আইওএস ৯ এর নতুন ফিচারগুলো দেখে নিন

ios 9 apple

অ্যাপল তাদের নতুন আইফোন এবং আইপ্যাডে নতুন অপারেটিং সিস্টেম আই ও এস ৯ নিয়ে এসেছে। নতুন এই অপারেটিং সিস্টেম বেশ কিছু নতুন ফিচার নিয়ে এসেছে যা সম্পর্কে এখনো আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা। চলুন আইওএস ৯ এর উল্লেখযোগ্য নতুন ফিচার গুলো দেখে নিই।

১। নতুন সার্চ অপশন এর মাধ্যমে আপনি এখন সেটিংস এর ভিতর ফাংশন গুলো খুঁজে বের করতে পারবেন।

২। অবশেষে, অ্যাপল নিয়ে এলো এন্ড্রয়েডের মত ব্যাক বাটন। এক অ্যাপ থেকে অন্য অ্যাপে সুইচ করা অতীতে আসলেই কষ্টকর ছিল যা এখন অনেকটাই সহজ। আপনি যদি কোনো অ্যাপ থেকে নোটিফিকেশন পান তবে সেই নোটিফিকেশন বারের বামে একটি বাটনে ক্লিক করে খুব সহজেই সোজাসুজি সেই এপটিতে চলে যেতে পারবেন। এই ফিচারটি অ্যাপল সব অ্যাপের জন্য বিল্ট ইন করে দিয়েছে। এর মানে হচ্ছে ডেভেলপারদের এখন আর আলাদা আলাদা অ্যাপের জন্য এ কাজটি করতে হবে না।

৩। আপনার ফোনের কোন অ্যাপটি কী পরিমান ব্যাটারি খরচ করছে তা এখন সহজেই দেখা যাবে। আরও আছে ব্যাটারি সেভিং ‘লো পাওয়ার মুড’।

৪। আইপ্যাডে আগে আইফোনের হোমস্ক্রিন এর মতই ইন্টারফেস ছিল যা আইপ্যাডের বড় স্ক্রিনের অপচয়। কিন্তু এখন আর আগের মত ছোট অ্যাপ ফোল্ডার দিয়ে স্ক্রিন এর বাড়তি স্থান নষ্ট হবে না কেননা আইপ্যাডে অ্যাপ ফোল্ডার গুলো এখন বড় বড়, অর্থাৎ স্ক্রিনের সাথে সামঞ্জস্য রেখে দেখাবে।

৫। অ্যালবামে এখন থাকবে সেলফি নামক ডেডিকেটেড ফোল্ডার ফলে আপনি সহজেই সেলফি গুলো খুঁজে পাবেন।

৬। আগে ক্যাপসলক নিয়ে অ্যাপল কি বোর্ডের ব্যাপক সমালোচনা হয়েছে কেননা এতে বোঝা যেতনা যে আসলে ক্যাপসলক অন নাকি অফ আছে। এখন আর সে সমস্যা নেই।

৭। যারা এক এর অধিক ডিভাইস ব্যবহার করেন তাদের জন্য আই ক্লাউড খুবই দরকারী একটি জিনিস। কিন্তু পূর্বে এর জন্য কোন ডেডিকেটেড আইকন ছিল না। ফলে এর কোনো কেন্দ্রীয় স্থান ছিলনা যেখানে ফাইল সার্চ করা যাবে। তবে এখন আর সেই সমস্যা নেই কেননা ড্রপবক্স, গুগল ড্রাইভ, ওয়ান ড্রাইভ এর মত আইক্লাউডের ডেডিকেটেড আইকন।

৮। আগে অ্যাপল এর হেলথ অ্যাপে রিপ্রোডাকক্টিভ ডাটা দেখার কোন সুযোগ ছিল না কিন্তু নতুন আইওএস এ এই সুবিধা যোগ করা হয়েছে।

৯। আইওএস ৯ এ নোট এ সোজা লাইন আঁকা, বিভিন্ন ধরনের রুলার সহ বেশ কিছু উন্নয়ন ও পরিবর্তন আনা হয়েছে।

১০। আপনি এখন ‘শেইক টু আনডু’ বন্ধ করতে পারবেন।

১১। সাফারির রিডার দেখতে এখন আগের থেকে অনেক সুন্দর।

১২। কুইক রিপ্লাই অ্যাপল এখন আর শুধু নিজেদের জন্য সীমাবদ্ধ করে রাখেনি। এটি এখন তৃতীয় পক্ষের অ্যাপ এর ডেভেলপাররাও ব্যবহার করতে পারবেন।

১৩। নোটিফিকেশন প্যানেলে যুক্ত হয়েছে ফাইন্ড মাই ফ্রেন্ড নামক অপশন ফলে আপনি অ্যাপে প্রবেশ না করেই আপনার বন্ধুদের (যারা আইফোন ব্যবহার করে) তাদের খুঁজে পাবেন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,594 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.