বিকাশ পে-লেটার ব্যবহার করার নিয়ম

বিকাশে এলো পে-লেটার ফিচার যার মাধ্যমে বিকাশ একাউন্টে টাকা না থাকলেও দোকানে কেনাকাটার পেমেন্ট করা যাবে। এই ফিচারটিকে অনেকটা ক্রেডিট কার্ডের সাথে তুলনা করা যেতে পারে যেখানে আপনার ব্যবহারের উপর ভিত্তি করে আপনাকে লোন প্রদান করা হয় খরচ করার জন্য। এই ফিচারটি মূলত বিকাশ লোন এর নতুন একটি রুপ মাত্র।

এই পোস্টে বিকাশ পে-লেটার ফিচার এর খরচ, পে-লেটার ফিচার কিভাবে ব্যবহার করতে হয়, ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত জানবেন।

বিকাশ পে-লেটার এর খরচ

বিকাশ পে-লেটার ব্যবহার করে নেওয়া লোন এর ক্ষেত্রে প্রথম ৭ দিনের মধ্যে পরিশোধ করে দিলে কোনো প্রকার ইন্টারেস্ট প্রদান করতে হবেনা। সাধারণত এই ফিচার ব্যবহার এর ক্ষেত্রে লোনের এমাউন্টের উপর প্রসেসিং ফি ০.৫৭৫% প্রযোজ্য হবে। ৩ মাসের কিস্তিতে যদি নেওয়া লোন পরিশোধ করতে চান সেক্ষেত্রে ৯% ইন্টারেস্ট রেট প্রযোজ্য হবে।

আবার চাইলে ৬ মাসের কিস্তিতেও এই লোন পরিশোধ করা যাবে। ৬ মাসের কিস্তিতে এই লোন নিতে চাইলে সেক্ষেত্রে মোট এমাউন্টের ২০% বিকাশ একাউন্টের ব্যালেন্স থেকে কাটা হবে এবং বাকি এমাউন্ট লোন পাবেন গ্রাহক। এইক্ষেত্রে ৯% ইন্টারেস্ট ফি প্রযোজ্য হবে। বিকাশ পে-লেটার ফিচার ব্যবহার করে পেমেন্ট এর সময় ‘আংশিক পরিশোধ’ অপশন ব্যবহার করে লোন এর পরিমাণ বাড়ানো বা কমানো যাবে। সঠিক সময়ে বিকাশ লোনের কিস্তি পরিশোধ না করলে বিলম্বিত পরিমাণের উপর বার্ষিক ২% হারে জরিমানা দিতে হবে।

বিকাশ পে-লেটার ফিচার ব্যবহার করার নিয়ম

বিকাশ পে-লেটার ফিচার ব্যবহার করা যাবে বিকাশ অ্যাপের পেমেন্ট অপশনের মাধ্যমে। পে-লেটার ব্যবহার করে কিভাবে বিকাশ পেমেন্ট করবেন সেটি জেনে নেওয়া যাক।

প্রথমে পিন প্রদান করে বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করুন। এরপর পেমেন্ট অপশন সিলেক্ট করুন। এবার মার্চেন্ট কিউআর কোড স্ক্যান করুন।

এবার অপশন থেকে ৭ দিনে ইন্টারেস্ট বিহীন পরিশোধে অথবা সর্বোচ্চ ৬ মাসে পরিশোধ – আপনার পছন্দমতো পরিশোধের প্ল্যান সিলেক্ট করুন। পরিশোধের প্ল্যানের বিস্তারিত দেখুন ও বুঝে নিন।

এবার আপনার বিকাশ একাউন্টের পিন নাম্বার প্রদান করুন। ট্যাপ করে ধরে রাখলে পেমেন্ট সম্পন্ন হয়ে যাবে। এরপর লোন পরিশোধ করতে পরবর্তীতে বিকাশ অ্যাপের লোন সেকশনে প্রবেশ করে লোনের বিবরণীতে প্রবেশ করুন।

bkash pay later steps

পে-লেটার সম্পর্কিত সাধারণ সমস্যা, সমাধান, প্রশ্ন ও উত্তর

বিকাশ পে-লেটার ফিচার ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু সাধারণ সমস্যা দেখা যায়, সেগুলোর উত্তর জানি চলুন

বিকাশ অ্যাপে লোন / পে-লেটার অপশন দেখতে পাচ্ছিনা কেনো?

সমাধানঃ সাধারণত বিকাশ অ্যাপে প্রবেশ করে লোন আইকনে ট্যাপ করলে লোন ড্যাশবোর্ড দেখতে পাওয়ার কথা। যদি এই আইকন দেখতে না পান কিংবা গ্রে (ধূসর) হয়ে আছে দেখেন তবে বুঝতে হবে হয়ত আপনার একাউন্ট এই ফিচারটির জন্য উপযুক্ত নয়, অথবা বিকাশ অ্যাপ বা আপনার একাউন্ট আপডেট করতে হবে।

বিকাশ লোন নিতে পারছিনা কেনো?

বিকাশ লোন বা পে-লেটার অপশনে প্রবেশ করে যদি দেখেন “লোন নিতে আগ্রহী হওয়ায় আপনাকে ধন্যবাদ। লোন পেতে, আপনার বিকাশ একাউন্টে ব্যালেন্স রাখুন, পেমেন্ট ও অ্যাড মানি সেবা বেশি বেশি ব্যবহার করুন” বা  “অনুগ্রহ করে তথ্য হালনাগাদ করুন লোন/পে-লেটার সেবা পেতে অনুগ্রহ করে আপনার তথ্য হালনাগাদ করুন। কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করে ই-কেওয়াইসি এর মাধ্যমে আপনার তথ্য হালনাগাদ করুন” এরকম কিছু লেখা, তাহলে বুঝতে হবে আপনার বিকাশ একাউন্টে লেনদেনের পরিনাণ বাড়াতে হবে এবং আপনার বিকাশ একাউন্টের তথ্যও হালনাগাদ করতে হবে।

বর্তমানে সব গ্রাহকের জন্য লোন ও পে-লেটার সার্ভিস চালু করা হয়নি। তাই আপনার বিকাশ একাউন্টে এই ফিচারগুলো পেতে একাউন্ট ব্যালেন্স রাখার ও বেশি বেশি লেনদেন করার পরামর্শ দিয়ে থাকে বিকাশ।

কত টাকা বিকাশ লোন পাওয়া যাবে?

বিকাশ লোন বা পে-লেটার এর সর্বোচ্চ লিমিট ২০,০০০ টাকা হলেও তার মানে এই নয় যে সকল গ্রাহক সমান এমাউন্টের লোন পাবেন। গ্রাহকের লেনদেন ও একাউন্টের ব্যালেন্স এর উপর ভিত্তি করে কে কত টাকা লোন পাবেন তা ঠিক করা হবে।

তাই একাউন্টের লোন এর পরিমাণ ভিন্ন হতে পারে। অর্থাৎ আপনার বিকাশ একাউন্টে যদি যথেষ্ট লেনদেন হয় তবে আপনি ২০,০০০ টাকা লোন পেতে পারেন, আবার কোনো বিকাশ একাউন্টে লেনদেন কম হলে সে একাউন্ট কম টাকা লোন পেতে পারে। বিকাশ পে লেটার সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে পারেন তাদের অফিসিয়াল পেজ থেকে। 

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,572 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *