টেলিগ্রামের সেরা কিছু ফিচার জেনে নিন

টেলিগ্রাম একটি মেসেজিং অ্যাপ হলেও এখানে মেসেজ দেওয়া বা নেওয়া ছাড়াও আরো অনেক কিছু করা সম্ভব। টেলিগ্রাম অ্যাপের একান্তই নিজস্ব কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এগুলো টেলিগ্রামকে অন্যান্য মেসেজিং অ্যাপস যেমন হোয়াটসঅ্যাপ থেকে আলাদা করে। আমাদের আজকের এই আর্টিকেলে আমরা টেলিগ্রাম অ্যাপের কিছু দারুন ফিচার যেগুলো আপনাদের এই অ্যাপ ব্যবহার করতে উদ্বুদ্ধ করতে পারে সে ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করবো।  

ছবি পাঠানোর পরে সেটি এডিট এবং পরিবর্তন করা

আপনার কি কখনো কোনো ছবি পাঠিয়ে মনে হয়েছে আপনি ভুল ছবি পাঠিয়েছেন? টেলিগ্রাম ব্যবহার করার ক্ষেত্রে আপনার এই ধরনের সমস্যার ব্যাপারে কোনো ধরনের চিন্তা করতে হবে না। কেননা টেলিগ্রামের মাধ্যমে আপনি কোনো ছবি পাঠানোর পরে সেটিকে আবার এডিট কিংবা চাইলে সেটি পরিবর্তন করতে পারবেন। 

টেলিগ্রামের ছবি এডিট করার ফিচার অন্য যেকোনো ডেডিকেটেড  ছবি এডিট করার সফটওয়্যারের মতো না হলেও এটি বেশ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে। আপনি চাইলে আপনার ছবি বিভিন্ন উপায়ে এডজাস্ট করতে পারবেন, যেমন ক্রপ করার মাধ্যমে, শার্পনেস এডজাস্ট করা, কন্ট্রাস্ট এবং স্যাচুরেশন এডজাস্ট করা, ছায়া কিংবা হাইলাইট এপ্লাই করা এবং স্টিকার এবং লেখা সহ আরো অনেক কিছু আপনি এর মাধ্যমে করতে পারবেন।

এন্ড্রয়েডের টেলিগ্রাম অ্যাপে কোনো একটি ছবি এডিট কিংবা পরিবর্তন করতে চাইলে প্রথমে ছবিকে ট্যাপ এবং হোল্ড করে রাখতে হবে। এবার এখানে আসা পেন্সিল বাটনে ট্যাপ করে এডিট দিস ফটো অথবা রিপ্লেস ফটো সিলেক্ট করুন। আইফোনের ক্ষেত্রে ছবিকে ট্যাপ এবং হোল্ড করার পরে এডিট অপশনে ট্যাপ করুন। এবার মেসেজ বক্সের পাশে থাকা বাটনে ট্যাপ করে চেঞ্জ ফটো অর ভিডিও অথবা এডিট কারেন্ট ফটো নির্বাচন করুন।

ভিডিও এডিট করা

টেলিগ্রামের ভিডিও এডিটিং ফিচারের মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই আপনার বেসিক ভিডিও এডিটিং স্কিল ব্যবহার করতে পারবেন। কোনো একটি ভিডিও এডিট করার জন্য প্রথমে এটিকে পাঠানোর জন্য নির্বাচন করতে হবে। এবার এখানে যে ভিডিও এডিটর দেখা যাবে সেখানে একে পাঠাতে হবে। এই এডিটরের মধ্যে বেশ দারুন কিছু এডিটিং টুল রয়েছে। আপনি এর মাধ্যমে কোনো ভিডিওকে ক্রপ কিংবা ফ্লিপ করার পাশাপাশি ভিডিওর উজ্জ্বলতা বা উষ্ণতা সামঞ্জস্য করতে পারেন, কিছু রঙ সংশোধন করতে পারেন এবং এমনকি আপনার ভিডিও এর গুণগত মান পরিবর্তন করতে পারেন। যা কোনো মেসেজিং অ্যাপের জন্য যথেষ্ট হিসেবে বিবেচিত হয়। 

ভিডিও এডিটিং এবং প্রতিস্থাপন শুধুমাত্র আপনি যে ভিডিওগুলি পাঠাতে চান তার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়৷ আপনি ইতিমধ্যেই পাঠানো ভিডিওগুলি এডিট বা পরিবর্তন করতে পারেন। অ্যান্ড্রয়েডে টেলিগ্রামে একটি ভিডিও এডিট বা প্রতিস্থাপন করতে, ভিডিওটি ট্যাপ করুন এবং ধরে রাখুন, তারপরে এই ভিডিওটি এডিট করবেন নাকি ভিডিও প্রতিস্থাপন করবেন তা নির্বাচন করুন৷ অন্য দিকে আইফোনে, ভিডিওটি ট্যাপ করুন এবং ধরে রাখুন, তারপর বার্তা বাক্সের পাশে বোতামটি ট্যাপ করুন। এরপরে, ফটো বা ভিডিও পরিবর্তন করবেন নাকি বর্তমান ভিডিও এডিট করবেন তা নির্বাচন করুন।

আপনার মেসেজ ফোল্ডারে সেভ করা

টেলিগ্রামের চ্যাট ফোল্ডার ফিচারের মাধ্যমে আপনি এর চ্যাট গুলোকে খুব ভালো ভাবে গুছিয়ে রাখতে পারবেন। এটি অনেক দারুন একটি ফিচার কেননা কোনো একটি নির্দিষ্ট চ্যাট খুঁজে পাওয়ার জন্য অনেক সময় অনেক নিচ পর্যন্ত স্ক্রল করতে হয়। কিন্তু টেলিগ্রামের এই সুবিধার ফলে আপনি আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী চ্যাট ফোল্ডারে আলাদা ভাবে সেভ করে রাখতে পারবেন। 

যেকোনো সময় মেসেজ ডিলিট করা

টেলিগ্রাম অ্যাপের মাধ্যমে আপনি যেকোনো মেসেজ যত আগেই পাঠিয়ে থাকেন না কেন খুব সহজেই ডিলিট করতে পারবেন। এমনকি সেই মেসেজ যদি অন্য ব্যক্তি পড়েও থাকে তারপরও আপনি চাইলে সেটিকে ডিলিট করে দিতে পারবেন। এছাড়াও আপনি টেলিগ্রাম ব্যবহার করে আপনাকে পাঠানো যে কোনো মেসেজ ডিলিট করে দিতে পারবেন। আপনি যদি কিনা কোনো মেসেজ আবার দেখতে না চান কিংবা আপনার যদি এমন ভয় থাকে যে অন্য কেউ এই মেসেজ দেখে ফেলবে আপনি খুব সহজেই সেটিকে ডিলিট করে দিতে পারবেন। মজার ব্যাপার হলো আপনি টেলিগ্রামের মাধ্যমে অন্যের মেসেজ তাদের হয়েই ডিলিট করতে পারবেন।

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

telegram core features

👉 হোয়াটসঅ্যাপ নাকি টেলিগ্রাম? কোনটি সেরা?

টেলিগ্রামে কোনো একটি মেসেজ ডিলিট করার জন্য মেসেজে ট্যাপ এবং হোল্ড করে রাখতে হবে। এবার এখানে থাকা ডিলিট অপশনে ট্যাপ করে আপনি মেসেজ ডিলিট করতে পারেন। এন্ড্রয়েডের ক্ষেত্রে আপনি চাইলে অলসো ডিলিট ফর অপশনে ট্যাপ করেও ডিলিট করতে পারেন। আইফোনের ক্ষেত্রে আপনি কার জন্য মেসেজ ডিলিট করছেন তার উপর নির্ভর করে ডিলিট ফর মি অথবা ডিলিট ফর মি এন্ড এক্স অপশনে ট্যাপ করে ডিলিট করতে পারেন। এই ফিচারের মাধ্যমে মেসেজ ডিলিট করলে অন্য ব্যক্তি জানার কোনো সুযোগ পাবে না তাই তারা এটি নাও বুঝতে পারে যে কিভাবে এটি হয়েছে।

নীরব মেসেজ পাঠানো

আপনি যখন টেলিগ্রামে কাউকে মেসেজ পাঠাবেন তখন সেই ব্যক্তি কাজ করছে নাকি পড়াশোনা করছে নাকি ঘুমিয়ে আছে এবং আপনি মেসেজ দিলে সে বিরক্ত হবে কি না সেটা নিয়ে আপনার চিন্তাই করতে হবে না। কেননা এই অ্যাপে রয়েছে নীরবে মেসেজ পাঠানোর একটি ফিচার। এই ফিচারের মাধ্যমে আপনি যদি কোনো মেসেজ পাঠান তাহলে ওই ব্যাক্তির ফোন সাইলেন্ট অবস্থায় থাকুক বা না থাকুক মেসেজ গেলে তার ফোনে কোনো ভাইব্রেট কিংবা রিং হবে না। নীরব মেসেজ পাঠানোর জন্য আপনি যেই মেসেজ পাঠাতে চান সেটি টাইপ করে সেন্ড বাটনে ট্যাপ করে ধরে রাখুন। এবার এখান থেকে সেন্ড উইদাউট সাউন্ড অপশন নির্বাচন করলেই আপনি নীরব মেসেজ পাঠাতে পারবেন।

শিডিউল মেসেজ

আপনি যদি কোনো একটি মেসেজ কিছু সময় পরে পাঠাতে চান তবে মেসেজ পাঠানো ভুলে যেতে পারেন এই শঙ্কা রয়েছে, তাহলে আপনি টেলিগ্রামে কোনো একটি মেসেজ শিডিউল করতে পারেন। এটি করার জন্য প্রথমে কোনো একটি মেসেজ টাইপ করুন। এবার সেন্ড বাটনে ট্যাপ করে ধরে রাখুন। এবার এখান থেকে আপনি যে দিনের যে সময়ে মেসেজ পাঠাতে চান সেটি নির্বাচন করুন। এই ফিচারের মাধ্যমে আপনি কোনো গুরুত্বপূর্ণ মেসেজ কিংবা গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানের উইশ যেমন জন্মদিন কিংবা বিবাহ বার্ষিকী ইত্যাদির ক্ষেত্রে সঠিক সময়ে মেসেজ পাঠাতে পারবেন। এতে করে ভুলে যাওয়ার সম্ভাবনা একেবারে কমে যায়।

👉 দারুণ কিছু টেলিগ্রাম বট যা আপনার কাজে লাগবে

মেসেজ অনুবাদ করা

আপনি এই অ্যাপের মাধ্যমেই যেকোনো মেসেজ অনুবাদ করে নিতে পারবেন। টেলিগ্রামের মধ্যে একটি বিল্ট ইন ট্রান্সলেটর টুল রয়েছে। আপনাকে এই অনুবাদ চালু করার জন্য প্রথমে সেটিংস অপশনে গিয়ে ল্যাংগুয়েজ সেকশনে যেতে হবে। এবার এখান থেকে শো ট্রান্সলেট বাটন টগল করলেই আপনার এখানের কাজ শেষ। আপনি একে অপরের সাথে চ্যাটের পাশা পাশি গ্রুপ চ্যাটেরও মেসেজ অনুবাদ করতে পারবেন। আপনি চাইলে সম্পূর্ণ কথোপকথনই অন্য ভাষায় অনুবাদ করতে পারবেন। তবে এর জন্য আপনার টেলিগ্রাম প্রিমিয়ামের প্রয়োজন হবে। 

এন্ড্রয়েডের টেলিগ্রামে কোনো মেসেজ অনুবাদ করার জন্য প্রথমে মেসেজটি ট্যাপ করুন। এবার সেখানে থাকা ট্রান্সলেট অপশনে ট্যাপ করে আপনি মেসেজ অনুবাদ করে নিতে পারবেন। অন্য দিকে আইফোনের টেলিগ্রামে কোনো মেসেজ অনুবাদ করার জন্য আপনাকে মেসেজ ট্যাপ করে ধরে রাখতে হবে। সেখানে এবার ট্রান্সলেট অপশন ট্যাপ করে আপনি মেসেজ অনুবাদ করে নিতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই আইওএস ১৫ কিংবা তার উপরের কোনো ভার্শন ব্যবহার করতে হবে। কিন্তু এন্ড্রয়েডের ক্ষেত্রে আপনি যে কোনো ভার্শন ব্যবহার করেই টেলিগ্রামের এই সুবিধা নিতে পারবেন।

আপনি যদি টেলিগ্রাম ব্যবহার না করে থাকেন তাহলে এই ফিচারগুলো আপনাকে টেলিগ্রাম ব্যবহার করার দিকে আগ্রহী করতে পারে। টেলিগ্রামের দারুন কিছু ফিচার সম্পর্কিত আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের কাছে কেমন লেগেছে তা আমাদের কমেন্ট এর মাধ্যমে জানিয়ে দিন। এছাড়াও নিত্য নতুন টেকনোলজি বিষয়ক নানা ধরনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এবং প্রয়োজনীয় সকল ধরনের টিপস এন্ড ট্রিকস পেতে চোখ রাখুন আমাদের এই ওয়েবসাইটে। 

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,585 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *