উইন্ডোজ ১০ মেইলে এজ ব্রাউজার ব্যবহারে বাধ্য করবে মাইক্রোসফট?

By -

উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমে বিল্ট-ইন ইন্টারনেট ব্রাউজিং সফটওয়্যার মাইক্রোসফট এজ, যার মার্কেট শেয়ার ৪ শতাংশের মত, যা গুগল ক্রোমের ৫৯ শতাংশ মার্কেট শেয়ারের চেয়ে অনেক কম। কিন্তু সম্প্রতি উইন্ডোজ ১০ এর ইনসাইডার প্রিভিউ বিল্ড ১৭৬২৩ স্কিপ অ্যাহেড ভার্সনে পরীক্ষামূলকভাবে নতুন একটি বৈশিষ্ট্য যুক্ত করেছে মাইক্রোসফট যেটি আপনাকে কিছু কিছু ক্ষেত্রে উইন্ডোজের এজ ব্রাউজার ব্যবহারে বাধ্য করবে। ইতোমধ্যেই এটা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়ে গেছে।

পরীক্ষামূলক এই ফিচারটি এসেছে উইন্ডোজ মেইল অ্যাপে, যা উইন্ডোজ ১০ অপারেটিং সিস্টেমের মধ্যে দেয়াই থাকে। এতে পরীক্ষামূলক নতুন সংযোজন হচ্ছে, উইন্ডোজ মেইল অ্যাপে আপনি যতগুলো ইমেইল ব্যবহার করবেন তাতে আগত মেইলে সকল লিংক ক্লিক করা মাত্রই মাইক্রোসফট এজ ব্রাউজারে ওপেন হবে। কম্পিউটারে আপনার ডিফল্ট ব্রাউজার যা-ই দেয়া থাক না কেন, উইন্ডোজ মেইল অ্যাপের মধ্যে যেকোনো লিংক ক্লিক করলে তা সরাসরি মাইক্রোসফট এজ ব্রাউজারে ওপেন হবে। অর্থাৎ, তাৎক্ষণিক ব্রাউজার বাছাইয়ের কোনো অপশন দেখাবেনা উইন্ডোজ ১০ মেইল অ্যাপ।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 2,221 other subscribers

উইন্ডোজ ১০ বিল্ড ১৭৬২৩ স্কিপ অ্যাহেড এর চূড়ান্ত সংস্করণ হবে ওএসটির পরবর্তী মেজর আপডেট, যা হয়ত এ বছরের সেপ্টেম্বরের দিকে বাজারে আসবে। বিভিন্ন নিয়ন্ত্রক সংস্থা, যেমন ইউরোপের কম্পিটিশন কমিশন খুব সম্ভবত এরকম ব্রাউজার চাপিয়ে দেয়ার মত কোনো ফিচার মানবেনা, যদিও মাইক্রোসফট দাবী করছে উইন্ডোজ ১০ এ ব্যবহারকারীদের নিরাপদ, দ্রুততর এবং বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী অভিজ্ঞতা দেয় মাইক্রোসফট এজ। কিন্তু ব্রাউজার বাছাই করার সুবিধা হয়ত শেষ পর্যন্ত মেইল অ্যাপেও যোগ করতে হবে।

উইন্ডোজ ইনসাইডার প্রোগ্রামে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ১০ ব্যবহারকারীদের প্রতিক্রিয়া সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন নতুন নতুন ফিচার যোগ করে থাকে। সবার মতামত দেখার পর ফিচারগুলোতে বিভিন্ন পরিবর্তন-পরিবর্ধন আসে। এখন মেইল অ্যাপেও সেরকম কিছু আসবে কিনা তা দেখার জন্য আমাদের আরও কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে। কারণ, ব্রাউজার চাপিয়ে দেয়ার মত কোনো সিদ্ধান্তই ইতোপূর্বে সমাদৃত হয়নি।

বাংলাটেক এর নিয়মিত ভিজিটর হলে আপনার হয়ত মনে আছে, ২০০৭ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময় উইন্ডোজ ব্যবহারকারীদের পছন্দের ব্রাউজার বাছাই করার সুযোগ না দেয়ার কারণে ২০১৩ সালে ৭৩১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার জরিমানা হয় মাইক্রোসফটের। ইউরোপীয় কমিশন এই জরিমানা করে। সুতরাং সেরকম কিছু যাতে আবারও না ঘটে সেই চিন্তা তো অবশ্যই করবে টেক জায়ান্ট।

     
প্রযুক্তির সব তথ্য জানতে ভিজিট করুন www.banglatech24.com সাইট। নতুন পোস্টের নোটিফিকেশন ইমেইলে পেতে এই লিংকে গিয়ে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Comments