নতুন আইফোনের খবরে শেয়ার মূল্য কমল অ্যাপলের!

টেক জায়ান্ট অ্যাপলের নতুন আইফোন মডেল ঘোষণা করার খবরের পর পর কোম্পানিটির শেয়ার মূল্য ৫ শতাংশ কমে গিয়েছে। বিনিয়োগকারীরা ভাবছেন ১০ সেপ্টেম্বরে প্রকাশিত ঐ দুই আইওএস স্মার্টফোন উন্নয়নশীল মার্কেটে ভাল ফলাফল প্রদান নাও করতে পারে। নিশ্চয়ই জানেন, গত মঙ্গলবার ক্যালিফোর্নিয়ায় আয়োজিত এক ইভেন্টে আইফোন ৫এস এবং আইফোন ৫সি পরিচিত করেছে অ্যাপল।

যদিও বহুদিন আগে থেকেই রঙ্গিন কভারযুক্ত তুলনামূলক সস্তা আইফোন ৫সি’র কথা গুজব আকারে শোনা যাচ্ছিল, তবে শেষ পর্যন্ত কালারফুল আইওএস মোবাইলের ব্যাপারটি সত্যি হলেও দামের দিক দিয়ে এটি মোটেই সস্তা নয়। ১৬ গিগাবাইট স্টোরেজ সমৃদ্ধ একটি আইফোন ফাইভ সি কিনতে আপনার ৭৪০ মার্কিন ডলার পর্যন্ত লেগে যেতে পারে। এবং এই রেঞ্জের হ্যান্ডসেট মার্কেটে এইচটিসি, স্যামসাং, হুয়াওয়েই প্রভৃতি প্রতিযোগী কোম্পানির তুলনায় অনেক পিছিয়ে রয়েছে আইফোন নির্মাতা।

এসব কারণেই বুধবার শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অ্যাপলের শেয়ারপ্রতি মূল্য ৫.৪ শতাংশ কমে ৪৬৭.৭ মার্কিন ডলারে ঠেকে।

বিভিন্ন প্রযুক্তি বাজার বিশ্লেষকরা ভাবছেন, উন্নত দেশে প্রিমিয়াম মূল্যের আইফোন নিয়ে চমৎকার সাফল্য লাভ করার ফলে অ্যাপল এখন তাদের স্মার্টফোন বাজারের প্রবৃদ্ধি সম্পর্কে উদাসীন। আর এজন্যই চীন ও ভারতের মত উঠতি অর্থনীতিতে ব্যয়বহুল আইফোনের মার্কেট শেয়ার কম।

আমেরিকা-ইউরোপের বড় বড় মোবাইল ক্যারিয়ারের মত উন্নয়নশীল দেশের ফোন কোম্পানিগুলো উচ্চমূল্যের ডিভাইসের জন্য ভর্তুকি দিতে রাজী নয়। ফলে এসব দেশে অপেক্ষাকৃত কমদামী স্মার্টফোনের একটা ভাল জনপ্রিয়তা রয়েছে। অনেকেই মনে করেছিলেন, অ্যাপল হয়ত এবার সস্তা আইফোন বাজারে ছাড়বে- কিন্তু আপাতত সেই স্বপ্ন অধরাই থেকে যাচ্ছে।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 3,360 other subscribers

Comments