এটিএম বুথ থেকে টাকা তোলার নিয়ম

এটিএম বর্তমানে খুব পরিচিত একটি নাম। প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে ব্যাংকিং সেবাও এখন পুরোপুরি পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। ব্যাংকে লাইনে দাঁড়িয়ে টাকা তোলা বা জমা দেয়ার দিনও ফুরিয়ে আসছে। আর এক্ষেত্রে সবথেকে বড় ভূমিকা রাখছে এটিএম বুথ।

এটিএম বুথ থেকে কীভাবে নিরাপদে টাকা তুলবেন এবং এক্ষেত্রে কী কী বিষয়ে সতর্ক থাকবেন সেটি নিয়েই আমাদের আজকের পোস্ট। ব্যাংক যদি আপনাকে ডেবিট বা এটিএম কার্ড প্রদান করে থাকে তবে আপনি এটিএম ব্যবহার করে ক্যাশ টাকা পেতে পারেন মুহূর্তেই।

এটিএম কী? ATM Booth কি?

চলার পথে বিভিন্ন রাস্তার পাশে বা মোড়ে এটিএম বুথ দেখে থাকবেন। এটিএম বুথ বিভিন্ন ব্যাংকের হতে পারে। নেটওয়ার্কের উপর ভিত্তি করে আপনি যে কোনো এটিএম বুথ টাকা তোলার ক্ষেত্রে ব্যবহার করতে পারেন। এটিএম এর পূর্ণ রূপ অটোমেটেড টেলার মেশিন। যন্ত্রগুলোর মধ্যে নিয়মিত অর্থ রাখা থাকে নিরাপদভাবে। আপনি আপনার এটিএম কার্ড ব্যবহার করে আপনার অর্থ হাতে পেতে পারেন এটিএম মেশিন ব্যবহার করে। এক্ষেত্রে আপনার ব্যাংকে থাকা ব্যালেন্স থেকে টাকা কেটে নিয়ে আপনাকে ক্যাশ টাকা দেবে যন্ত্রটি।

এটিএম যন্ত্র বিভিন্ন রকমের হতে পারে। প্রতিটি এটিএম যন্ত্রেই একটি কীপ্যাড দেখতে পাবেন কার্ডের গোপন পিন ইনপুট করবার জন্য। এছাড়া এটিএম যন্ত্রের ডিসপ্লের পাশেও ইনপুট দিতে বেশ কিছু কী থাকতে পারে। তবে আধুনিক অনেক এটিএম যন্ত্রে টাচ ইনপুট ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ফলে ডিসপ্লেতে টাচ করেই বিভিন্ন অপশন সিলেক্ট করা যায় স্মার্টফোনের মতো করেই। এছাড়া বর্তমানে কিছু হাইব্রিড মেশিনও দেখা যায় যেখানে এটিএম এর সাথে সিআরএম বা ক্যাশ রিসাইক্লার মেশিনও থাকে।  অর্থাৎ একটি মেশিনই টাকা জমা দেয়া ও টাকা নেয়ার কাজে ব্যবহার করা যায়।

কীভাবে টাকা তুলবেন এটিএম মেশিন থেকে

সাধারণত সব ব্যাংকের নিজস্ব এটিএম থাকে। আপনি নিজ ব্যাংকের এটিএম বুথ ছাড়াও অন্য এটিএম থেকেও টাকা তুলতে পারেন। তবে অন্য ব্যাংকের এটিএম থেকে টাকা তুলতে আপনাকে দেখে নিতে হবে সেই এটিএম আপনার কার্ড সাপোর্ট করে কিনা।

বর্তমানে প্রতিটি ব্যাংকই সবথেকে দুটি জনপ্রিয় কার্ড ব্র্যান্ড ভিসামাস্টারকার্ড দিয়ে থাকে। ভিসা ও মাস্টারকার্ড দুটি আলাদা নেটওয়ার্ক। তবে অধিকাংশ এটিএমই জনপ্রিয় এই দুটি নেটওয়ার্ক সাপোর্ট করে থাকে। ভিসা বা মাস্টার কার্ড হলে যে কোনো এটিএম থেকে এই লোগো দেখে আপনার কার্ডটি ব্যবহার করতে পারবেন। তবে এই দুটি জনপ্রিয় নেটওয়ার্ক ছাড়াও আরো বেশ কিছু নেটওয়ার্কের কার্ড ইস্যু করে থাকে বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো। যেমন বাংলাদেশের অভ্যন্তরে নিজস্ব নেটওয়ার্কের এনপিএসবি বা ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ কার্ড আছে। দেশের অভ্যন্তরে এনপিএসবি কার্ডও সব ব্যাংকের এটিএম বুথেই ব্যবহার করা যাবে।

এছাড়াও কিছু ব্যাংক কিউক্যাশ কার্ড দিয়ে থাকে যা নির্দিষ্ট কিছু ব্যাংকের বুথে থাকে। কিউ ক্যাশ লোগো থাকলে সেই বুথে আপনি এই কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন। এছাড়া ইউনিয়ন পে বা অ্যামেক্সের মতো আরও কিছু ব্র্যান্ডের কার্ডও রয়েছে যা শুধুমাত্র এই লোগো আছে এমন এটিএম বুথে কাজ করবে। ডাচ বাংলা ব্যাংকের নিজস্ব নেটওয়ার্ক নেক্সাস তাদের নিজস্ব বুথেই শুধু কাজ করবে। অর্থাৎ আপনাকে আপনার কার্ড ব্র্যান্ড অনুযায়ী এটিএম বুথ ব্যবহার করতে হবে। তবে আপনার নিজস্ব ব্যাংকের বুথ হলে এসব দিকে খেয়াল রাখার প্রয়োজন নেই।

সাধারণত নিজ ব্যাংকের বুথ ব্যবহার করে টাকা তুললে বাড়তি কোনো চার্জ করা হয় না। তবে অন্য ব্যাংকের বুথ ব্যবহার করলে ব্যাংকের পলিসি অনুযায়ী বাড়তি চার্জ কাটা হতে পারে। তাই নিজস্ব ব্যাংকের বুথ ব্যবহার করাই ভালো।

এটিএম বুথ থেকে টাকা তুলতে আপনাকে দুটি বিষয় নিশ্চিত করতে হবে। আপনার সাথে আপনার ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডটি থাকতে হবে। আর আপনাকে অবশ্যই আপনার কার্ডের গোপন ৪ সংখ্যার পিন নম্বরটি জানতে হবে। এই পিন নাম্বার ব্যাংক আপনাকে কার্ড দেবার সময় জানিয়ে দেয় অথবা এটি সেট করার প্রক্রিয়া বলে দেয়। এই পিন নাম্বার পরবর্তীতে এটিএম মেশিন থেকে নিজের ইচ্ছামতো পরিবর্তন করে নেয়া যায়। প্রতিবার এটিএম মেশিনে লেনদেন করতে এই পিন নম্বর প্রবেশ করাতে হবে।

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

এটিএম বুথ থেকে টাকা তোলার নিয়ম

👉 এটিএম বুথ ব্যবহারের ক্ষেত্রে যেসব সতর্কতা মেনে চলা উচিৎ

বুথে প্রবেশ করে নিচের নির্দেশনা অনুসরণ করতে পারেন:

  • প্রথমেই বুথে ঢুকে এটিএম মেশিনের কাছে যান। মেশিনের ডান পাশে কার্ড প্রবেশ করানোর একটি জায়গা পেয়ে যাবেন। সেখানে কার্ড প্রবেশ করানোর নির্দেশনা দেয়া থাকবে।
  • কার্ড প্রবেশ করানোর ক্ষেত্রে কার্ডের সামনের অংশ, অর্থাৎ যেদিকে চিপ দেয়া আছে সেটি উপরের দিকে রাখতে হবে। কার্ডের গায়ে সঠিকভাবে কার্ড প্রবেশ করানোর জন্য দিক চিহ্নিত থাকবে। চিপটি এটিএম এর মধ্যে যেন প্রবেশ করে এমনভাবে কার্ডটি সঠিক নির্দেশনা মেনে প্রবেশ করান।
  • কার্ড সঠিকভাবে প্রবেশ হলে আপনাকে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে হবে। সব ঠিক থাকলে ডিসপ্লেতে আপনাকে আপনার কার্ডের পিন প্রবেশ করতে বলা হবে। কিছু এটিএম আপনাকে এই পর্যায়ে ভাষা নির্ধারণ করার অপশন দিতে পারে। সেটি নির্ধারণ করে দিলেই পিন চাইবে।
  • এবার এটিএম যন্ত্রের কীপ্যাড খুঁজে বের করুন। সেখান থেকে আপনার ৪ সংখ্যার গোপন পিন প্রবেশ করিয়ে এন্টার কী চাপ দিন। অনেক এটিএমে ৪ সংখ্যার পিন দেয়ার সঙ্গে সঙ্গেই পরবর্তী ধাপে চলে যেতে পারে।
  • আপনার পিন সঠিকভাবে প্রবেশ হয়ে গেলে এটিএম ও আপনার ব্যাংকের ফিচার অনুযায়ী বিভিন্ন অপশন দেখতে পাবেন। এটিএম মেশিনের মডেল অনুযায়ী এই অপশনগুলো ডিসপ্লের পাশে বিভিন্ন কী বা টাচ করে সিলেক্ট করা যাবে। এবার টাকা তুলতে আপনাকে উইথড্র অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে। এই অপশনটি বাংলা বা ইংলিশে লেখা থাকতে পারে।
  • উইথড্র অপশনটি সিলেক্ট করবার সঙ্গে সঙ্গে দুই ধরনের স্ক্রিন আপনার সামনে আসতে পারে। বিভিন্ন পরিমাণের টাকার অঙ্ক লেখা দেখতে পারেন এবং শেষে আপনি অন্যান্য পরিমাণ সিলেক্ট করার অপশন পাবেন যার মাধ্যমে নিজের ইচ্ছামতো পরিমাণ কীপ্যাড থেকে প্রবেশ করাতে পারবেন। অথবা সরাসরি কীপ্যাড হতেও আপনাকে টাকার অঙ্ক প্রবেশ করাতে বলতে পারে। আপনার সুবিধামতো টাকার পরিমাণ নির্ধারণ করে এন্টার চাপ দিতে হবে।
  • এবার সে পরিমাণ টাকা আপনার ব্যাংকে থাকলে এবং বাকি সবকিছু ঠিক থাকলে সঙ্গে সঙ্গেই এটিএম থেকে টাকা বের হবার আওয়াজ পাবেন। টাকা বের হওয়ার পূর্বে অনেক এটিএম মেশিন আপনি রশিদ চান কিনা সেটিও জানতে চাইতে পারে। রশিদ চাইলে হ্যাঁ সিলেক্ট করে দিন। এবার এটিএম মেশিন অনুযায়ী আপনার টাকা আগে বের হয়ে যেতে পারে কিংবা অনেক যন্ত্রে কার্ড আগে বের হয়ে পরবর্তীতে টাকা আসে। টাকা বের হলে মেশিন আপনার কাছে জানতে চাইতে পারে যে আপনি আরও লেনদেন করতে চান কিনা। হ্যাঁ দিলে আপনি আবারও পূর্বের স্ক্রিনে ফিরে যাবেন। আর না দিলে আপনার কার্ড বের হয়ে আসবে।
  • টাকা বা কার্ড, যখন যেটা বের হবে সাথে সাথেই হাতে তুলে নিন। সাধারণত একটু দেরি হলেই টাকা বা কার্ড আবার মেশিনের মধ্যে আটকে যাবে।

👉 এটিএম মেশিনে টাকা আটকে গেলে করণীয়

এভাবে সহজেই এটিএম মেশিন থেকে আপনি টাকা তুলে ফেলতে পারবেন। তবে মনে রাখতে হবে বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন মডেলের এটিএম মেশিন থাকায় সবখানে প্রতিটি অপশনে কিছু পরিবর্তন থাকতেই পারে। তবে মূল ব্যাপারটি সবখানে একই রকম। কার্ড ও পিন প্রবেশ করিয়ে আপনাকে টাকা উত্তোলনের অপশন থেকে টাকার পরিমাণ ইনপুট দিয়ে তবেই টাকা উত্তোলন করতে হবে।

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,558 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *