ভার্চুয়াল কার্ড নাকি প্লাস্টিক কার্ড? কোনটি সেরা?

বর্তমান বিশ্বে আর্থিক লেনদেন আগের থেকে অনেক বেশি বৈচিত্র্যময় এবং সহজ হয়ে উঠেছে। যার ফলে ভার্চুয়াল এবং ফিজিক্যাল (সাধারণত প্লাস্টিক) কার্ড এর তাৎপর্য ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই দুইটি লেনদেনের পদ্ধতি নিরাপত্তা সহ বিভিন্ন সুবিধার ক্ষেত্রে আলাদা হয়ে থাকে। এক একজন মানুষের এক একরকম চাহিদা থাকায় তাদের কাছে দুটি অর্থ প্রদান পদ্ধতিই অনেক গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। আমাদের আজকের এই আর্টিকেলে আমরা ভার্চুয়াল কার্ড এবং ফিজিক্যাল কার্ডের মধ্যে সাধারণ কিছু পার্থক্য এবং কোনটি ব্যবহার করা সুবিধাজনক সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। 

ভার্চুয়াল কার্ড কি?

ভার্চুয়াল কার্ডের নাম থেকেই এই কার্ড সম্পর্কে একটি ছোট ধারণা পাওয়া যায়। ভার্চুয়াল কার্ড হলো ডিজিটাল পেমেন্ট কার্ড যার কোন ভৌত রূপ নেই। এটি শুধুমাত্র একটি ইলেকট্রনিক বিন্যাসে বিদ্যমান রয়েছে এবং অনলাইন এবং অ্যাপ ভিত্তিক লেনদেনের ক্ষেত্রে এই কার্ড ব্যবহার করা যেতে পারে।

ভার্চুয়াল কার্ড গুলো সাধারণত একটি ফিজিক্যাল কার্ড বা ব্যাংক একাউন্ট এর সাথে সংযুক্ত থাকে, তবে এটি সব সময় একটি ভার্চুয়াল কার্ড নাম্বার দিয়ে ডিজিটাল ভাবে উপস্থাপন করা হয়। ভার্চুয়াল কার্ড ইস্যু করার সময় আলাদা আলাদা কার্ড ডিটেইলসের সাথে ইস্যু হয়ে থাকে। এসকল ভার্চুয়াল কার্ডের মধ্যে কার্ড নাম্বার, মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ এবং সিকিউরিটি কোড থাকে।

ভার্চুয়াল কার্ডের সুবিধা

ভার্চুয়াল কার্ড ব্যবহারের বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে অন্যতম কিছু সুবিধা হলো –

নিরাপত্তা এবং সুরক্ষা

যেহেতু ভার্চুয়াল কার্ড ফিজিক্যাল ভাবে উপস্থিত থাকে না তাই সেগুলো চুরি কিংবা হারিয়ে যাওয়া সম্ভাবনা নেই। একটি ভার্চুয়াল কার্ডে ডাটা সাধারণত একটি সীমিত উদ্দেশ্যে বহন করা হয়ে থাকে যার ফলে এটি অরিজিনাল ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এবং ক্রেডিট কার্ড নাম্বার প্রাইভেট রাখতে সহায়তা করে। ভার্চুয়াল কার্ডগুলো ১০০% সুরক্ষিত না হলেও ডেটা লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে হুমকি একটি নির্দিষ্ট কার্ডের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকে। কোন ব্যবহারকারী একটি ভার্চুয়াল কার্ড’কে সহজেই বাতিল করতে পারবে এবং এর ফলে পরিকল্পিত অর্থ প্রদানে কোন বাঁধার সম্মুখীন হতে হবে না। 

সুবিধা এবং ব্যবহার সহজ 

ভার্চুয়াল কার্ড অনলাইন শপিং এবং অন্যান্য ডিজিটাল লেনদেনের জন্য সুবিধাজনক। ভার্চুয়াল কার্ডগুলো অনলাইন ব্যাংকিং ওয়েবসাইট এবং অ্যাপের মাধ্যমে দ্রুত তৈরি এবং পরিচালনা করা সম্ভব হয়। এগুলো আপনার মোবাইল ডিভাইসে একটি ডিজিটাল ওয়ালেটেও রাখা যেতে পারে। ভার্চুয়াল কার্ড একটি স্মার্ট কস্ট ম্যানেজমেন্ট প্লাটফর্ম এর সাথে যুক্ত করে একাউন্টিং অটোমেশন এর মাধ্যমে কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে থাকে। ভার্চুয়াল কার্ডের দ্বারা প্রদত্ত রিয়াল টাইম ভিজুয়ালাইজেশনের দ্বারা কোম্পানিগুলো যেকোনো মুহূর্তে সেরা সিদ্ধান্ত নেওয়ার সুযোগ পেয়ে থাকে। 

এক্সেসযোগ্যতা এবং নিয়ন্ত্রণ 

ভার্চুয়াল কার্ড অনলাইন প্লাটফর্ম এর মাধ্যমে ২৪ ঘন্টা এক্সেস যোগ্য। এটি যেকোনো আন্তর্জাতিক লেনদেনের জন্য উপযুক্ত একটি মাধ্যম। তাছাড়া এটিতে কোনো ধরনের সমস্যা দেখা দিলে সহজেই প্রতিস্থাপন করা সম্ভব।

👉 এটিএম কার্ড কি? এর সুবিধা-অসুবিধা ও বিস্তারিত জানুন

card payment

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

ভার্চুয়াল কার্ডের অসুবিধা

ভার্চুয়াল কার্ডের যেমন সুবিধা রয়েছে তেমনি এর কিছু অসুবিধাও রয়েছে। ভার্চুয়াল কার্ডের প্রধান কিছু অসুবিধা গুলো হলো-

সীমিত গ্রহণযোগ্যতা 

ফিজিক্যাল কার্ডের মত সমস্ত মার্চেন্ট এবং ওয়েবসাইট ভার্চুয়াল কার্ড গ্রহণ করেনা। যার ফলে এদের ব্যবহারযোগ্যতা কিছু ক্ষেত্রে কমে যায়। এই কারণে আপনি যেই কোম্পানির সাথে লেনদেন করতে চান তার গ্রহণযোগ্যতা নীতিগুলো চেক করে নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

জিরো ফিজিকাল প্রেজেন্স

কিছু ব্যবহারকারীর এখনও ব্যক্তিগত লেনদেনের জন্য বা ব্যাকআপ বিকল্প হিসেবে একটি ফিজিক্যাল কার্ডের প্রয়োজন হতে পারে। ভার্চুয়াল কার্ডে প্রথাগত কার্ড এর বাস্তব মানের অভাব রয়েছে যা কিছু ব্যক্তিকে বিরক্তি প্রদান করতে পারে।

ফিজিকাল কার্ড কি?

ফিজিকাল কার্ড হলো প্রথাগত পেমেন্ট কার্ড যা সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এগুলো সাধারণত প্লাস্টিক, ধাতু বা অন্যান্য টেকসই উপকরণ দিয়ে তৈরি করা হয়। ফিজিক্যাল কার্ড সাধারণত পয়েন্ট অফ সেল টার্মিনাল এবং এটিএম এ লেনদেনের জন্য ব্যবহার করা হয়। 

ফিজিকাল কার্ডের সুবিধা 

আপনার ব্যবসায়িক কিংবা ব্যক্তিগত কাজের ক্ষেত্রে ফিজিকাল কার্ডের বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু সুবিধা হলো –

ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা

বেশিরভাগ জায়গা যেমন ইনস্টোর কিংবা অনলাইন সব ক্ষেত্রেই ফিজিকাল কার্ড গ্রহণ করা হয়ে থাকে। ফিজিকাল কার্ড দোকানে কেনাকাটা, ভ্রমণ এবং আরো অনেক লেনদেনের জন্য অর্থ প্রদানের একটি চমৎকার মাধ্যম।

স্পর্শকাতরতা

ফিজিকাল কার্ডগুলো অর্থ প্রদানের পদ্ধতি দেখতে এবং অনুভব করতে সক্ষম করে বিধায় এটি মানুষের কাছে বিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করে। 👉 ক্রেডিট কার্ডের সুবিধা ও অসুবিধা জানুন

অনেক আগে থেকে প্রচলিত

অনেক লোক শুধুমাত্র ফিজিকাল কার্ড ব্যবহার করতে অভ্যস্ত। কেননা এই প্রচলিত কার্ডের ব্যবহার অনেক বছর ধরে চলে আসছে। এ কারণে প্রায় সব ধরনের ব্যবসার ক্ষেত্রেই ফিজিকাল কার্ড পছন্দের তালিকায় অনেক উপরের দিকে থাকে।

ফিজিকাল কার্ডের কিছু অসুবিধা

ফিজিকাল কার্ডের যেমন কিছু সুবিধা রয়েছে তেমনি এর কিছু অসুবিধাও রয়েছে। ফিজিকাল কার্ডের কিছু অসুবিধা গুলো হলো –

নিরাপত্তা ঝুঁকি

আমরা সবাই জানি ফিজিক্যাল কার্ড হারিয়ে বা চুরি হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই ফিজিকাল কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে অল্প হলেও নিরাপত্তা ঝুঁকি থেকেই যায়। আপনি যদি অবিলম্বে এ ব্যাপারে রিপোর্ট না করে থাকেন তাহলে অননুমোদিত লেনদেন ঘটে যেতে পারে। চিপ কার্ড এবং কন্ট্যাক্টলেস প্রযুক্তি ফিজিকাল কার্ডের নিরাপত্তা আস্তে আস্তে উন্নত করলেও সম্পূর্ণ ঝুঁকি দূর করা সম্ভব হয় না।

বাড়তি কাজ

ফিজিক্যাল কার্ডগুলোর জন্য যথাযথ স্টোরেজের প্রয়োজন হয় এবং এক্ষেত্রে আপনার কাছে যত বেশি কার্ড থাকবে তত বেশি অসুবিধা হতে পারে। এছাড়া সময়ের সাথে সাথে এটি প্রতিস্থাপন করার প্রয়োজন পড়তে পারে।

ধীর প্রক্রিয়া

ফিজিক্যাল কার্ড পাওয়ার জন্য একটি মোটামুটি দীর্ঘ প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে যেতে হতে পারে। এর ফলে মূল্যবান সময় নষ্ট হওয়ার পাশাপাশি বিভিন্ন সুযোগের পথে বাধা চলে আসতে পারে। 👉 ভিসা কার্ড ও মাস্টার কার্ডের পার্থক্য কী?

কোনটি বেশি ভালোঃ ভার্চুয়াল নাকি ফিজিকাল কার্ড?

এই প্রশ্নের উত্তর আসলে ব্যবহারভেদে ভিন্ন রকম হয়ে থাকে। আপনি কেমন ধরনের ব্যবহারের জন্য কার্ড নিতে চান তার উপর ভিত্তি করে কোনটি ভালো সেটি নির্ধারণ করা সম্ভব। তবে আপনি যেসকল জিনিসের উপর খেয়াল রাখতে পারেন তা হলো –

ব্যবসায়িক প্রয়োজনঃ আপনি আপনার কার্ড কখন এবং কিভাবে ব্যবহার করতে চান? আপনার কি অনলাইন শপিং এর জন্য কার্ড প্রয়োজন নাকি ঘুরতে যাওয়ার জন্য প্রয়োজন?

সুবিধা বনাম নিরাপত্তাঃ ভার্চুয়াল কার্ডের নিরাপত্তা এবং ফিজিক্যাল কার্ডের সুবিধার মধ্যে আলাদা একটি ট্রেড অফ রয়েছে। এক্ষেত্রে আপনার কোনটি প্রয়োজন?

মার্চেন্ট গ্রহণযোগ্যতাঃ আপনি যে ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি খরচ করবেন সেখানে কোন ধরনের কার্ড গ্রহণ করা হয় এই প্রশ্নের উত্তর যদি আপনি জানতে পারেন তাহলে আপনার জন্য কোন কার্ড উপযুক্ত হবে সেটি আপনি সহজেই বুঝে যাবেন।

ফিজিক্যাল কার্ড এবং ভার্চুয়াল কার্ড দুটি পেমেন্ট পদ্ধতিই বর্তমান সময়ে খুবই জনপ্রিয়। তবে আপনার ক্ষেত্রে কোনটি প্রয়োজন আশা করি আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ে সেটি আপনি সহজেই বুঝতে পেরেছেন। ফিজিকাল কার্ড এবং ভার্চুয়াল কার্ড সম্পর্কে আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি আপনাদের কাছে কেমন লেগেছে তা আমাদের কমেন্ট এর মাধ্যমে জানিয়ে দিন।

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,585 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *