আইটেল মোবাইলের দাম ২০২৪

এক্সট্রিম বাজেট ফোনগুলোর সম্পর্কে যারা খবর রাখেন, আইটেল তাদের কাছে পরিচিত একটি নাম। দেশে ১০ হাজার টাকার চেয়ে কম দামের ফোনের বাজারে আইটেল এর ফোনগুলো বেশ জনপ্রিয়। চলুন জেনে নেওয়া যাক, আইটেল এর ফোনসমূহের দাম ও স্পেসিফিকেশন সম্পর্কে বিস্তারিত।

আইটেল এ৬০ – itel A60

A60

এ বছরে আইটেলের স্বল্প বাজেটের একটি ফোন এটি। কম বাজেটেই বড় ব্যাটারি আর ৪জি সুবিধা নিয়ে ফোনটি বাজারে এসেছে। ফোনের সামনে রয়েছে ৬.৬ ইঞ্চির বড় একটি ডিসপ্লে। পারফর্মেন্স দিতে আছে ইউনিসকের এসসি৯৮৩২ই চিপ। এটি একটি বাজেট চিপ হওয়ায় কম শক্তিশালী। তবে দৈনন্দিন কাজগুলো করা যাবে। ফোনটি পাওয়া যাবে ২ জিবি র‍্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজের সাথে। ফোনের পিছনে আছে ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ।

মূল সেন্সরটি ৮ মেগাপিক্সেলের যা টুকটাক ছবি তুলতে ভালো কাজ করে। সামনে পাবেন ৫ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। ফোনটি ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারিযুক্ত। ফলে ব্যাটারি ব্যাকাপ নিয়ে চিন্তা থাকছে না কোন। নিরাপত্তার জন্য ফেস আনলক এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানারের সুবিধাও রয়েছে। এছাড়া ডুয়াল সিম ৪জি কানেক্টিভিটি এবং সুন্দর আউটলুকও রয়েছে ফোনটিতে। সব মিলিয়ে বাজেটে খুব ভালো একটি ফোন হতে পারে আইটেল এ৬০ মডেল। 

আইটেল এ৬০ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৬ ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ইউনিসক এসসি৯৮৩২ই
  • র‍্যামঃ ২ জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২ জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ডুয়াল ক্যামেরা (৮ + ২ মেগাপিক্সেল)
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫ মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৫০০০ মিলিএম্প

আইটেল এ৬০ এর দামঃ ৭,৫৯০ টাকা

আইটেল পি৪০ – itel P40

P40

বাজেটের মধ্যে সেরা ব্যাটারি ব্যাকাপের ফোন এটি। যাদের লম্বা সময় ফোন ব্যবহারের দরকার হয় এবং কম বাজেটেই ফাস্ট চার্জিং সুবিধা চান তাদের প্রথম পছন্দ হতে পারে এই ফোনটি। ফোনের সামনে পাবেন বিশাল ৬.৬ ইঞ্চির একটি ডিসপ্লে। প্রসেসর হিসেবে ব্যবহার হয়েছে ইউনিসকের এসসি৯৮৬৩এ চিপ। খুব বেশি শক্তিশালী না হলেও দৈনন্দিন কাজ করা যাবে সহজেই এই চিপের মাধ্যমে। এছাড়া ফোনের পিছনে পাবেন ১৩ এবং ২ মেগাপিক্সেলের ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ। দিনের আলোতে ভালো ছবি তোলে ফোনটি। ফোনের মূল আকর্ষণ এর ৬০০০ মিলিএম্পের বিশাল ব্যাটারি। এই কম শক্তিশালী ফোনে এতো বড় ব্যাটারি খুব একটা দেখা যায় না। আইটেলের মতে ৩ দিন পর্যন্ত ব্যাকাপ দিতে পারবে ফোনটি। সাথে আছে ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং সুবিধা। ফলে দ্রুত চার্জও করা যাবে ফোনটি। এছাড়াও ফিঙ্গারপ্রিন্ট, ফেস আনলক, ৪জি নেটওয়ার্ক, সুন্দর ডিজাইন ইত্যাদি অনেক কিছুই পাবেন এই ফোন থেকে। 

আইটেল পি৪০ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৬ ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ইউনিসক এসসি৯৮৬৩এ 
  • র‍্যামঃ ৩/৪ জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২/৬৪ জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ডুয়াল ক্যামেরা (১৩ + ২ মেগাপিক্সেল)
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫ মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৬০০০ মিলিএম্প

আইটেল পি৪০ এর দামঃ

  • ৩ জিবি র‍্যাম + ৩২ জিবি স্টোরেজঃ ৮,৯৯০ টাকা
  • ৪ জিবি র‍্যাম + ৬৪ জিবি স্টোরেজঃ ৯,৯৯০ টাকা

আইটেল এ৪৯ প্লে – itel A49 Play

আইটেল এ৪৯ প্লে – itel A49 Play

কম বাজেটে স্টাইলিশ একটি ফোন আইটেল এ৪৯ প্লে। ৬.৩ ইঞ্চির ডিসপ্লেযুক্ত ফোন এটি। আছে ৪০০০ মিলিএম্পের ব্যাটারি এবং পিছনে ডুয়াল ক্যামেরা সিস্টেম; মেইন লেন্সটি ৫ মেগাপিক্সেলের। ২ জিবি র‍্যাম আর ৩২ জিবি স্টোরেজে পাওয়া যাচ্ছে এই ফোন। অ্যান্ড্রয়েড গো অপারেটিং সিস্টেম দেয়া হয়েছে এতে। কম বাজেটে একটি চলনসই স্মার্টফোন এটি। 

আইটেল এ৪৯ প্লে এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৩ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৩গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ২মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৪০০০মিলিএম্প

আইটেল এ৪৯ প্লে এর দামঃ ৭,৯৯০টাকা

আইটেল এ২৪ প্রো – itel A24 Pro

৫ ইঞ্চি ডিসপ্লেযুক্ত খুব ছোট এবং কম মূল্যের একটি ফোন এটি। ৩০২০ মিলিএম্পের ব্যাটারি দেয়া হয়েছে এখানে। ৪জি সাপোর্ট করে এবং ব্যাসিক কিছু ফিচার আছে এতে। কম দামি হওয়ায় এটি চলনসই পারফর্মেন্স দিতে পারে। পিছনে একটি ২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা আছে। এটিও বাজারে ২ জিবি র‍্যাম এবং ৩২ জিবি স্টোরেজে পাওয়া যাচ্ছে। ফোনটি গ্রামীণফোনের সাথে চুক্তিতেও বিক্রি হচ্ছে যা গ্রামীণফোন সেন্টার থেকে পেতে পারেন। যদিও আকর্ষণীয় দামের ফোন হওয়ার কারণে আইটেল এ২৪ প্রো এর স্টক কতদিন থাকবে সেটাই দেখার বিষয়।

আইটেল এ২৪ প্রো এর স্পেসিফিকেশনঃ

আইটেল এ২৪ প্রো – itel A24 Pro
  • ডিসপ্লেঃ ৫ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৪গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ২মেগাপিক্সেল
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ০.৩মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৩০২০মিলিএম্প

আইটেল এ২৪ প্রো এর দামঃ ৬,৯৯০টাকা

আইটেল এ৪৯ – itel A49

৬.৬ ইঞ্চির বিশাল ডিসপ্লে আর ৪০০০ মিলিএম্পের ব্যাটারি নিয়ে আইটেলের এই ফোনটি তাদের অন্যতম সেরা একটি ফোন। আছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। এছাড়া ডুয়াল এআই ক্যামেরাও দেয়া হয়েছে ৫ মেগাপিক্সেলের। ডিজাইনটিও বেশ সুন্দর এই ফোনের। সামনের ডিসপ্লেতে ওয়াটার ড্রপ নচ ব্যবহার করায় ফোনটি দেখতে বেশ আধুনিক।

আইটেল এ৪৯ – itel A49

আইটেল এ৪৯ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৬ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৩গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল ডুয়াল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ২মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৪০০০মিলিএম্প

আইটেল এ৪৯ এর দামঃ ৮,২৯০টাকা

আইটেল ভিশন ৫ – itel Vision 5

আইটেল ভিশন ৫ – itel Vision 5

৬.৬ ইঞ্চির ওয়াটারড্রপ ডিসপ্লের এই ফোনটি দেখতে আকর্ষণীয়। এতে ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জের সুবিধা আছে, সেই সাথে আছে ৫০০০ মিলিএম্পের বড় ব্যাটারি। অক্টা কোরের প্রসেসর থাকায় এটি বেশ ভালো পারফর্মেন্স প্রদান করতে পারে, দৈনন্দিন কাজগুলোতে তেমন সমস্যা হবে না। পেছনে ৩ টি ক্যামেরা আছে যার মধ্যে মেইন ক্যামেরাটি ৮ মেগাপিএক্সেলের ছবি তুলতে পারে। ফেস আনলক ও ফিঙ্গারপ্রিন্ট আনলকের সুবিধাও থাকছে আইটেল ভিশন ৫ ফোনে।

আইটেল ভিশন ৫ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৬ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৩গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ৩/৪ জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২/৬৪ জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৮মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৫০০০মিলিএম্প

আইটেল ভিশন ৫ এর দামঃ 

  • ৩ জিবি র‍্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজঃ ১০,১৯০ টাকা
  • ৪ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজঃ ১১,৪৯০ টাকা

আইটেল ভিশন ৩ – itel Vision 3

আইটেল ভিশন ৩ – itel Vision 3

আইটেলের প্রথম ফাস্ট চার্জ সাপোর্ট করা ফোন এটি। স্টাইলিশ লুকের এই কোনটিতে ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জের সুবিধা আছে। এর ৫০০০ মিলিএম্পের বড় ব্যাটারি ফাস্ট চার্জের কল্যাণে খুব সহজেই কম সময়ে চার্জ হয়ে যায়। ১.৬ গিগাহার্টজের অক্টাকোর প্রসেসর থাকায় এর পারফর্মেন্সও বেশ ভালো। সাথে আছে ৬.৬ ইঞ্চির বড় ডিসপ্লে ও ৮ মেগাপিক্সেলের ডুয়াল ক্যামেরা। ফিঙ্গারপ্রিন্ট আনলক সুবিধাও আছে এই ফোনে। বাজেটে বেশ ভালো ফিচারযুক্ত ফোন এটি।

আইটেল ভিশন ৩ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৬ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৬গিগাহার্টজ অক্টাকোর
  • র‍্যামঃ ২/৩/৪ জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২/৬৪ জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৮মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৫০০০মিলিএম্প

আইটেল ভিশন ৩ এর দামঃ

  • ২ জিবি র‍্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজঃ ৮,৯৯০ টাকা
  • ৩ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজঃ ১০,৪৯০ টাকা
  • ৪ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি স্টোরেজঃ ১১,৪৯০ টাকা

আইটেল ভিশন ৫ প্লাস – itel Vision 5 Plus

আইটেল ভিশন ৫ প্লাস – itel Vision 5 Plus

আইটেলের ফোনগুলোর মধ্যে এটি সবথেকে স্পেক সমৃদ্ধ ও বাজেটের দিক থেকে উপরের দিকের ফোন। এতে ১৬ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা আছে। ভালো পারফর্মেন্সের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে ইউনিসকের টি৬০৬ অক্টাকোর প্রসেসর। ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জ সুবিধা, ৫০০০ মিলিএম্পের বড় ব্যাটারি, ৩ জিবি পর্যন্ত র‍্যাম এক্সপ্যানশনের সুবিধা ইত্যাদি বিভিন্ন ফিচার আইটেল ভিশন ৫ প্লাস ফোনটিকে আরও আকর্ষণীয় করেছে।

আইটেল ভিশন ৫ প্লাস এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৬ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ইউনিসক টি৬০৬ অক্টাকোর
  • র‍্যামঃ ৪ জিবি
  • স্টোরেজঃ ১২৮ জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ১৬মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৫০০০মিলিএম্প

আইটেল ভিশন ৫ প্লাস এর দামঃ ১৩,৬৯০ টাকা

আইটেল আলফা লাইট – itel Alpha Lite

আইটেল এর সবচেয়ে কম দামে যে ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে সেটি হলো আইটেল আলফা লাইট। ১জিবি র‍্যাম ও ৮জিবি র‍ম এর এই ফোনটিতে ৫মেগাপিক্সেল মেইন ক্যামেরা ও ২মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা রয়েছে। এই ফোনটির ডিজাইন বেশ পুরোনো হলেও দাম বিবেচনায় মেনে নেওয়া যায়। ফোনটির ব্যাটারি অতিরিক্ত কম হওয়ায় সম্ভব হলে ফোনটি কেনা থেকে বিরত থাকুন।

আইটেল আলফা লাইট - itel Alpha Lite

আইটেল আলফা লাইট এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৫ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৩গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ১জিবি
  • স্টোরেজঃ ৮জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ২মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ২০৫০মিলিএম্প

আইটেল আলফা লাইট এর দামঃ ৫,০০০টাকা

আইটেল এ৩৬ – itel A36

সবচেয়ে কম দামে ব্যবহারযোগ্য ফোনের খোঁজে থাকলে আইটেল এ৩৬ ফোনটি আপনাকে হতাশ করবেনা। মাত্র ৫,২৯০টাকার এই ফোনটিতে রয়েছে সকল প্রয়োজনীয় ফিচার যা একটি দৈনন্দিন ব্যবহারের ফোনে থাকা উচিত। ১জিবি র‍্যাম ও ১৬জিবি স্টোরেজের এই ফোনটিতে রয়েছে ফিংগারপ্রিন্ট সেন্সর, যা দাম বিবেচনায় একটি অসাধারণ সংযোজন বলা চলে। ৩০২০মিলিএম্প এর ব্যাটারির ফোন, আইটেল এ৩৬ এর সামনে ও পেছনে রয়েছে ৫মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।

আইটেল এ৩৬ - itel A36

আইটেল এ৩৬ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৫.৫ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ  ১.৩গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ১জিবি
  • স্টোরেজঃ ১৬জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৩০২০মিলিএম্প

আইটেল এ৩৬ এর দামঃ ৫,২৯০টাকা

আইটেল এ২৫ প্রো – itel A25 Pro

আইটেল এর তরফ থেকে আরেকটি খুব কম দামের স্মার্টফোন হলো আইটেল এ২৫ প্রো। দামে মাত্র ৫,৪৯০টাকা হলেও ফোনটিতে ২জিবি র‍্যাম ও ১৬জিবি স্টোরেজ রয়েছে। ফোনটির পেছনে ৫মেগাপিক্সেল ও ফ্রন্টে ২মেগাপিক্সেল ক্যামেরা রয়েছে। এছাড়াও ৩০২০মিলিএম্প এর ব্যাটারি রয়েছে এ২৫ প্রো ফোনটিতে।

আইটেল এ২৫ প্রো - itel A25 Pro

আইটেল এ২৫ প্রো এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৫ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৪গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ১৬জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ২মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৩০২০মিলিএম্প

আইটেল এ২৫ প্রো এর দামঃ ৫,৪৯০টাকা

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

আইটেল এ২৬- itel A26

প্রায় ৭হাজার টাকার ফোন, আইটেল এ২৬ এই তালিকার অন্যান্য ফোন থেকে বেশ কিছুটা দুর্বল প্রতিযোগী বলতে হবে। পূর্বে উল্লেখিত ফোনগুলোর বাজেট সেগমেন্টে কোনো প্রতিযোগিতা না থাকলেও আইটেল এ২৬ ফোনটির বাজেট সেকশনে অন্যান্য স্মার্টফোন ব্র‍্যান্ডের ফোন রয়েছে। তাই বাজারের অন্য ফোনের সাথে ফিচার বিবেচনায় আইটেল এ২৬ ফোনটি পিছিয়ে থাকবে।

আইটেল এ২৬- itel A26

আইটেল এ২৬ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৫.৭ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ইউনিসক এসসি৯৮৩২ই
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল ডুয়াল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ২মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৩০০০মিলিএম্প

আইটেল এ২৬ এর দামঃ ৭,১৯০টাকা 

👉 ইনফিনিক্স মোবাইলের দাম

আইটেল এ৪৭ – itel A47

আইটেল এ৪৭ ফোনটির ৭হাজার টাকা দামে বেশ ভালো ফিচার অফার করছে। সাধারণ ব্যবহারের জন্য যে কোনো ধরনের ব্যবহারকারী এই ফোনটি নির্বাচন করতে পারেন। ২জিবি র‍্যাম ও ৩২জিবি স্টোরেজ রয়েছে আইটেল এ৪৭ ফোনটিতে। এছাড়াও রয়েছে ব্যবহারযোগ্য ফ্রন্ট ও রিয়ার ক্যামেরা।

আইটেল এ৪৭ - itel A47

আইটেল এ৪৭ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৫.৫ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ স্প্রেডট্রাম এসসি৭৭৩১ই
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল ডুয়াল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৩০২০মিলিএম্প

আইটেল এ৪৭ এর দামঃ ৭,০০০টাকা

আইটেল এ৪৮ – itel A48

আইটেল এ৪৮ ফোনটির দাম বিবেচনায় এতে বেশ ভালো ফিচারের দেখা মিলবে। প্রথমত ৭হাজার টাকার ফোন হওয়া স্বত্বেও ফোনটিতে রয়েছে ফিংগারপ্রিন্ট সেন্সর। আবার ২জিবি র‍্যাম ও ৩২জিবি স্টোরেজ রয়েছে ফোনটিতে। ৩০০০মিলিএম্প এর ফোন, আইটেল এ৪৮ দাম বিবেচনায় বেশ ভালো একটি ডিল হতে পারে সাধারণ ব্যবহারকারীদের জন্য।

আইটেল এ৪৮ - itel A48

আইটেল এ৪৮ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.১ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৪গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল ডুয়াল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৩০০০মিলিএম্প

আইটেল এ৪৮ এর দামঃ ৭৬৯০টাকা

👉 টেকনো মোবাইলের দাম

আইটেল ভিশন ১ প্রো – itel Vision 1 Pro

আইটেল এর ভিশন সিরিজের ফোনগুলোর কারণেই আইটেল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। আইটেল ভিশন ১ প্রো ফোনটির দাম প্রায় ৮হাজার টাকা, যাতে ২জিবি র‍্যাম ও ৩২জিবি স্টোরেজ রয়েছে। ৮মেগাপিক্সেলের মেইন ট্রিপল ক্যামেরা ও ৮মেগাপিক্সেলের সেল্ফি ক্যামেরা রয়েছে ফোনটিতে। এছাড়াও ৪০০০মিলিএম্প এর ব্যাটারির দেখা মিলবে আইটেল ভিশন ১ প্রো ফোনটিতে। ৮হাজার টাকার মধ্যে আইটেল ভিশন ১ প্রো ফোনটি নিঃসন্দেহে একটি ভালো ফোন।

আইটেল ভিশন ১ প্রো - itel Vision 1 Pro

আইটেল ভিশন ১ প্রো এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৫ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৪গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৮মেগাপিক্সেল ট্রিপল 

ক্যামেরা

  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৮মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৪০০০মিলিএম্প

আইটেল ভিশন ১ প্রো এর দামঃ ৮,৪৯০টাকা

👉 নকিয়া ফোনের দাম

আইটেল ভিশন ২এস- itel Vision 2s

৯হাজার টাকার মধ্যে ফোন খুঁজলে আইটেল ভিশন ২এস ফোনটি আপনাকে হতাশ করবেনা। ২জিবি র‍্যাম ও ৩২জিবি স্টোরেজের ফোন, আইটেল ভিশন ২এস ফোনটিতে রয়েছে ৮মেগাপিক্সেল মেইন ডুয়াল ক্যামেরা ও ৫মেগাপিক্সেল সেল্ফি ক্যামেরা। এছাড়াও ৫০০০মিলিএম্প এর বিশাল ব্যাটারি রয়েছে ফোনটিতে। 

আইটেল ভিশন ২এস- itel Vision 2s

আইটেল ভিশন ২এস এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৫২ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৬গিগাহার্জ কোয়াড কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ৮মেগাপিক্সেল ডুয়াল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল 
  • ব্যাটারিঃ ৫০০০মিলিএম্প

আইটেল ভিশন ২এস এর দামঃ ৮,৬৯০টাকা

আইটেল ভিশন ২ প্লাস – itel Vision 2 Plus

দুইটি ভ্যারিয়েন্টে পাওয়া যাবে আইটেল ভিশন ২ প্লাস ফোনটি। একটি ২জিবি র‍্যাম ও ৩২জিবি স্টোরেজ এবং অন্যটি ৩জিবি র‍্যাম ও ৬৪জিবি স্টোরেজের। ফোনটির স্পেসিফিকেশন ১০হাজার টাকার মধ্যে সেরা খেতাবের দাবিদার। ১৩মেগাপিক্সেল ডুয়াল মেইন ক্যামেরার পাশাপাশি ৫মেগাপিক্সেল সেল্ফি ক্যামেরা রয়েছে ফোনটিতে। আবার ৫০০০মিলিএম্প এর বিশাল ব্যাটারি থাকছে আইটেল ভিশন ২ প্লাস ফোনটিতে।

আইটেল ভিশন ২ প্লাস - itel Vision 2 Plus

আইটেল ভিশন ২ প্লাস এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৮ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৬গিগাহার্জ অক্টা কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি/৩জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি/৬৪জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ১৩মেগাপিক্সেল ডুয়াল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৫মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৫০০০মিলিএম্প

আইটেল ভিশন ২ প্লাস এর দামঃ

  • ২জিবি র‍্যাম + ৩২জিবি স্টোরেজঃ ৮,৯৯০টাকা
  • ৩জিবি র‍্যাম + ৬৪জিবি স্টোরেজঃ ৯,৯৯০টাকা

👉 কম দামে ভালো ফোন

আইটেল ভিশন ২ – itel Vision 2

আইটেল ভিশন ১ ফোনটির ব্যাপক সফলতার পর আইটেল ভিশন ২ ফোনটি বাজারে আসে। এই ফোনটিও বাজেট কাস্টমারদের মন জয় করে নেয়। সাধারণ ব্যবহারের জন্য যথেষ্ট কার্যকরী আইটেল ভিশন ২ ফোনটি। ১৩মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরার পাশাপাশি ৮মেগাপিক্সেল সেল্ফি ক্যামেরা রয়েছে ফোনটির ফ্রন্টে। ২জিবি র‍্যাম ও ৩২জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টে পাওয়া যাবে আইটেল ভিশন ২ ফোনটি।

আইটেল ভিশন ২ - itel Vision 2

আইটেল ভিশন ২ এর স্পেসিফিকেশনঃ

  • ডিসপ্লেঃ ৬.৬ইঞ্চি
  • প্রসেসরঃ ১.৬গিগাহার্জ অক্টা কোর
  • র‍্যামঃ ২জিবি
  • স্টোরেজঃ ৩২জিবি
  • মেইন ক্যামেরাঃ ১৩মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা
  • ফ্রন্ট ক্যামেরাঃ ৮মেগাপিক্সেল
  • ব্যাটারিঃ ৪০০০মিলিএম্প

আইটেল ভিশন ২ এর দামঃ ৮,৪৯০টাকা

আইটেল এর কোন ফোনটি আপনার ভালো লেগেছে? আমাদের জানান কমেন্ট সেকশনে।

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,572 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *