অনলাইন আয়ের জন্য ডাটা এন্ট্রি শেখার উপায়

ফ্রিল্যান্সিং বা অনলাইনে আয় শুরু করার জন্য ডাটা এন্ট্রি কাজগুলো সবথেকে জনপ্রিয়। অনলাইনে অনেক ডাটা এন্ট্রি জব ওয়েবসাইট আছে। ডাটা এন্ট্রির কাজগুলো ঘরে বসেই করা যায়। ডাটা এন্ট্রি শেখা অপেক্ষাকৃত সহজ এবং সুবিধাজনক বলে অনেক ফ্রিল্যান্সার তাদের অনলাইনে আয় শুরু করেন ডাটা এন্ট্রি দিয়ে। তবে ডাটা এন্ট্রির কাজ করতেও আপনার কিছু দক্ষতা থাকতে হবে। নয়তো এই কাজগুলো করা আপনার জন্য সম্ভব হবে না। তাই কিছু না জেনেই এই কাজ শুরু করার থেকে এ সম্পর্কে কিছু জ্ঞান নিয়ে এবং প্রস্তুতি নিয়ে শুরু করা ভালো।

ডাটা এন্ট্রি কী?

ডাটা এন্ট্রির কাজ শুরু করার আগে বোঝা প্রয়োজন ডাটা এন্ট্রি আসলে কী। সোজা কথায় ডাটা এন্ট্রি হচ্ছে কোনো কম্পিউটার বা অন্য ডিভাইসে তথ্য বা ডাটা ইনপুট করা। এই কাজ আপনি ম্যানুয়ালি করতে পারেন কীবোর্ড ও মাউস ব্যবহার করে। আবার অনেক ডাটা এন্ট্রির কাজ সফটওয়্যারের সাহায্যেও করা যায়। যেমন অপটিক্যাল ক্যারেকটার রিকগনিশন বা ওসিআর সফটওয়্যারের মাধ্যমে লেখা কিছুকে ডিজিটাল টেক্সটে কনভার্ট করা বা বারকোড স্ক্যানার সফটওয়্যার দিয়ে ডাটা ইনপুট দেয়া ইত্যাদি।

ভয়েসের মাধ্যমেও ডাটা ইনপুট দেয়া যায়। তবে অনলাইনে যেসব ডাটা এন্ট্রির কাজ রয়েছে বেশিরভাগ আপনাকে ম্যানুয়ালি কিবোর্ড এবং মাউস ব্যবহার করে কাজ করতে হবে। সবথেকে বেশি ডাটা এন্ট্রির কাজ যেটা থাকে তাকে বলা যায় আলফানিউমেরিক ডাটা এন্ট্রি, অর্থাৎ অক্ষর ও সংখ্যা ইনপুট দেয়া। এছাড়া শুধু সংখ্যা, শুধু অক্ষর, ছবি, অডিও ফাইল, ভিডিও ফাইল এগুলোও কাজের ধরণ অনুযায়ী ইনপুট দেয়া সম্ভব ডাটা এন্ট্রি কাজে।

ডাটা এন্ট্রির কাজ সবথেকে জনপ্রিয় কেননা অন্য মাধ্যম থেকে এতে কিছুটা কম সময়ে আয় করা যায় এবং নিজের সুবিধাজনক সময় অনুযায়ী কাজ করা যায়। এর জন্য বিশেষ কোনো দক্ষতাও দরকার নেই, সাধারণ কিছু দক্ষতা দিয়েই এটি করা সম্ভব।

ডাটা এন্ট্রি কীভাবে করে?

সোজা কথায় এক উৎস থেকে ডাটা বা তথ্য নিয়ে আরেক উৎসতে সেটা সংরক্ষণ করতে হবে, এটাই ডাটা এন্ট্রি। যেমন স্ক্যান করা ডকুমেন্ট হতে তথ্য নিয়ে সেগুলো আপনাকে এক্সেল ফাইলে সাজাতে হতে পারে। কিংবা ওসিআর সফটওয়্যার দিয়ে লেখা কোনো টেক্সটকে ডিজিটাল টেক্সটে নির্ভুলভাবে রূপান্তর করতে হতে পারে। সাধারণত বেশিরভাগ কাজেই আপনাকে হাতে লেখা কিছু তথ্য ডিজিটাল কোনো ফরম্যাটে তৈরি করতে হবে। এটাই মূলত ডাটা এন্ট্রি।

কোনো অফিস বা কোম্পানির কাছে তাদের সকল তথ্য হাতে লেখা বা কাগজে থাকতে পারে। এগুলো সেই কোম্পানি যদি ডিজিটাল করতে চায় তবে তারা ডাটা এন্ট্রির জন্য নিয়োগ দিতে আগ্রহী হয়। এই কাজগুলো করেই আয় করা সম্ভব হয়। জেনে রাখা ভাল, ডাটা এন্ট্রি করার ক্ষেত্রে একই ধরনের কাজ বার বার করতে হতে পারে, যা কিছুটা একঘেয়ে লাগতে পারে।

ডাটা এন্ট্রির জন্য কী কী দক্ষতা থাকা প্রয়োজন?

একটু আগেই যেমনটি বলেছি, ডাটা এন্ট্রি খুব সাধারণ কাজ হলেও বারবার একই কাজ করতে হয় বলে এটা কিছুটা ক্লান্তিকর। এছাড়াও বিশেষ কোনো দক্ষতা দরকার না হলেও ডাটা এন্ট্রির কাজে কম্পিউটার চালানোর সাধারণ দক্ষতা থাকা অতি জরুরি। তাছাড়াও মাইক্রোসফট অফিস বা গুগল ডকস এর মাধ্যমে বিভিন্ন ফাইল তৈরি করার দক্ষতা থাকা দরকার।

এজন্য মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, এক্সেল, গুগল ডক, গুগল শিট ইত্যাদির কাজে দক্ষতা থাকা আবশ্যকীয়। এছাড়া টাইপিং দক্ষতাও গুরুত্বপূর্ণ। এখানে এসব দক্ষতা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো: 

  • দ্রুত টাইপ করা এবং কাজ শেষ করা: এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে বিভিন্ন ডকুমেন্ট তৈরি করতে হবে ডাটা এন্ট্রির কাজে। তাই আপনাকে টাইপিং করতে হবে সবসময়। টাইপিং দক্ষতা না থাকলে কাজ শেষ করতে আপনার বেশি সময় লাগবে। আর বাড়তি সময় নিলে সঠিক সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করা কষ্টকর হয়ে পড়বে। তাই প্রতি মিনিটে অন্তত ৩০ শব্দ টাইপ করার দক্ষতা থাকা উচিত। টাইপিং দক্ষতা বাড়াতে অনলাইনে বিভিন্ন কোর্স করতে পারেন ফ্রিতেই। এছাড়া কিব্লেজ, টাইপিং.কম, টাইপ ইজি ইত্যাদি বিভিন্ন সফটওয়্যার আপনাকে টাইপিং দক্ষতা বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। এছাড়া প্রফেশনালভাবে টাইপ করা শিখতে চাইলে বিভিন্ন কোর্স করতে পারেন অনলাইনে বা বাইরে কোনো ট্রেনিং সেন্টারে।

👉 ডাটা এন্ট্রি শেখার জন্য এই কোর্সটি করুন

  • কম্পিউটার চালানোর দক্ষতা: ব্যাসিক কম্পিউটার জ্ঞান সাধারণ ডাটা এন্ট্রির কাজ করতে যথেষ্ট। ওয়ার্ড, এক্সেল ও অন্যান্য প্রোগ্রাম কীভাবে ব্যবহার করতে হয় সেটি নিয়ে সাধারণ জ্ঞান থাকলেই বেশিরভাগ কাজ করে ফেলতে পারবেন। তবে আপনি যদি আরেকটু বেশি আয় করতে চান এবং আরেকটু বেশি জটিল কাজ করতে চান তখন এসব ব্যাপারে গভীর জ্ঞান থাকা জরুরি। তাই চাইলে অনলাইনে বা বাইরে থেকে প্রফেশনাল কোনো কোর্স করতে পারেন এই বিষয়ে দক্ষ হতে। ইউডেমি, কোর্সেরা ইত্যাদি সাইটে অনেক গাইড পেয়ে যাবেন অনলাইনেই।
  • নিখুঁতভাবে কাজ করার দক্ষতা: ডাটা এন্ট্রির কাজ করতে হলে এটি বড় একটি দক্ষতা। আপনাকে প্রতিটি তথ্য একদম নিখুঁতভাবে ইনপুট দিতে হবে। অন্যমনস্ক হয়ে ভুল তথ্য দিলে সেটা সমস্যার সৃষ্টি করবে। তাই মনোযোগ ধরে রাখতে পারা খুব জরুরি। প্রতিটি তথ্য বার বার নিশ্চিত হয়ে দ্রুত ইনপুট করা একটি বড় দক্ষতা। যেকোনো ভুল পরবর্তীতে শোধরানো কষ্টসাধ্য হয়ে যায় ডাটা এন্ট্রির কাজে।
  • সঠিক সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা: ডাটা এন্ট্রির কাজ যারা করেন তাদেরকে সঠিকভাবে সকল নির্দেশনা অনুসরণ করতে হয়। তবে এমন অনেক সময় আসে যখন নিজের বিচারবুদ্ধি থেকেই সিদ্ধান্ত নিতে হয়। এসময় সঠিক ও নির্ভুল সিদ্ধান্ত নিতে পারে জরুরি। ডাটা এন্ট্রির কাজে আপনার প্রদান করা তথ্যগুলো অনেক স্থানে ব্যবহৃত হতে পারে। আপনি ভুল তথ্য প্রদান করলে বা ভুল করে ফেললে সেটা সকলের জন্যই সমস্যা তৈরি করতে পারে।

👉 ডাটা এন্ট্রি শেখার জন্য এই কোর্সটি করুন

অনলাইন আয়ের জন্য ডাটা এন্ট্রি শেখার উপায়

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

যেখানে ডাটা এন্ট্রি কাজ করে আয় করতে পারবেন

ডাটা এন্ট্রির জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতাগুলো অর্জন করার শেষে আপনি কাজ শুরু করতে পারেন। প্রথমে ছোট ও সহজ কাজগুলো শুরু করা উচিত। এসব কাজে আয় কম হলেও এতে আপনি ধীরে ধীরে শিখতে পারবেন এবং বড় কাজ করবার ক্ষমতা অর্জন করবেন। অনলাইনে অনেক ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস আছে যেখানে আপনি ডাটা এন্ট্রির কাজ পেতে পারেন। আপওয়ার্ক, ফ্রিল্যান্সার.কম, ফাইভার ইত্যাদি সাইটে আপনি বিভিন্ন ডাটা এন্ট্রির কাজ পেয়ে যাবেন।

বিড করার মাধ্যমে অথবা আপনার রেট বলে মার্কেটপ্লেসগুলোতে আপনি কাজ পেতে পারেন। ধীরে ধীরে কাজগুলো করার মাধ্যমে আপনার পোর্টফোলিও তৈরি করতে পারেন। ক্লায়েন্ট আপনার কাজে সন্তুষ্ট হলে আপনার আয়ের পরিমাণও বাড়তে থাকবে এবং আপনি আরো বেশি কাজ করতে পারবেন। 

এসব সাইট ছাড়াও নিজের নেটওয়ার্ক তৈরি করে সেখান থেকেও চুক্তির মাধ্যমে কাজ করা সম্ভব। কিন্তু এজন্য নিজের ভালো পরিচিতি থাকা জরুরি। আপনার কাজ ভালো হলে অনেকেই আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করে কাজের প্রস্তাব দিতে পারে। তবে এক্ষেত্রে যাচাই-বাছাই করে কাজ করা ভালো।

এভাবে ডাটা এন্ট্রির কাজ শুরু করতে পারেন। তবে কাজ শুরু করার আগে নিজের দক্ষতা বাড়ানো জরুরি। শুধুমাত্র ডাটা এন্ট্রি কাজের জন্যই যে এসব দক্ষতা থাকা দরকার সেটা নয়। বরং এসব দক্ষতা অন্যান্য বিভিন্ন কাজেও আপনাকে সাহায্য করতে পারবে। তাই নিজের দক্ষতা বাড়ান। এরপর ধীরে ধীরে কাজ শুরু করে দিন। এভাবে খুব দ্রুতই ডাটা এন্ট্রি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আয় করা শুরু করতে পারবেন।

👉 ভিডিওঃ অনলাইন ইনকামের জন্য যে বিষয়গুলো জানা জরুরি

👉 আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করে সাথেই থাকুন। এখানে ক্লিক করে সাবস্ক্রিপশন কনফার্ম করুন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,813 other subscribers

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.