতে পারে তেমনই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

শাওমির উদ্ভাবনের ইতিহাস

যাত্রা থেকেই শাওমি স্মার্টফোন ডিজাইনে গুরুত্ব প্রদান করে উদ্ভাবনী প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিজেদের নাম করে নিয়েছে। সম্প্রতি ক্যামেরা প্রযুক্তিতে শাওমি বেশ উন্নতি করেছে, বিশেষ করে হাই-মেগাপিক্সেল সেন্সর নিজেদের ফোনগুলোতে ইমপ্লিমেন্ট করার ক্ষেত্রে।

১-ইঞ্চি ক্যামেরা সেন্সর মাইলস্টোন

শাওমি তাদের ১২এস আলট্রা ও ১৩ আলট্রার মত ফোনগুলোর মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের টপ-নচ স্মার্টফোন ক্যামেরা সুবিধা প্রদানে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়, ফোনগুলো তাদের ১-ইঞ্চি ক্যামেরা সেন্সরের জন্য পরিচিত ছিলো। বড় সেন্সর হওয়ার দরুণ ভালোভাবে আলো প্রবেশ করতে পারে এই লেন্সে, যার ফলে আরো শার্প ছবি তোলা যায় ও উন্নত হাই-লো লাইট পারফরম্যান্স পাওয়া যায়। শাওমির প্রতিযোগি মনোভাব এর কারণে ভালো স্মার্টফোন ফটোগ্রাফিতে অন্যদের চেয়ে তারা বেশ এগিয়ে থাকবে।

স্যামসাং এর HW1 ও HW2 ১-ইঞ্চি ৪৩২ মেগাপিক্সেল সেন্সর

সম্প্রতি লিক হওয়া স্যামসাং এর HW1 ও HW2 সেস্নরগুলো ৪৩২ মেগাপিক্সেল রেজ্যুলেশনে ছবি তুলতে সক্ষম, যার খবর টেক কমিউনিউটিতে রীতিমত ঝড় তুলেছে। এই নতুন সেন্সরগুলোর মাথানষ্ট পিক্সেল কাউন্টের মাধ্যমে স্মার্টফোন ফটোগ্রাফিতে নতুন লেভেলের ডিটেইল ও ক্ল্যারিটি প্রদান করবে বলে আশা করা যায়। তবে দেখা বিষয় হচ্ছে এই রেভুলেশনারি সেন্সর সর্বপ্রথম শাওমির এর কোনো ফোনে ব্যবহৃত হয় কিনা। 

ISOCELL HW1 এর সেন্সর সাইজ ১/১.০৫ ইঞ্চি যা স্মার্টফোন ক্যামেরা জগতে নতুন স্ট্যান্ডার্ড সেট করবে। এই বড় সেন্সর সাইজের মাধ্যমে ৪৩২ মেগাপিক্সেল ছবি তোলা সম্ভব হবে যা স্মার্টফোন ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে অকল্পনীয় ডিটেইলস প্রদান করবে। প্রতিটি পিক্সেল সাইজ ০.৫৬ μm যা থেকে স্যামসাং তাদের সেন্সর টেকনোলজি কত উন্নত করেছে তার ধারণা পাওয়া যায়। আর এই উন্নতির ফলে আরো বেশি আলো ধরতে পারবে সেন্সরগুলো যার ফলাফল হবে অসাধারণ ইমেজ কোয়ালিটি। অন্যদিকে  ISOCELL HW2 কিছুটা ছোট সেন্সর হলেও এর সাইজও ১/১.০৭ ইঞ্চি যা বেশ অসাধারণ বিষয়। এটিও অন্য সেন্সরের মত ৪৩২ মেগাপিক্সেল রেজ্যুলেশনের ছবি তুলতে সক্ষম। এই সেন্সরের পিক্সেল সাইজও ০.৫৬ μm যা থেকে বোঝা যায় স্যামসাং তাদের স্মার্টফোন ক্যামেরা প্রযুক্তিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে বেশ বদ্ধ পরিকর। 

xiaomi 12s ultra
ছবিঃ শাওমি ১২এস আলট্রা

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

শাওমি আলট্রা সিরিজ ও ৪৩২ মেগাপিক্সেল সেন্সর

প্রযুক্তিপ্রেমীরা অপেক্ষা করছে স্যামসাং এর HW1 ও HW2 সেন্সর অফিসিয়ালি মুক্তি পাওয়ার। অন্যদিকে শাওমি ডিভাইসেই এই সেন্সরের প্রথম ব্যবহার দেখা যাবে কিনা সে বিষয়ে উঠেছে আলোচনার ঝড়।

শাওমি আলট্রা সিরিজের ফোনগুলো যতবারই বাজারে এসেছে ততবারই প্রযুক্তিগত কোনো না কোনো বাউন্ডারি পার করেছে। তাই এই গ্রাউন্ডব্রেকিং সেন্সর ব্যবহার করে শাওমি তাদের ফোনে নতুনত্ব আনার বিষয়টি বাস্তবতা হতেও পারে। অন্যদিকে শাওমির সাব-ব্র্যান্ড রেডমিও উপকৃত হতে পারে এই প্রযুক্তিগত উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে,এই সাব-ব্র্যান্ডের “আলট্রা” মডেলেরও দেখা মিলতে পারে।

শাওমির উদ্ভাবনের ইতিহাস ও স্যামসাং এর গ্রাউন্ডব্রেকিং সেন্সর প্রযুক্তি একসাথে হলে স্মার্টফোন ফটোগ্রাফির জন্য এক অসাধারণ মাইলফলক হতে পারে। প্রযুক্তি প্রেমীগণ অপেক্ষা করছেন শাওমির পরবতী আলট্রা সিরিজ বা রেডমির আলট্রা মডেলের বাজারে আসার যা মোবাইল ইমেজিং দুনিয়ায় নতুন ধারার সূচনা করবে। শাওমির প্রযুক্তিগত দক্ষতা ও স্যামসাং এর সেন্সর উদ্ভাবনী ক্ষমতা একজোট হয়ে স্মার্টফোন ফটোগ্রাফিতে নতুন মাত্রা আনবে বলে আশা করা যায়।

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,558 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *