আইফোন ৭ এর সম্ভাব্য ফিচারগুলো জেনে নিন

By -

iphone 6s and plus

অ্যাপল আইফোন এর পরবর্তী ফ্ল্যাগশিপ মডেলের নাম আইফোন ৭ হবে এটাই প্রত্যাশা করছে প্রযুক্তি বিশ্ব। সেই সাথে বিভিন্ন সূত্র থেকে একের পর এক অপ্রকাশিত আইফোনের ফিচার ফাঁস হচ্ছে যা গুজব আকারে ছড়ালেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে তা সত্যি হয়ে যাওয়ার অতীত রেকর্ড রয়েছে। সেরকমই নির্ভরযোগ্য কিছু সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী চলুন দেখে নিই আইফোন ৭ এর সম্ভাব্য নতুন ফিচারগুলো।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 1,114 other subscribers

১. হেডফোন জ্যাকের বিদায়

আইফোন ৭’এ কোনো হেডফোন জ্যাক না থাকার সম্ভাবনা আছে। আলাদা 3.5mm হেডফোন জ্যাক না দিয়ে বরং আইফোনের লাইটনিং পোর্টের মধ্যেই হেডফোনের জন্য অডিও চ্যানেলের ব্যবস্থা করতে পারে অ্যাপল। এটি ঘটলে আইফোনে হেডফোন ব্যবহার করার জন্য লাইটনিং পোর্টের মধ্যেই (যে পোর্টে চার্জার যুক্ত করা হয়) হেডফোন জ্যাক সংযুক্ত করতে হবে। এর ফলে আইফোনের পুরুত্ব আরও ১ মিলিমিটারের বেশি কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। সেক্ষেত্রে ৩.৫মিমি সাধারণ হেডফোন ব্যবহার করতে চাইলে আলাদা কনভার্টারের সাহায্যে সেগুলো আইফোনে ব্যবহারের উপযোগী করে তুলতে হবে। অথবা ব্লুটুথ হেডফোন চালাতে পারবেন। অবশ্য ৩.৫ মিলিমিটার হেডফোন জ্যাক না থাকার ধারণা এটাই প্রথম না। এর আগেও বিভিন্ন ফোনে চার্জিং পোর্ট ও ডেটা পোর্টে অডিও চ্যানেল দেয়া হয়েছে।

 

২. ওয়াটারপ্রুফ ডিজাইন

একটি পোর্ট কম থাকা মানে পানিরোধী ফিচারের দিকে এক ধাপ এগিয়ে যাওয়া। আইফোন ৭ থেকে হেডফোন জ্যাক সরিয়ে চার্জিং পোর্টকে আরেকটু কৌশলে ডিজাইন করে পুরো আইফোনকে ওয়াটারপ্রুফ হিসেবে পরিচিত করে তুলতে পারে অ্যাপল।

 

৩. নতুন চেহারা

প্রতিটি মেজর আপগ্রেডেই আইফোন ডিজাইনে বেশ কিছু পরিবর্তন আসে। আইফোন ৬এস এর চেয়ে আইফোন ৭ এর পুরুত্ব কমে আসবে বলা আশা করা হচ্ছে। ডিভাইসটির পেছনে উপরে ও নিচে সাদা প্লাস্টিক ব্যান্ড দুটোর ক্ষেত্রে পরিবর্তন আসতে পারে। তবে স্ক্রিন সাইজ আইফোন ৬এস ও ৬এস প্লাসের মতই থাকবে, এমনটিই শোনা যাচ্ছে।

 

৪. ওয়্যারলেস চার্জিং

যদিও স্যামসাং সহ আরও কিছু কোম্পানির ফ্ল্যাগশিপ ফোনে ইতোমধ্যেই ওয়্যারলেস চার্জিং ফিচার চলে এসেছে, তবে আইফোনের ক্ষেত্রে আইফোন ৭ থেকে সুবিধাটি যুক্ত হতে পারে। এক্ষেত্রে ওয়্যারলেস চার্জিং ফিল্ডের রেঞ্জ বাড়ার গুঞ্জনও রয়েছে।

 

৫. বেশি ব্যাটারি ব্যাকআপ

আইফোন ৬এস প্লাসে ২৭৫০ এমএএইচ ধারণক্ষমতার ব্যাটারি দেয়া আছে, যা আইফোন ৭ প্লাসের ক্ষেত্রে ৩১০০ এমএএইচ হতে পারে। তাই যদি হয়, তবে সেটা বেশ চমৎকার একটা ব্যাপার হবে নিঃসন্দেহে।

 

৬. উন্নত ক্যামেরা

আইফোন ৭ এর ক্যামেরায় আগের চেয়ে উন্নয়ন আসবে সে কথা চোখ বন্ধ করেই বলে দেয়া যায়। বেশি মেগাপিক্সেল, স্বল্প আলোতে আরও ভাল ছবি তোলার সক্ষমতা, নতুন ভিডিও রেকর্ডিং ও স্টিল ছবি তোলার ফিচার প্রভৃতির পাশাপাশি ক্যামেরার হার্ডওয়্যারেও উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসতে পারে। গুজব শোনা যাচ্ছে যে, আইফোনের পেছনের দিকে একটির বদলে দুটি ক্যামেরা থাকতে পারে যা ফটোগ্রাফির জন্য সুবিধাজনক হবে।

 

৭. বেশি স্টোরেজ ও র‍্যাম

আইফোন ৭ এর ২৫৬ গিগাবাইট স্টোরেজ যুক্ত মডেল আসতে পারে। যেহেতু ডিভাইসগুলো ৪কে ভিডিও ও হাই-রেস্যুলেশন ফটো তুলতে সক্ষম হবে তাই এতে অধিক স্টোরেজ যুক্ত ভার্সন যোগ হওয়ারই কথা। সেই সাথে ৩জিবি র‍্যামও পেতে পারেন ডিভাইসগুলোতে। যদিও র‍্যামের ক্ষেত্রে ২জিবি, ৩ জিবি উভয়ই শোনা যাচ্ছে।

 

এছাড়া আরও যেসব গুঞ্জন চলছে তা হল, আইফোন সেভেনে অধিকতর শক্তিশালী প্রসেসর আসবে। কেউ কেউ বলছেন এতে হোম বাটন নাও থাকতে পারে, যদিও এরকম হওয়ার সম্ভাবনা কম। এছাড়া ডিসপ্লের প্রযুক্তিতেও উন্নয়ন আসবে। সবকিছু নিয়ে এই সেপ্টেম্বরে ঘোষণা আসতে পারে আইফোন ৭ এর। তবে কোনো কোনো সূত্র অনুযায়ী, এর রিলিজ ডেট কিছুটা এগিয়েও আনতে পারে অ্যাপল। সেটা কবে হবে তা জানতে বাংলাটেক এ চোখ রাখুন। এই পেজ থেকে বিনামূল্যে ইমেইলে সাবস্ক্রাইব করুন।

 

Comments

Leave a Reply