ফ্রিল্যান্সার ডটকম থেকে আয়ের উপায়

২০০৯ সালে যাত্রা শুরু করা ফ্রিল্যান্সার ডট কম একটি অস্ট্রেলিয়ান ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট। অনলাইন ও অফলাইন প্রজেক্টের জন্য ফ্রিল্যান্সার খোজাঁ ও ফ্রিল্যান্স প্রজেক্ট পাওয়ার ক্ষেত্রে ওয়েবসাইটটি বেশ জনপ্রিয়। চলুন জেনে নেওয়া যাক ফ্রিল্যান্সার ডট কম থেকে আয়ের উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত। 

অ্যাকাউন্ট খোলা ও প্রোফাইল সেটাপ

ফ্রিল্যান্সার ডট কমে প্রথমে ইমেইল এড্রেস ব্যবহার করে সাইন আপ করুন ফ্রি অ্যাকাউন্টের জন্য। এরপর উক্ত ইমেইল এড্রেস ভেরিফাই করুন, যাতে ভবিষ্যতে নিজের প্রজেক্ট কিংবা প্ল্যাটফর্মে চলমান কনটেস্ট কিংবা ফিচার সম্পর্কে জানতে পারেন। একাউন্ট খোলার সময় একটি ইউজারনেম সেট করতে হয়, যা ফ্রিল্যান্সার ডট কম এ আপনার ইউনিক আইডি। এটি একবার সেট করার পর আর পরিবর্তন সম্ভব নয়।

ফ্রিল্যান্সার ডট কম থেকে আয়ের নিয়ম

Freelancer.com সাইটে অ্যাকাউন্ট খোলার পর আপনার পুরো নাম ও ঠিকানা প্রদান করুন। এছাড়াও আপনার অ্যাকাউন্টের রেজিস্ট্রেশনের দেশ ঠিক আছে কিনা তাও চেক করুন, যাতে ফ্রিল্যান্সার ডটকম অবস্থানভেদে আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং প্রজেক্ট দেখাতে পারে। পাশাপাশি আপনার ভাষাও সেট করতে ভুলবেন না।

আপনার একাউন্টে অন্যান্য তথ্য যুক্ত করুন। প্রথমত একটি প্রফেশনাল দেখতে প্রোফাইল পিকচার এড করুন। প্রোফাইল এর হেডলাইন এড করতে ভুলবেন না। এর পাশাপাশি আপনার স্কিল ও এক্সপেরিয়েন্স তুলে ধরুন ও ঘন্টাপ্রতি নিজের রেট (আওয়ারলি রেট) প্রোফাইলে যুক্ত করুন।

সবশেষে প্রোফাইলে স্কিলস (দক্ষতা) এড করুন। কোনো প্রজেক্টের জন্য প্রয়োজনীয় কমপক্ষে একটি স্কিল না থাকলে আপনি উক্ত প্রজেক্টের জন্য বিড করতে পারবেন না। তাই নিজের দক্ষতার উপর বিচার করে যথাযথ স্কিলস যুক্ত করা ব্যাপক প্রয়োজনীয়তা বহন করে এই প্ল্যাটফর্মে।

মেম্বারশিপ প্ল্যানসমূহ

ফ্রিল্যান্সার ডট কম ওয়েবসাইটে ৫ ধরনের মেম্বারশিপ প্ল্যান চোখে পড়বে, যার মধ্যে প্রতিটি বিভিন্ন ধরনের ফিচার ও সুবিধা যুক্ত করে। প্ল্যাটফর্মে একাউন্ট রেজিস্টারের সময় ফ্রি একাউন্টে সাবস্ক্রাইব করা থাকে। যেকোনো মেম্বারশিপ প্ল্যানে সাবস্ক্রাইব করলে বিভিম্ন ফিচার ও সুবিধা ব্যবহার করা যায়।

প্রোফাইল সাজানো

নিয়োগকারীগণ আপনার প্রোফাইল দেখে আপনাকে ও আপনার কাজকে বিবেচনা করবে। তাই সঠিকভাবে প্রোফাইল সাজানো একান্ত গুরুত্বপূর্ণ। সঠিকভাবে প্রোফাইল সেটাপ করতে যা খেয়াল রাখতে হবেঃ

  • আপনার ক্লিন একটি পোর্ট্রেইট ছবি ব্যবহার করুব
  • প্রফেশনাল দেখতে একটি হেডলাইন ব্যবহার করুন
  • প্রোফাইল সামারিতে আপনার স্কিল ও অভিজ্ঞতা তুলে ধরুন
  • আওয়ারলি রেট অর্থাৎ ঘন্টা প্রতি রেট সঠিকভাবে সিলেক্ট করুন
  • পোর্টফোলিও হিসেবে আপনার পূর্বের কাজের স্যাম্পল তুলে ধরুন
  • আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা ও আগের চাকরির অভিজ্ঞতা তুলে ধরুন
  • ট্রাস্ট স্কোর বাড়াতে আপনার অন্যান্য একাউন্ট, যেমনঃ ফেসবুক, লিংকডইন ইত্যাদি লিংক করে দিন।

ফ্রিল্যান্সার ডট কম জব ক্যাটাগরিসমূহ

ফ্রিল্যান্সার ডট কম

ফ্রিল্যান্সার ডট কম এর কাজের ক্যাটাগরিসমুহ গুনে শেষ করা সম্ভব নয়। তবে সকল কাজকে ক্যাটাগরি আকারে সাজালে নিম্নোক্ত ক্যাটাগরিসমূহে ভাগ করা যাবেঃ

  • ওয়েবসাইট, আইটি ও সফটওয়্যার
  • মোবাইল ফোন ও কম্পিউটিং
  • রাইটিং ও কনটেন্ট
  • ডিজাইন, মিডিয়া ও আর্কিটেকচার
  • ডাটা এন্ট্রি ও এডমিন
  • ইঞ্জিনিয়ারিং ও সাইন্স
  • প্রোডাক্ট সোর্সিং ও ম্যানুফ্যাকচারিং
  • টেলিকমিউনিকেশন
  • সেলস ও মার্কেটিং
  • এডুকেশন বা শিক্ষা
  • বিজনেস, একাউন্টিং, হিউম্যান রিসোর্স ও লিগ্যাল
  • লোকাল জব ও সার্ভিস

বেশিরভাগ কাজ উল্লিখিত কোনো না কোনো ক্যাটাগরিতে পড়ে। এসবের বাইরে যেসব কাজ আছে, সেগুলো অন্যান্য (Other) ক্যাটাগরির অন্তর্ভুক্ত।

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

ফ্রিল্যান্সার ডটকম সাইটে কাজ খুঁজে পাওয়া

ফ্রিল্যান্সার ডট কম ওয়েবসাইটটিতে একাধিক উপায়ে কাজ খুঁজে পাওয়া সম্ভব। যেমনঃ

  • ব্রাউজার মেন্যু থেকে সার্চের মাধ্যমে কাংখিত কাজ খুঁজে পাওয়া যায়
  • প্রজেক্ট ফিডে আপনার সেট করা দক্ষতা অনুযায়ী বিভিন্ন প্রজেক্ট ও কনটেস্টের নোটিফিকেশন পাবেন
  • সম্প্রতি করা কাজের উপর ভিত্তিক করে ইমেইলে প্রজেক্ট ও কনটেস্ট সম্পর্কিত ইমেইল পাঠনো হয় 

প্রজেক্ট vs কনটেস্ট

ফ্রিল্যান্সার ডট কমে প্রজেক্ট বা কনটেস্টের উপর কাজ করা যায়। প্রজেক্ট ও কনটেস্ট সম্পর্কে আরো জানি চলুন।

ফ্রিল্যান্সার ডট কম প্রজেক্ট vs কনটেস্ট

প্রজেক্ট

বেশিরভাগ সময় একজন ফ্রিল্যান্সারকে একটি প্রজেক্টে হায়ার করা হলেও কাজের ধরন হিসাবে নিয়োগকারী একাধিক ব্যাক্তিকে একই কাজে নিয়োগ করতে পারেন। নিয়োগকারী নিজের পছন্দের যে কাউকে প্রজেক্টের জন্য হায়ার করতে পারে। দুই ধরনের প্রজেক্ট হয়ে থাকে, যথাঃ

  • ফিক্সড প্রাইসঃ এই ধরণের প্রজেক্ট একমেয়াদী হয়ে থাকে ও একটি নির্দিষ্ট বাজেট ঠিক করা থাকে
  • আওয়ারলিঃ এসব কাজে ঘন্টাপ্রতি পারিশ্রমিক প্রদান করা হয়

কনটেস্ট

কনটেস্টসমুহ কেউ একজন হোস্ট করেন। ফ্রিল্যান্সারগণ নিজেদের এন্ট্রি সাবমিট করেন। সেরা এন্ট্রিকে বিজয়ী ঘোষণা করে প্রাইজ মানি প্রদান করা হয়।

প্রজেক্টে বিড করা

ফ্রিল্যান্সার ডটকমে একাউন্ট খোলা হয়ে গেলে প্রজেক্টে বিডিং করা যাবে। প্রজেক্টে বিড করতেঃ

  •  Browse Projects পেজ থেকে আপনি কাজ করতে চান, এমন একটি প্রজেক্ট খুঁজে বের করুন
  • আপনার বিডিং এমাউন্ট ইনপুট করুন
    • ফিক্সড-প্রাইস প্রজেক্টঃ কাজ শেষে মোট কত পারিশ্রমিক চান, তা লিখুন
    • আওয়ারলি প্রজেক্টঃ কাজের জন্য প্রতি ঘন্টায় কত পারিশ্রমিক চান, তা লিখুন
  • কাজ ডেলিভার করতে কত দিন লাগবে তা লিখুন
  • আপনার অভিজ্ঞতা ও পোর্টফোলিও, ইত্যাদি উল্লেখ করে গুছিয়ে একটি প্রপোজাল লিখুন
  • উল্লিখিত প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে Place Bid প্রেস করে বিড সম্পন্ন করুন
  • এরপর নিয়োগকারী আপনার বিড রিভিউ করবে ও পছন্দ হলে প্রজেক্ট সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করতে যোগাযোগ করবে
  • নিয়োগকারী যদি কাজের স্যাম্পল দেখতে চায়, সেক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সার ডট কম এর মেসেঞ্জার ব্যবহার করে স্যাম্পল পাঠান
  • কাজের বিষয়ে উভয় পক্ষ সমঝোতায় আসলে ফ্রিল্যান্স কাজটি পেয়ে যাবেন

👉 অনলাইনে ইনকাম করার সেরা ১০ উপায়

প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট

কোনো প্রজেক্টে কাজের জন্য সিলেক্ট হওয়ার পর নিজের সেরা কাজ ডেলিভারি করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন। এই ব্যাপারে যেসব বিষয় মাথায় রাখা উচিতঃ

  • আপনার কাজের প্রগ্রেস সম্পর্কে ক্লায়েন্টকে নিয়মিত জানান
  • কোনো বিষয়ে কনফিউশন থাকলে ক্লায়েন্টকে প্রশ্ন করতে দ্বিধাবোধ করবেন না
  • ডেডলাইন মাথায় রেখে কাজ শেষ করার দিকে টার্গেট রাখুন
  • প্রতিবার টাস্ক কমপ্লিট হওয়ার পর বা প্রজেক্টের কোনো একটি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পর মাইলস্টোন পেমেন্টের জন্য ক্লায়েন্টকে জানান
  • আওয়ারলি প্রজেক্টের ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সার ডেস্কটপ অ্যাপ ওপেন করে কাজ করুন, এতে কাজের সময় নিয়ে কোনো কনফিউশন থাকেনা 
  • আপনার কাজের প্রগ্রেস সেভ করতে ফ্রিল্যান্সার অ্যাপ থেকে মাঝেমধ্যে স্ক্রিনশট নেয় ও সেভ করে – এসব স্ক্রিনশট ডিলিট করলে ঐ সময়টুকুতে যোগ করা ওয়ার্ক আওয়ার বাদ পড়ে
  • ক্লায়েন্টের সাথে সকল কথা বা ফাইল আদান-প্রদান ফ্রিল্যান্সার অ্যাপ বা ডেস্কটপ ব্রাউজার থেকে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সম্পন্ন করুন
  • কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন করে পেমেন্ট গ্রহণ করুন।
ফ্রিল্যান্সার ডট কম থেকে কি আয় সম্ভব?

হ্যা, ফ্রিল্যান্সার ডটকম থেকে ফ্রিল্যান্সিং করে আয় সম্ভব। সাবস্ক্রিপশন এর উপর ভিত্তি করে মোট এমাউন্টের ১০% / ৫%/ ৩% চার্জ হিসেবে কেটে নেয় ওয়েবসাইটটি। নতুন একাউন্ট অর্থাৎ ফ্রি সাবস্ক্রিপশনের ক্ষেত্রে ১০% চার্জ প্রযোজ্য।

ফ্রিল্যান্সার ডটকম এর পেমেন্ট মেথডসমূহ কি?

ফ্রিল্যান্সার ডট কম যেসব পেমেন্ট মেথড সাপোর্ট করে সেগুলো হলোঃ ব্যাংক এর মাধ্যমে এক্সপ্রেস উইথড্রয়াল ও ওয়্যার ট্রান্সফার, পেপাল, স্ক্রিল ইত্যাদি।

আরো জানুনঃ

আপওয়ার্ক, ফাইভার এর মতো ফ্রিল্যান্সার ডট কম ওয়েবসাইটটিতেও প্রচুর কাজের সুযোগ রয়েছে। প্রায় যেকোনো দক্ষতার গুরুত্ব রয়েছে এই ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটটিতে। আপনার দক্ষতা অনুযায়ী কাজ খুঁজে নিয়ে ফ্রিল্যান্সার ক্যারিয়ারের শুরু করতে পারেন এখনই।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 6,274 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

2 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.