রেডমি ও পোকো ফোনের মধ্যে পার্থক্য কী? জানুন এখানে

শাওমি, রেডমি, পোকো – এসব নাম তো আমরা প্রায় প্রতিদিন শুনে থাকি। তবে প্রশ্ন হলো শাওমি বা রেডমি এবং পোকো ফোনগুলোর মধ্যে পার্থক্য বা মিল কোথায়। এই পোস্টে আমরা জানবো রেডমি ও পোকো ফোনের মধ্যে বিদ্যমান সাদৃশ্য ও পার্থক্যগুলো সম্পর্কে। এই পোস্ট থেকে ব্র‍্যান্ড হিসেবে রেডমি ও পোকো এর অবস্থান সম্পর্কে পরিস্কার ধারণা পাবেন।

প্রথমে বলে রাখি, রেডমি ও পোকো হলো মূলত শাওমি এর অধীন বাজেট স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানি। কম দামে সেরা ফোন অফার করার চেষ্টা করে থাকে উভয় স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান।

দুইটি ব্র‍্যান্ডের ফোনেই যেকোনো দামের মধ্যে সেরা ফিচার পাওয়া যায়। আপনি যে ব্র‍্যান্ডের ফোনই কিনুন না কেনো, উক্ত দামের অন্যান্য ফোনের চেয়ে রেডমি বা পোকো ব্র‍্যান্ডের ফোন এগিয়ে থাকার চেষ্টা করবে। তবে কোম্পানি দুইটির মধ্যে মৌলিক কিছু পার্থক্যও রয়েছে যা জানতে পারবেন এই পোস্টে। 

রেডমিঃ রেডমি হলো ২০১৩ সালের জুলাই মাসে যাত্রা শুরু করা বাজেট স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। চীনা ইলেকট্রনিকস কোম্পানি, শাওমি এর শাখা হলো এই প্রতিষ্ঠান। ২০১৯ সালে শাওমি এর আলাদা সাব-ব্র‍্যান্ড হিসেবে আত্নপ্রকাশ করে রেডমি ও এন্ট্রি-লেভেল বা মিড-রেঞ্জ বাজেটের ফোন বাজারে নিয়ে আসা শুরু করে।

পোকোঃ পোকো হলো ২০১৮সালে প্রতিষ্ঠিত শাওমি এর সাব-ব্র‍্যান্ড। পোকো এর প্রধান লক্ষ্য হলো সাশ্রয়ী মূল্যে সেরা স্মার্টফোন প্রদান করা। ২০২০ সালের জানুয়ারী মাসে পোকো ইন্ডিয়া স্বাধীন ব্র‍্যান্ড হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ও ২০২১সালের জানুয়ারী মাসে পোকো গ্লোবালও একই পথ অনুসরণ করে। বেশিরভাগ পোকো ফোন সাধারণত রিব্র‍্যান্ডেড রেডমি ফোন হয়ে থাকে।

আপাতদৃষ্টিতে রেডমি ও পোকো ব্র‍্যান্ড দুইটিকে আলাদা দুইটি স্মার্টফোন ব্র‍্যান্ড মনে হলেও এই কোম্পানি দুইটির মধ্যে অনেক বিষয় মিল রয়েছে। রেডমি ও পোকো ফোনগুলোর মধ্যে যেসব মিল রয়েছে সেগুলো হলোঃ

  • উভয় প্রতিষ্ঠান স্মার্টফোন ম্যানুফ্যাকচার করে থাকে
  • উভয় কোম্পানি শাওমি’র সাব-ব্র‍্যান্ড মাত্র
  • উভয় কোম্পানি এন্ট্রি লেভেল ও মিডরেঞ্জ বাজেটের স্মার্টফোন তৈরী করে থাকে
  • উভয় ব্র‍্যান্ডের স্মার্টফোনগুলো বাজেট ফ্রেন্ডলি হয়ে থাকে

👉 শাওমি ও রেডমি ফোনের মধ্যে পার্থক্য জানুন

রেডমি ও পোকো ফোনের মধ্যে পার্থক কী? জানুন এখানে

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

এইতো গেলো ব্র‍্যান্ড হিসেবে রেডমি ও পোকো এর মিলগুলো। এবার চলুন রেডমি ও পোকো এর কিছু পার্থক্য জেনে নেওয়া যাক।

  • দুইটি কোম্পানি আলাদা আলাদা লোকবল দ্বারা পরিচালিত
  • পোকো এর আলাদা প্রিমিয়াম স্মার্টফোন লাইন-আপ রয়েছে
  • উভয় প্রতিষ্ঠান আলাদা ব্যাক্তি দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে

এই গেলো রেডমি ও শাওমি এর মধ্যে সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য সম্পর্কে যত আলাপ। উভয় ব্র‍্যান্ডের ফোনগুলোর মধ্যে বেশ মিল রয়েছে। এখন প্রশ্ন করতে পারেন কোন ব্র‍্যান্ডের ফোন অধিক সেরা।

আসলে রেডমি ও পোকো ব্র‍্যান্ডের ফোনগুলোর মধ্যে কোনটি সের তা নির্ণয় করা বেশ ঝামেলার প্রক্রিয়া। উভয় প্রতিষ্ঠান প্রতিবছর অসংখ্য স্মার্টফোন বাজারে আনে, যার ফলে একজন গ্রাহকের কাছে যেকোনো একটি ব্র‍্যান্ড বেছে নেওয়া বেশ সমস্যার। এই পোস্টে রেডমি ও পোকো এর মধ্যে কোনটি বেটার ব্র‍্যান্ড তা আমরা বলবোনা, এই বিষয়টি ঠিক করবেন একজন ক্রেতা হিসেবে আপনি।

তবে সহজে বুঝতে গেলে পোকো এর ফোনগুলো পারফরম্যান্সকে বেশি গুরুত্ব প্রদান করে ও স্পিড এই ফোনগুলোর প্রধান উদ্দেশ্য। অন্যদিকে রেডমি ব্র‍্যান্ডের ফোনগুলো সাধারণত দামের মধ্যে সবদিক দিয়ে চলনসই পারফরম্যান্স এর পাশাপাশি সকল ফিচার প্রদানের চেষ্টা করে থাকে। আবার অনেক পোকো ফোন তো সরাসরি শাওমি বা রেডমি ব্র‍্যান্ডের ফোনগুলোর সম্পূর্ণ রিব্র্যান্ডেড ভার্সন।

রেডমি ফোনগুলো সাধারণত বাজেটের মধ্যে ডিজাইন, ক্যামেরা, পারফর্মেন্স এই সবগুলোর ব্যালেন্স রাখে। অপরদিকে পোকো ফোনগুলো পারফর্মেন্স কিং হতে চেষ্টা করে। অবশ্য পোকো ফোনের দাম সাধারণত রেডমি ফোনের দামের তুলনায় এভারেজে বেশি হয়ে থাকে।

সহজ ভাষায় বলতে গেলে রেডমি ও পোকো ব্র‍্যান্ডের ফোনগুলোর মধ্যে তেমন আহামরি পার্থক্য নেই। একটি ব্র‍্যান্ড যেখানে দামের মধ্যে সব ফিচার দেওয়ার চেষ্টা করে,  অন্য ব্র‍্যান্ড সেখানে পারফরম্যান্স ও স্পিড এর উপর ভিত্তি করে নির্মিত। তাই আপনার প্রয়োজন বিবেচনা করে তবেই ফোন কিনুন, হোক না সেটা যেকোনো ব্যান্ডের।

👉 ভিডিওঃ স্মার্টফোন কেনার সময় যে বিষয়গুলো খেয়াল করা দরকার

👉 আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করে সাথেই থাকুন। এখানে ক্লিক করে সাবস্ক্রিপশন কনফার্ম করুন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,607 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.