হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো মেসেজ যেভাবে মুছে ফেলবেন চিরতরে!

‘ম্যান ইজ মরটাল’– মানুষ মাত্রই ভুল করে। এখানেও একটা ভুল আছে। আর এই ভুলটা আমি ইচ্ছাকৃতই করেছি। কিন্তু সব সময় তো আর ইচ্ছাকৃত ভুল হয়না। আর সেসব ভুলের মাশুল দিতে অনেক সময় চরম মূল্য দিতে হয়। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে আপনি একটা সুযোগ পেলেও পেয়ে যেতে পারেন। এই যেমন হোয়াটসঅ্যাপের কথাই ধরুন! অনেক সময় অনেকে ভুলভাল মেসেজ পাঠিয়ে নিজের জন্য বিব্রতকর পরিস্থিতি ডেকে আনে। মনে করুন আপনি কাউকে একটা ফোন নম্বর দিতে গিয়ে একটা ডিজিট ভুল করে ফেললেন। তখন আবার সেটা শোধরাতে গেলে দুই লাইন অতিরিক্ত লিখতে হবে। কিন্তু আপনি যদি হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন, তাহলে এক্ষেত্রে একটু সুবিধা পেতেই পারেন। অর্থাৎ, ঐ ভুল মেসেজটি মুছে ফেলতে পারেন।

হ্যাঁ, হোয়াটসঅ্যাপে এই ফিচারটি সম্প্রতি চালু হয়েছে। ফলে আপনি এখন থেকে আপনার সেন্ড করা মেসেজ উভয় পক্ষের দিক থেকেই মুছে ফেলতে পারবেন। অর্থাৎ, মেসেজটি আপনার এবং অপর প্রান্তের ব্যবহারকারীর ডিভাইস থেকে মুছে যাবে।

এই ফিচারটি ব্যবহার করার জন্য উভয় প্রান্তের ব্যবহারকারীকেই লেটেস্ট ভার্সনের হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে হবে। এন্ড্রয়েড, আইওএস এবং উইন্ডোজ ফোন- সকল প্ল্যাটফর্মের ব্যবহারকারীদের জন্যই সেন্ডকৃত মেসেজ মুছে ফেলার সুবিধাটি উপলভ্য হবে।

কীভাবে হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ মুছবেন?

খুব সহজ। আপনি অন্য কোনো ব্যবহারকারীকে কিংবা গ্রুপে পাঠানো যে মেসেজটি মুছতে চান, সেটির ওপর আঙুল রেখে (ক্লিক করে রেখে/ট্যাপ করে রেখে) কয়েক সেকেন্ড অপেক্ষা করুন। মেসেজটি সিলেক্ট হবে। তখন আপনি আরও একাধিক মেসেজ এভাবে সিলেক্ট করতে পারবেন। সিলেক্ট করার পর স্ক্রিনের উপরের দিকে থাকা ডিলিট অপশন ক্লিক করে ‘ডিলিট ফর এভরিওয়ান’ অপশন বাছাই করে মেসেজটি/মেসেজগুলো মুছে ফেলুন।

তবে এখানে মনে রাখতে হবে, আপনি মেসেজ মুছে ফেলার আগেই ঐ প্রান্তের ব্যবহারকারী মেসেজগুলো দেখে ফেলতে পারে। এছাড়া মেসেজ মুছে ফেললেও ঐ মেসেজটির স্থানে এরকম লেখা আসবে ‘এই মেসেজটি মুছে ফেলা হয়েছে’। সাথে মেসেজ সেন্ড করার টাইমও লেখা থাকবে। সুতরাং আপনি মেসেজ মুছে ফেলতে পারবেন ঠিকই, কিন্তু সেখানে যে একটি মেসেজ ছিল, সেই চিহ্ন থেকেই যাবে।

সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, একটি মেসেজ পাঠানোর ৭ মিনিট পর্যন্ত মেসেজটি উভয় প্রান্ত থেকে মুছে ফেলা যাবে। অর্থাৎ, ৭ মিনিটের বেশি পুরাতন কোনো মেসেজ হোয়াটসঅ্যাপ থেকে মুছে ফেলা যাবেনা। তবে আপনি আপনার নিজের ফোন থেকে মেসেজটি মুছতে পারবেন, যদিও অপর প্রান্তের ব্যবহারকারীর ফোনে মেসেজটি থাকবে। আর উভয় দিক থেকে মেসেজ মোছার জন্য উভয় ব্যবহারকারীর ফোনই অনলাইনে সংযুক্ত থাকতে হবে। কেননা, তা না হলে ফোন কীভাবে বুঝবে যে কোন মেসেজটি মুছতে হবে, তাইনা? এজন্যই কবি বলেছেন, ‘ভাবিয়া করিও কাজ, করিয়া ভাবিও না’।

কবি যাই বলুন, প্রথমেই বলেছি, মানুষ মাত্রই ভুল হয়, যা ইংরেজিতে বলে ‘to err is human’। সুতরাং মেসেজ সেন্ড করার আগে একবার পড়ে দেখুন যে আপনি আসলে কী লিখেছেন।

বোনাসঃ জিমেইলে পাঠানো ইমেইল আবার ফিরিয়ে আনুন বা আনডু/প্রত্যাহার করে নিন সহজেই!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 2,967 other subscribers

Comments