প্রতি দশটির মধ্যে তিনটির বেশি স্মার্টফোনে কোন পাসওয়ার্ড সেট করা নেই!

pswwwwপ্রতি দশটি স্মারটফোনে তিনটির বেশি ডিভাইসেই কোন পাসওয়ার্ড সেট করা নেই, যা ব্যবহারকারীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যেমন ইমেইল, ব্যাংক একাউন্ট, ক্রেডিটকার্ড সহ অন্যান্য ব্যক্তিগত তথ্যে অযাচিত অনুপ্রবেশ প্রদান করতে পারে। ওয়েব নিরাপত্তা বিষয়ক প্রতিষ্ঠান ম্যাকাফি পরিচালিত বিশ্বব্যাপী এক জরিপে এই চিত্র উঠে এসেছে।

যেসব ব্যবহারকারীর ওপর এই পরিসংখ্যান চালানো হয় তাদের ১৫ শতাংশ বলেছেন তারা পাসওয়ার্ড সম্পর্কিত তথ্য ফোন এপ্লিকেশন এবং ওয়েবসাইটে সংরক্ষণ করে রাখেন এবং অর্ধেকের বেশি (৫৫%) লোকজনের পাসওয়ার্ড থাকলেও সেগুলো অন্যের কাছে প্রকাশ করা হয়েছে।

সবমিলিয়ে প্রায় ৩৬ শতাংশ সাক্ষাৎকারদাতা তাদের ফোনে কোন পাসওয়ার্ড না থাকার কথা জানিয়েছেন। এই অরক্ষিত স্মার্টফোন মালিকদের প্রায় ৫৪ শতাংশই মহিলা।

জরিপে অংশ নেয়া ৬২% পুরুষ তাদের পাসওয়ার্ড ওয়েবসাইট এবং এপ্লিকেশনের মধ্যে লুকিয়ে রাখেন, যা প্রকৃতপক্ষে খুব বেশি নিরাপদ বলা যায় না। কেননা এসব সফটওয়্যারে একবার ইউজার আইডি/ পাসওয়ার্ড সেভ করলে তা স্বয়ংক্রিয়ভাবেই কয়েক দিন থেকে কয়েক সপ্তাহ পর্যন্ত সেগুলো “মনে রাখে”।

এসব ফলাফল বের করার পাশাপাশি ম্যাকাফি বেশ কিছু নিরাপত্তামূলক পরামর্শও প্রদান করেছে। সেগুলো হচ্ছেঃ

> সকল ডিভাইসের পাসওয়ার্ড প্রটেকশন চালু রাখা

> শুধু ১২৩… এসব সংখ্যা ব্যবহার না করে অন্যান্য বর্ণ, চিহ্ন এবং বড়হাত ছোটহাতের অক্ষর মিলিয়ে পাসওয়ার্ড তৈরি করা

> এপ্লিকেশন বা ওয়েবসাইটের “রিমেম্বার মি” অপশনে যথাসম্ভব টিক না দেয়া- অর্থাৎ এটি সক্রিয় না করা

> কারও কাছে পাসওয়ার্ড না বলা, এমনকি পরিবারের লোকজনের কাছেও নয় (এটি অবশ্য একটু কঠিন কাজ)

> নিরাপত্তামূলক স্বীকৃত কোন এপ্লিকেশন ব্যবহার করা

এছাড়া স্মার্টফোনের সফটওয়্যার নিয়মিত আপডেট রাখা, পাসওয়ার্ড ইনপুট দেয়ার সময় কেউ যাতে দেখতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখা, টু স্টেপ ভেরিফিকেশন ব্যবহার করা প্রভৃতি ব্যবস্থাও আপনাকে একটি নিরাপদ ডিজিটাল জীবন উপভোগ করতে সহায়ক হবে বলে আশা করি।

আপনার মোবাইল/ কম্পিউটিং ডিভাইসে পাসওয়ার্ড সেট করা আছে তো ???

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,594 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.