আলোর চেয়ে দ্রুত গতিতে ভ্রমণঃ সত্যিই কি সম্ভব?

সভ্যতার শুরুর দিকে চাকা আবিষ্কারের মাধ্যমে আমাদের দ্রুত পথচলার সূচনা হয়। যোগাযোগ ব্যবস্থা দ্রুততর করার লক্ষ্যে জ্বালানী হিসেবে বাষ্প থেকে শুরু তেল, গ্যাস কিছুই বাদ যায়নি। যুগে যুগে অসংখ্য যন্ত্র আবিষ্কৃত হয়েছে এই একই উদ্দেশ্যে। মাটি, পানি, আকাশ- সকল পথেই রয়েছে মানব জাতির চলাচল। কিন্তু সহজাত প্রবৃত্তির অংশ হিসেবেই আমাদের চাওয়ার কোন শেষ নেই। গতির ক্ষেত্রে মানুষের বর্তমান চাওয়া হচ্ছে আলোর চেয়ে দ্রুততা অর্জন করা। কিন্তু এমনটি কি আসলেই সম্ভব? নাকি শুধুমাত্র কল্পবিজ্ঞানের প্লট?

মহাবিজ্ঞানী আইনস্টাইন বলেছিলেন আলোর চেয়ে দ্রুত গতি অর্জন করা সম্ভব নয়। কিন্তু শুধুমাত্র এই কথার উপর ভিত্তি করেই থেমে নেই গবেষণা। কিছু বিজ্ঞানীরা এখনও সেই মহাজাগতিক গতিসীমা অতিক্রমের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন, এমনকি যদি তা পদার্থ বিজ্ঞানের সূত্রের সাথে সাংঘর্ষিক হয় তবুও।

কেউ কেউ গবেষণাগারে আলোর গতি অতিক্রম করতে সক্ষম হয়েছেন বলে দাবীও করেন। তেমনই একটি ব্যাপার ছিল ইউরোপের অপেরা এক্সপেরিমেন্ট। এর বিজ্ঞানীরা এক সেকেন্ডের কিছু ক্ষুদ্রতম অংশব্যাপী আলোকে পেছনে ফেলেছিলেন বলে ঘোষণা দেন। উক্ত খবর অল্প সময়ের জন্য হিগস বসন সংক্রান্ত অর্জনকেও ছায়াচ্ছন্ন করে দেয়!

কিন্তু… দুর্ভাগ্যক্রমে অপেরা’র গবেষণা ফলাফল খুব বেশি দিন উত্তেজনা ছড়াতে পারেনি। অবশেষে একদল বিজ্ঞানী প্রদর্শন করলেন অপেরা ভুল ছিল। আসলে অপেরার জিপিএস সিস্টেমে একটি ত্রুটিপূর্ণ সংযোগ থাকায় নিউট্রিনো কণার গতি পরিমাপ সঠিক হয়নি। সুতরাং আইনস্টাইন এবারও জিতে গেলেন!

সবাই জানেন, কোন বস্তুর স্বাভাবিক গতি বৃদ্ধি করতে তাতে আরেকটু বল প্রয়োগ করতে হয়। এখন পর্যন্ত লার্জ হাড্রন কলাইডার হচ্ছে সবচেয়ে বেশি শক্তিসম্পন্ন পার্টিকেল এক্সেলেরেটর। এটি প্রোটনকে সর্বোচ্চ আলোর কাছাকাছি গতিতে ছুটতে সাহায্য করতে পারে, তবে সমপর্যায়ে নিতে পারেনা। আরও বেশি গতি চাইলে পার্টিকেলের আঘাতও শক্তিশালী হতে হবে এবং এজন্য প্রয়োজন আসীম শক্তি… কিন্তু আমাদের উপলভ্য শক্তি অসীম নয়।

গত একশত বছরেও বেশি সময় ধরে বিজ্ঞানের সমীকরণগুলো অসংখ্যবার পরীক্ষিত এবং পুনঃনিরীক্ষিত হয়েছে। সেসকল ক্ষেত্রে ফলাফল একটাই বের হয়েছে, আর তা হচ্ছে, আলোর গতি হচ্ছে এক অনতিক্রম্য সীমা।

কিন্তু আইনস্টাইন অনন্তকাল ধরে চূড়ান্ত কথাটির ধারক হয়ে থাকবেন, এমনটি অনেকেই মনে করেন না। আর তাইতো কোন কোন বিজ্ঞানীরা এটি ভাবতে পছন্দ করেন যে, আলোর চেয়ে দ্রুতগতিতে ভ্রমণ সম্ভব- যদিও প্রমাণ থেকে অনেক দূরে তাদের অবস্থান।

আপনার কি মনে হয়? একদিন আমরা সত্যিই আলোর দ্রুতি অতিক্রম করতে সক্ষম হব? যদি হই, তাহলে কবে? অথবা, কেন নয়?

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,562 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *