ইউটিউব রেস্ট্রিকটেড মোড কি? এর সুবিধা ও ব্যবহারের নিয়ম

বিশ্বের সর্বাধিক জনপ্রিয় ওয়েবসাইটগুলোর তালিকায় গুগলের পর ইউটিউবের স্থান। যেকেউ ইউটিউবে তাদের ইচ্ছামত যেকোনো কনটেন্ট উপভোগ করতে পারে। তবে তার মানে এই নয় যে সকল ভিডিও যেকোনো ধরণের অডিয়েন্স এর উপযোগী।

অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য প্ল্যাটফর্মটি নিরাপদ রাখতে ম্যাচিউর ও সম্ভাব্য বিপজ্জনক কনটেন্ট ব্লক করার ফিচার রয়েছে ইউটিউবে। ইউটিউব এর এই Restricted Mode ফিচার দ্বারা পিতামাতা বা নেটওয়ার্ক এডমিনগণ অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ক্ষতিকর ভিডিও ও চ্যানেল রেস্ট্রিক্ট অর্থাৎ ব্লক করে রাখতে পারবেন।

চলুন জেনে নেওয়া যাক ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড কি ও কিভাবে ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড ব্যবহার করতে হয় সে সম্পর্কে বিস্তারিত।

ইউটিউব রেস্ট্রিকটেড মোড কি? এর সুবিধা কি?

ইউটিউব রেসট্রিকটেড মোড ফিচারটি ভালোভাবে বুঝতে হলে প্রথমে প্ল্যাটফর্মটিতে কি ধরণের কনটেন্ট আপলোডের অনুমোদন রয়েছে তা জানতে হবে। ইউটিউব চ্যানেল তৈরী করার পর একজন ক্রিয়েটরকে এটি নিশ্চিত করতে হয় যে তার পাবলিশ করা কনটেন্ট নির্দিষ্ট গাইডলাইন মেনে চলে ও ইউটিউব এর সব ধরণের অডিয়েন্সের জন্য উপযোগী। এর মানে হলো কোনো ধরণের “sexual, hateful, বা dangerous content” ইউটিউবে আপলোড করা যায়না। এছাড়া খারাপ ভাষা বা এডাল্ট থিম রয়েছে, এমন ভিডিও প্ল্যাটফর্মটিতে নিষিদ্ধ।

ইউটিউব এর নিয়ম, অর্থাৎ ইউটিউব কমিউনিউটি গাইডলাইন ভঙ্গ করা ভিডিওগুলো ডিমনেটাইজ, ব্লক, এমনকি চিরতরে ডিলিট ও করে দেওয়া হয়ে থাকে। এসব সিদ্ধান্ত ম্যানুয়াল রিভিউ কিংবা এআই স্ক্রিনিং এর মাধ্যমে নেওয়া হয়। কোনো ভিডিও এসব গাইডলাইন মেনে চলার পরও যদি ভিডিওতে সন্দেহজনক বিষয় থাকে, তবুও তা রেস্ট্রিক্টেড মোড এর আওতায় পড়বে।

এসব রেস্ট্রিক্টেড কনটেন্ট শুধুমাত্র সাইন ইন করা প্রাপ্তবয়স্ক ইউটিউব ব্যবহারকারীগণ দেখতে পারেন। রেস্ট্রিক্টেড ভিডিও বেশিরভাগ সময়ে সার্চ করেও পাওয়া যায়না ও সাধারণত রিভিউ এর পর ডিলিট করে দেওয়া হয়। আপনার একাউন্টের রেস্ট্রিক্টেড মোড অন থাকলে এই ধরণের রেস্ট্রিক্টেড ভিডিও আর দেখতে পাবেন না।

বিশেষ করে বাচ্চাদের হাতে ফোন তুলে দেওয়ার আগে এই রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু করলে তা অনাকাঙ্ক্ষিত কোনো কনটেন্ট থেকে সুরক্ষা প্রদান করে। এছাড়া ঘরের বাইরে বা কর্মস্থলে অনুপযুক্ত কনটেন্ট যাতে সামনে চলে না আসে তা নিশ্চিত করা যায় এই ফিচারের মাধ্যমে।

কম্পিউটারে ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু করার নিয়ম

শুধুমাত্র সাইন ইন করা গুগল একাউন্ট ব্যবহার করে রেস্ট্রিক্টেড মোড ডিসবেল করা যায়। যেসব গুগল একাউন্টের জন্ম তারিখ অনুসারে বয়স ১৮ এর কম, সেসব একাউন্টে এই ফিচার অটোমেটিক চালু থাকে। বয়স ১৮বছর না হলে এই ফিচার ডিসেবল করা যায়না।

ভিডিও দেখা ব্লক করার পাশাপাশি উক্ত ভিডিওসমূহতে কমেন্ট করার ফিচার ও বন্ধ থাকে। বয়স ১৮বছর এর বেশি হলে তবে গুগল সেটিংসে প্রবেশ করে এই সেটিংস বন্ধ করা যায়। একাউন্টে সেট করা বয়স ১৮ বছরের বেশি না হলে এই ফিচারটি বন্ধ করা যায়না।

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

যেকোনো কম্পিউটার থেকে ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু বা বন্ধ করতে ব্রাউজার থেকে ইউটিউবে প্রবেশ করুন। এরপর সাইন ইন করা না থাকলে সাইন ইন করে নিন। এরপর ডানদিকের টপ কর্নারে থাকা প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করুন।

এরপর প্রদর্শিত মেন্যু থেকে “Restricted Mode: Off” অপশনে ক্লিক করুন। এরপর “ACTIVATE RESTRICTED MODE” এর পাশে থাকা টোগল অন করে দিলে রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু হয়ে যাবে। একইভাবে এই টোগল অফ করে দিয়ে রেস্ট্রিক্টেড মোড বন্ধ করা যাবে।

উক্ত ব্রাউজারের জন্য স্থায়ীভাবে রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু করতে চাইলে রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু করার পর আবার একই মেন্যুতে প্রবেশ করুন, এরপর “Lock Restricted Mode on this browser” অপশন সিলেক্ট করুন। আবার একইভাবে একই অপশন থেকে “Unlock restricted mode on this browser” অপশন সিলেক্ট করে রেস্ট্রিক্টেড মোড এর লক খোলা যাবে।

মোবাইলে ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু করার নিয়ম

আপনি যদি অ্যান্ড্রয়েড, আইফোন কিংবা আইপ্যাড ডিভাইসে ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড ব্যবহার করতে চান, তাহলে প্রথমে গুগল একাউন্টে সাইন ইন করে দিন। এরপরের প্রক্রিয়া অ্যান্ড্রয়েড ও অ্যাপল ডিভাইসের ক্ষেত্রে আলাদা। চলুন জেনে নেওয়া যাক মোবাইলে ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু করার নিয়ম সম্পর্কে।

অ্যান্ড্রয়েড

  • ইউটিউব অ্যাপে প্রবেশ করুন ও ডানদিকের টপ কর্নারে থাকা প্রোফাইল আইকনে ক্লিক করুন
  • Account মেন্যু হতে Settings অপশন সিলেক্ট করুন
  • Settings মেন্যু থেকে General অপশনে ট্যাপ করুন
  • এরপর Restriced Mode চালু বা বন্ধ করতে Restricted Mode স্লাইডারে ট্যাপ করুন

স্লাইডার যদি গ্রে থাকে, তাহলে বুঝতে হবে রেস্ট্রিক্টেড মোড বন্ধ আছে। আর স্লাইডার যদি ব্লু হয়, তার মানে হলো রেস্ট্রিক্টেড মোড চালু আছে। এই সেটিংস শুধুমাত্র উক্ত ডিভাইসের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে। অর্থাৎ একই একাউন্ট দিয়ে অন্য কোনো ডিভাইসে লগিন করলে রেস্ট্রিক্টেড মোড সেটিংস একই থাকবেনা।

ইউটিউব রেস্ট্রিকটেড মোড কি? এর সুবিধা ও ব্যবহারের নিয়ম

আইফোন / আইপ্যাড

  • আইফোন বা আইপ্যাড এর ইউটিউব অ্যাপে প্রবেশ করে গুগল একাউন্টে সাইন ইন করুন
  • এরপর ডানদিকের টপ কর্নারে থাকা প্রোফাইল আইকনে ট্যাপ করুন
  • Settings সিলেক্ট করে অ্যাপের সেটিংস মেন্যুতে প্রবেশ করুন
  • এরপর Restricted Mode চালু বা বন্ধ করতে অপশনের পাশে থাকা স্লাইডার ব্যবহার করুন

অ্যান্ড্রয়েড এর মত আইফোন বা আইপ্যাড এর ক্ষেত্রেও গ্রে স্লাইডার মানে রেস্ট্রিক্টেড মোড অফ ও ব্লু স্লাইডার মানে রেস্ট্রিক্টেড মোড অন আছে।

ইউটিউব রেস্ট্রিক্টেড মোড মোটামুটি কাজে আসলেও এটি কোনো চিরস্থায়ী সমাধান  নয়। বাচ্চাদের ইউটিউব ব্যবহারের ক্ষেত্রে ইউটিউব কিডস অ্যাপ ব্যবহার করা যেতে পারে। আবার অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে সেটিংসে বয়স ঠিক থাকলে তেমন একটা সমস্য্যা হওয়ার কথা না।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,811 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.