কৃত্রিম হাত লাগানো এই শিশুটিকে দিয়ে ভিক্ষা করাচ্ছে পরিবার!

prothom alo rabiul reportপ্রথম আলোর প্রতিবেদনের স্ক্রিনশট

 

ঢাকার গুলশানে কড়াইল বস্তিতে থাকাকালীন শিশু রবিউল ইসলাম ২০১৩ সালে তার দুটি হাতই হারায়। তখন শিশুটির মা রবিউলের সৎ বাবার বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন। দুটি হাত হারানো রবিউলকে এরপর বেশ কয়েকজনের সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মকর্তা রুখসানা কামার আমেরিকার ফিলাডেলফিয়ায় এক হাসপাতালে ভর্তি করান।

সেখান থেকে শিশুটির শরীরে কৃত্রিম হাত সংযোজন করানো হয়। রবিউলের বয়স ১৮ বছর হওয়া পর্যন্ত তার শরীরের সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রতি বছর যুক্তরাষ্ট্রের ঐ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিনামূল্যে নতুন হাত সংযোজন করে দেবে।

দেশে ফিরে শিশুটি স্কুলে ভর্তি হয়েছিল, লিখতেও পারত রবিউল। কিন্তু এখন রবিউলকে দিয়ে তার পরিবার ভিক্ষা করাচ্ছে। তার কৃত্রিম হাতও খুলে ফেলা হয়েছে। প্রথম আলোর প্রতিবেদন।

প্রথম আলো জানাচ্ছে, রুকসানা বলেন, “ফরিদপুরে আমার সন্তানদের সঙ্গে লেখাপড়া করত রবিউল। গত বছর ঈদুল ফিতরের আগে বেড়ানোর কথা বলে রবিউলকে নিয়ে যান তার মা। কিছুদিন পর জানতে পারি, রবিউলকে নিয়ে তার পরিবার কাফরুল এলাকায় থাকছে এবং তাকে দিয়ে ভিক্ষা করাচ্ছে। এত কষ্ট করে বিদেশ থেকে লাগিয়ে আনা তার কৃত্রিম হাত খুলে ফেলা হয়েছে।”

রবিউলের মা নাসিমা বেগম প্রথম আলোকে বলেন, “আমার পোলারে দিয়া আমি যা ইচ্ছা তা করামু। আপনাদের কী? … আমার পোলার হাত নাই। সে কী কইরা খাইব? সে ভিক্ষা করলে আপনাদের সমস্যা কী?”

এ ব্যাপারে আরও বিস্তারিত জানতে প্রথম আলোর এই প্রতিবেদনটি পড়তে পারেন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 3,290 other subscribers

Comments