বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সিং সাইট ‘কাজখুঁজি’ এলো দারুণ সব সুবিধা নিয়ে

বর্তমান সময়ের অন্যতন জনপ্রিয় পেশা ফ্রিল্যান্সিং বা মুক্তপেশা। নিজের দক্ষতা ও সৃজনশীলতাকে পুঁজি করে বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইট বা মার্কেটপ্লেসে সাফল্যের সাথে কাজ করছেন অনেক বাংলাদেশি তরুণ। তবে ছোট-বড় অসংখ্য ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসের ভীড়ে অনেক নতুন ফ্রিল্যান্সার বুঝে উঠতে পারেনা কোন মার্কেটপ্লেসে কাজ শুরু করবে, কোন মার্কেটপ্লেসটি তার জন্য ভাল হবে, আদৌ কি কাজ পাব… এই ভেবে। 

তবে সুখবর হচ্ছে, বাংলাদেশের অনলাইন পেশাজীবীদের জন্য চালু হয়ে গিয়েছে মাতৃভাষা বাংলায় ফ্রীল্যান্সিং প্লাটফর্ম kajkhuji.com.bd (কাজখুঁজি ডটকম ডটবিডি)।

ফ্রীল্যান্স মার্কেটপ্লেস কী?

মার্কেটপ্লেস বা ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলো মূলত বায়ার এবং ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে সংযোগস্থাপনকারী একটি মাধ্যম বা ওয়েবসাইট হিসেবে কাজ করে। অর্থাৎ বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং সাইটে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের বায়াররা তাদের প্রয়োজনীয় কাজটি করানোর জন্য ঐ কাজটিতে অভিজ্ঞ ও দক্ষ ফ্রিল্যান্সার খোঁজ করে থাকেন।

অর্থাৎ একটি নির্দিষ্ট কাজের জন্য কোনো একজন বায়ার জব/প্রজেক্ট পোষ্ট করে থাকেন। উক্ত কাজটি করতে আগ্রহী বিশ্বের নানা অঞ্চলের অনেক ফ্রিল্যান্সারের মধ্য থেকে তার কাজটি সম্পন্ন করার জন্য যোগ্য ফ্রিল্যান্সারকে খুঁজে নিয়ে তাকে দিয়ে কাজটি করিয়ে থাকেন। আবার অনেক ক্ষেত্রে জব পোষ্ট ব্যতীত বায়াররা ফ্রিল্যান্সারদের প্রোফাইলের তথ্য ঘেঁটে কিংবা আরো অন্যান্য প্রক্রিয়ায় তাদের কাজটির জন্য যোগ্য ফ্রিল্যান্সারকে খুঁজে বের করেন।

কোনো একটি নির্ধারিত কাজ কোনো একজন ফ্রিল্যান্সার করার মাধ্যমে ঐ কাজের জন্য বায়ারের নিকট থেকে পূর্বনির্ধারিত অর্থ পেয়ে থাকে। মোটকথা, একজন ফ্রিল্যান্সারকে দিয়ে বায়ার তার প্রয়োজনীয় কাজ নির্ধারিত পারিশ্রমিকের বিনিময়ে করিয়ে নেওয়ার মাধ্যমই হলো ফ্রিল্যান্সিং সাইট বা মার্কেটপ্লেস।

দেশীয় মার্কেটপ্লেসে কাজ করলে লাভ কী?

প্রায় প্রতিটি মার্কেটপ্লেসের কাজের ধরন, পেমেন্ট মেথড এ কিছু ভিন্নতা থাকে। বিভিন্ন দেশের অনেক ছোট-বড় ফ্রিল্যান্সিং সাইট রয়েছে যেখান থেকে ফ্রিল্যান্সাররা তাদের দক্ষতা অনুযায়ী নানান কাজ পেয়ে থাকে। তবে নানান ফ্রিল্যান্সিং সাইটের ভিড়ে অনেকসময়ই নতুন ফ্রিল্যান্সাররা বুঝে উঠতে পারেনা কোনটিতে কাজ শুরু করবে। এছাড়া অনেক দক্ষ ফ্রীল্যান্সার আছেন যারা কিনা একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে পারদর্শী হলেও ইংরেজি তেমন দখলে থাকে না যার ফলে কাজ কিভাবে করতে হবে তা জানা থাকা স্বত্ত্বেও যোগাযোগের অভাবে সেই কাজটি করতে পারে না।

এছাড়া অনেক ফ্রীল্যান্সিং সাইট আছে যেখানে ফ্রীল্যান্সারের টাকা উত্তোলনের জন্য বাংলাদেশি পেমেন্ট গেটওয়ে সাপোর্ট করে না যার ফলে অনেক টাকা চার্জ দিয়ে অন্য কোনো উপায়ে টাকা দেশে আনতে হয়। এতে প্রতি বছর অনেক পরিমান বৈদেশিক মূদ্রা হারাতে হয়।

আমাদের দেশের অনেক ব্যবসায়ী আছেন যারা তাদের দৈনন্দিন জীবনে অনেক কাজ বিভিন্ন লোক ভাড়া করে করিয়ে থাকেন। যেমনঃ গ্রাফিক্স ডিজাইন, পোস্টার ডিজাইন, ফটোগ্রাফি, ডাটা এন্ট্রি ইত্যাদি। কিন্তু অনেক সময় এমপ্লয়াররা অর্থাৎ যারা কাজ দেন তারা তাদের মনমত কাউকে খুঁজে পান না ফলে তাদের কাজটি ভালোভাবে হয় না।

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

অনেক অসাধু মানুষ আছে যারা কিনা কাজ করানোর পর টাকা নিয়ে টালবাহানা শুরু করে। এই আজ দিবে, কাল দিবে, বিকালে দিবে এমন হাজার কারন দেখিয়ে আস্তে আস্তে টাকা না দিয়ে পালিয়ে যায়। যার ফলে একে তো ফ্রীল্যান্সারের সময় ও শ্রম নষ্ট হলো, দ্বিতীয়ত ফ্রীল্যান্সিং এর প্রতি ঘৃণা তৈরি হলো।

তাই এরূপ হাজার সমস্যার সমাধান নিয়ে দেশেই চালু হয়েছে মাতৃভাষা বাংলায় ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্ম “কাজখুঁজি”। এই সাইটের প্রধান বিশেষত্ব হলো এটি সম্পূর্ন বাংলা ভাষায় তৈরি করা। আর এখানকার সকল এমপ্লয়ার অর্থাৎ যারা কাজ দিবে তারা বাংলাদেশি যার ফলে যোগাযোগেরও কোনো সমস্যা হবে না। 

এখানে কাজ শুরু করে আপনি ধীরে ধীরে ইংলিশ শিখে নিজেকে আন্তর্জাতিক মার্কেটের জন্যও প্রস্তুত করতে পারবেন। এখনই ভাল ইংরেজি না জানলেও আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগাতে পারবেন। সুতরাং এতে আপনার দুটি লাভ হবে। এক, আপনি এখনই দক্ষতা অনুযায়ী কাজ পেতে পারেন। দুই, আপনি আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হয়ে কোনো ট্রেনিং ইন্সটিটিউট থেকে অন্যান্য দক্ষতা যেমন কমিউনিকেটিভ ইংলিশ প্রভৃতি দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন।

কাজখুঁজি প্ল্যাটফর্মে কাজ করার সুবিধা

১। কমিউনিকেশন

২। পেমেন্ট গ্যারেন্টি

৩। গিগ পাবলিশ

বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সিং সাইট 'কাজখুঁজি' এলো দারুণ সব সুবিধা নিয়ে

কমিউনিকেশন বা যোগাযোগ

ফ্রিল্যান্সিং সাইট বলতে প্রথমেই আমাদের মনে আসে আপওয়ার্ক, ফাইভার, ফ্রিল্যান্সার ডটকম ইত্যাদি। কিন্তু ঐ সাইটগুলোতে কাজ পেতে হলে বা কাজ করতে হলে আমাদের অবশ্যই ইংরেজিতে ভালো দক্ষতা থাকতে হবে। ওখানকার প্রায় সকল বায়ার বিদেশি, যাদের সাথে কথা বলতে হলে আমাদের অবশ্যই ইংরেজিতে কথা বলতে জানতে হবে। 

আমাদের দেশের এমন অনেক ফ্রীল্যান্সার আছে যারা কিনা ইংরেজিতে কথা বলতে না পারলেও তাদের যথেষ্ট স্কিল রয়েছে ঐ বিষয়ে যার ফলে তাদের ঐ স্কিল এবং কাজের মাঝে বাধা হয়ে দাঁড়ায় ইংরেজি ভাষা। kajkhuji.com.bd বা কাজখুঁজি ওয়েবসাইটটি সম্পূর্ণ মাতৃভাষা বাংলায়। এখানে সবাই বাংলাদেশি যার ফলে যোগাযোগ নিয়ে কোনো ঝামেলা হবে না।

পেমেন্ট সুবিধা

কাজখুঁজি থেকে একজন ফ্রীল্যান্সার তার টাকা বাংলাদেশি পেমেন্ট গেটওয়ে দিয়ে নিতে পারবে। কাজখুঁজি সাধারণত ৪৮-৭২ ঘণ্টা পেমেন্ট রিকুয়েস্ট হোল্ড করে রাখে যাতে করে এমপ্লয়ার তার করিয়ে নেয়া কাজে কোনো সমস্যা খুঁজে পেলে তা আবার ঐ ফ্রীল্যন্সারকে দিয়ে করিয়ে নিতে পারে। আর কাজ খুঁজি জানিয়েছে, তারা স্বচ্ছ মাধ্যমে পেমেন্ট প্রসেস করে থাকে। একজন ফ্রীল্যান্সার একটি কাজ শেষ করার পর তার অ্যাকাউন্টে কত টাকা জমা হবে তা তিনি আগে থেকেই দেখতে পারেন। সুতরাং আপনি একটি কাজ বা মাইলস্টোন শেষ করে তার পেমেন্ট বুঝে নিয়ে পরবর্তী কাজের জন্য অগ্রসর হতে পারেন।

কাজখুঁজি থেকে টাকা তুলতে পারবেন মোবাইল আর্থিক সেবা যেমন বিকাশ, নগদ, রকেট প্রভৃতি থেকে এবং ব্যাংকিং চ্যানেলে। পেপাল, পেওনিয়ার বা অন্যান্য বিদেশি সেবা দরকার হবেনা এখানে।

👉 নতুন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে যে ভুলগুলো এড়িয়ে চলা দরকার

👉 সফল ফ্রিল্যান্সার হওয়ার উপায়

গিগ পাবলিশ

সাধারণত একজন সফল ফ্রীল্যান্সার শুধুমাত্র প্রোজেক্ট/জব করেই টাকা উপার্জন করে না। সে তার গিগ বা সার্ভিস সেল করার মাধ্যমে অনেক পরিমান টাকা আর্ন করে থাকে যা আমরা ফাইভার গিগ লক্ষ্য করলেই দেখতে পাই। তাই এরকম সবচেয়ে জনপ্রিয় ফিচারটি থাকছে কাজ খুঁজি ফ্রীল্যান্সিং প্লাটফর্মেও। 

এখানে একজন ফ্রিল্যান্সার তার আগে থেকে করে রাখা বা ঐ কাজে দক্ষ এমন কোনো কাজ আগেই থেকেই গিগ আকারে পোস্ট করে রাখতে পারেন। এতে করে একজন বায়ার/এমপ্লয়ার খুব সহজেই তার এই সার্ভিস/গিগটি কিনতে পারবেন। এছাড়া এমপ্লয়ার চাইলে আগে থেকেই ফ্রীল্যান্সারের সাথে চ্যাট করে নিতে পারে তার এই সার্ভিস/গিগ সম্পর্কে।

ফ্রিল্যান্সিং সাইট এখন বিশ্ব বাজারের অন্যতম বৃহত্তম মার্কেট, যেখানে হাজার হাজার কোটি টাকার লেনদেন হচ্ছে। আমাদের দেশেও একটা বড় পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ে আসেন ফ্রিল্যান্সাররা।

কাজখুঁজি টিম স্বপ্ন দেখছে তাদের বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সিং সাইট একদিন বিশ্ববাজারে প্রতিযোগিতা করবে। যারা ইতোমধ্যে Upwork, Freelancer, Fiverr এর মতো সাইটগুলোতে কাজ করেন কিংবা শুরু করতে চাচ্ছেন, সবাই যদি এসব সাইটের পাশাপাশি বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলোতেও সামান্য একটিভ হন, তাহলে এই দেশি প্ল্যাটফর্মের জন্য ইতিবাচক হবে আশা করেন সাইটটির নির্মাতারা। এটি হতে পারে বেকারত্ব সমস্যারও ভাল একটি সমাধান। ভিজিট করুন https://kajkhuji.com.bd/ আর শুরু বাংলা ভাষায় মুক্তপেশার জীবন।

আপনি কি বাংলাদেশি কোনো ফ্রিল্যান্সিং সাইটে কাজ করেছেন? আপনার অভিজ্ঞতা কমেন্টে জানান!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,420 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.