বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট কি? এর সুবিধা কি? কিভাবে ওপেন করে?

এই পোস্টে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট কি, মার্চেন্ট একাউন্ট এর সুবিধা কি ও মার্চেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত জানবেন।

বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট কি?

ব্যবসায়িক লেনদেনের কাজে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট ব্যবহৃত হয়। মূলত কাস্টমারদের কাছ থেকে পেমেন্ট গ্রহণ করতে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ ক্রেতাদের কাছ থেকে একজন বিক্রেতা পেমেন্ট গ্রহণ করে থাকেন বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্টের মাধ্যমে। 

বিকাশ এর ডিজিটাল পেমেন্ট ব্যবস্থার একটি অংশ হচ্ছে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট। ব্যবহারকারীদের বিকাশ একাউন্টের মাধ্যমে তাদের পছন্দের দোকানে পেমেন্ট করার সুযোগ প্রদান করে মার্চেন্ট একাউন্ট। তাই সকল দোকানির উচিত মার্চেন্ট একাউন্ট খোলা ও কাস্টমারদের বিকাশ একাউন্ট দ্বারা পেমেন্ট এর সুযোগ করে দেওয়া। কাস্টমারের পাশাপাশি মার্চেন্ট একাউন্টের বিভিন্ন সুবিধা ভোগ করতে পারেন একজন মার্চেন্ট।

বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্টের সুবিধা কি?

একটি সাধারণ বিকাশ একাউন্ট দ্বারা পেমেন্ট গ্রহণ করা যেতে পারে, তাহলে মার্চেন্ট একাউন্ট কেনো খুলবো? এই প্রশ্ন হয়ত আপনার মনেও থাকতে পারে। চলুন তাহলে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্টের কিছু সুবিধা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

  • একই আইডি কার্ড দ্বারা একটি পার্সোনাল একাউন্ট থাকলেও গ্রাহক একটি মার্চেন্ট একাউন্ট খুলতে পারবেন (যদি তার ইতোমধ্যে ওই আইডি দ্বারা এজেন্ট বা রিটেইল একাউন্ট না থাকে)।
  • মার্চেন্ট একাউন্টে লেনদেনের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের লিমিট নেই। এক টাকা থেকে শুরু করে যেকোনো অংকের লেনদেন করা যাবে মার্চেন্ট একাউন্টের মাধ্যমে।
  • নিজের ব্যবসার গ্রাহকদের বিভিন্ন ধরনের অফার প্রদান করতে পারবেন। আপনার সেবা বা প্রোডাক্টের প্রচারে বিভিন্ন অফার দিতে পারবেন গ্রাহকদের।
  • মার্চেন্ট একাউন্ট থেকে ব্যাংক একাউন্টে সরাসরি টাকা তোলার সুযোগ রয়েছে।
  • নিজের ওয়েবসাইট বা অ্যাপে বিকাশের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারবেন।

বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খুলতে কি কি লাগে?

বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খুলতে যা যা লাগবেঃ

  • একটি লিগ্যাল ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান
  • ওয়েবসাইটের ঠিকানা (যদি থাকে)
  • যথেষ্ট পরিমাণ মাসিক পেমেন্ট গ্রহণ
  • এনআইডি/পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স
  • মেয়াদসহ ট্রেড লাইসেন্স
বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট কি? এর সুবিধা কি? কিভাবে ওপেন করে?

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম

বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খুলতে কি কি লাগবে তা তো জানা গেলো। এবার চলুন জেনে নেওয়া যাক, কিভাবে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খুলবেন।

  • বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্টের জন্য আবেদন করতে এখানে ক্লিক করুন
  • প্রথমে “ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের নাম” ফিল্ডে আপনার দোকান/ব্যবসার নাম লিখুন
  • “মেয়াদসহ ট্রেড লাইসেন্স নাম্বার” অপশনে আপনার ব্যবসার ট্রেড লাইসেন্স নাম্বার প্রদান করুন
  • “ইমেইল” ফিল্ডে ব্যবসার কাজে ব্যবহৃত ইমেইল এড্রেস প্রদান করুন
  • সকল তথ্য পূরণ করা হয়ে গেলে “জমা দিন” বাটনে ট্যাপ করুন

👉 বিকাশ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম

👉 বিকাশ একাউন্ট খোলার নিয়ম (বোনাস সহ!)

উল্লেখিত উপায়ে অনলাইনে বেশ সহজে বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খোলার আবেদন করতে পারবেন। এছাড়া বিকাশের উপজেলা বা জেলা কাস্টমার সার্ভিস পয়েন্ট এ উল্লেখিত তথ্য প্রদান করে মার্চেন্ট একাউন্ট খোলার আবেদন করতে পারবেন।

সেক্ষেত্রে মনে করে ট্রেড লাইসেন্সের কপি,  জাতীয় পরিচয়পত্র/ ড্রাইভিং লাইসেন্স/ পাসপোর্ট এর ফটোকপি (আসল কপিও নিয়ে যান) এবং আপনার কয়েক কপি ছবি নিয়ে যেতে ভুলবেন না।

আপনার কি বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট আছে? এটা সম্পর্কে আপনার মতামত কমেন্টে জানান!

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,558 other subscribers

2 comments

    • আরাফাত বিন সুলতান Reply

      অনেক ধন্যবাদ আমাদের সাথে থাকার জন্য 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *