ইফতারের দোয়া

বছর ঘুরে আবারও রমজান মাস চলে এসেছে আমাদের দোরগোড়ায়। মুসলমানদের কাছে সবথেকে পবিত্র ও ফজিলতের মাস এই রমজান মাস। পুরো মাস জুড়েই তাই মুসলমানরা মশগুল থাকেন ইবাদত ও দোয়ার মাঝে। রমজান মাস জুড়েই আল্লাহ তায়ালা তার বিশেষ রহমত নাজিল করে থাকেন।

আর এই পুরো রমজানে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ও পবিত্র সময় আল্লাহর কাছে ভীষণ প্রিয়। এসময় আল্লাহ তায়ালা বান্দার দোয়া কবুল করে থাকেন। আর তেমনই এক পবিত্র সময় হচ্ছে ইফতারের সময়। সারাদিন কষ্ট করে রোজা রেখে এসময় বান্দা আল্লাহর কাছে কিছু চাইলে তিনি খুশি হন। আর তাই ইফতারে দোয়া করা এবং আল্লাহর কাছে চাওয়া সকল মুমিনের জন্যই গুরুত্বপূর্ণ।

ইফতারে দোয়া করা সুন্নত। আল্লাহর রাসুল রাসুলুল্লাহ (সা.) ইফতারের সময় দোয়া করতেন। আর তাই সকল মুসলমানের উচিত এসময় দোয়া ও আল্লাহর জিকির করা। ইফতারের সময়টি আল্লাহর কাছে পছন্দের এক সময়। এ সময় দোয়া কবুল হয়। সঠিক সময়ে ওয়াক্ত হয়ে যাবার সাথে সাথেই ইফতার করা উত্তম।

তবে ইফতার করার আগে মহানবী (সা.) একটি দোয়া পড়তেন। তাই সুন্নাত এই দোয়াটি ইফতারি করবার আগে করে নেয়া উত্তম। দোয়াটি হলঃ

ইফতারের দোয়া (আরবিতে) :

اللَّهُمَّ لَكَ صُمْتُ وَعَلَى رِزْقِكَ أَفْطَرْتُ

ইফতারের দোয়া (বাংলা উচ্চারণে) : আল্লাহুম্মা লাকা ছুমতু ওয়া আলা রিজকিকা আফতারতু

ইফতারের দোয়া (বাংলা অর্থ) : হে আল্লাহ! আপনার জন্য আমি রোজা রেখেছি, আপনার রিজিক দ্বারা ইফতার করছি। (আবু দাউদ, সাওম অধ্যায়)

ইফতারের সময় কোরআন ও হাদিসে বর্ণিত দোয়া করা উত্তম। তবে নিজে নিজেও যে কোন দোয়া করা যেতে পারে। মূলত পবিত্র এই সময়ে দোয়া করার ব্যাপারটিই সবথেকে জরুরি।

ইফতার করবার সময় বা ইফতার করার পরে আরেকটি দোয়ার কথা হাদিসে এসেছে।

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

ইফতারের দোয়া

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইফতার করাকালীন সময়ে এই দোয়াটি করতেনঃ

ইফতার করাকালীন বা পরবর্তী দোয়া (আরবিতে) :

ذَهَبَ الظَّمَاءُ وَابْتَلَتِ الْعُرُوْقُ وَ ثَبَتَ الْأَجْرُ اِنْ شَاءَ اللهُ

ইফতারের করাকালীন বা পরবর্তী দোয়া (বাংলা উচ্চারণে) : জাহাবাজ জামাউ; ওয়াবতালাতিল উ’রুকু; ওয়া ছাবাতাল আঝরূ ইনশাআল্লাহ।

ইফতারের করাকালীন বা পরবর্তী দোয়া (বাংলা অর্থ) : (ইফতারের মাধ্যমে) পিপাসা দূর হলো, শিরা-উপসিরা সিক্ত হলো এবং যদি আল্লাহ চান সওয়াবও স্থির হলো ‘ (আবু দাউদ, মিশকাত)

মূলত ইফতারের সময় এই দুটি দোয়ার কথাই হাদিসে এসেছে। সুতরাং ইফতারের সময় দোয়ার প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্ব অনেক। আল্লাহ তায়ালার কাছে ইফতারের সময় ক্ষমা প্রার্থনা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলে তিনি খুশি হন। পবিত্র এই সময় দোয়া কবুল হয় বলে এসময় আমাদের ভুল ত্রুটির জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিত। রমজান মাসের ফজিলত ও বরকতের মাঝে ইফতার খুব গুরুত্বপূর্ণ এক ইবাদত। তাই একে যথাযথভাবে পালনের ব্যাপারে আমাদের সতর্ক থাকা উচিত। ইফতারের পরিপূর্ণ মর্যাদা বজায় রেখে রমজান মাসে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষ্যে কাজ করা সকল মুসলমানের দায়িত্ব। সূত্রঃ শিক্ষক বাতায়ন, প্রথম আলো

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,556 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *