দেখুনঃ বিশ্বের সবচেয়ে বড় থ্রিডি প্রিন্টার যা বাড়ি নির্মাণ করবে

big delta

এই বছরের শুরুতে আমাদের একটি পোস্টে হয়ত দেখে থাকবেন, ত্রিমাত্রিক মুদ্রণ যন্ত্র বা থ্রিডি প্রিন্টার এর সাহায্য নিয়ে এক শিশুর হার্ট অপারেশন করা হয়। শুনতে একটু খটকা লাগল তাইনা? প্রিন্টারের সাহায্যে অপারেশন কীভাবে সম্ভব? তাহলে শুনুন, চিকিৎসকরা প্রথমে শিশুটির হার্ট স্ক্যান করে তার একটি নকল কপি তৈরি করেন এবং তার উপর অপারেশনটি ডিজাইন করেন। এরপর শিশুর হার্ট নির্ভুল ভাবে অপারেশন করতে সফলতা লাভ করেন।

এর পর আসা যাক ক্যন্সার আক্রান্ত এক ব্যক্তির পাঁজরের হাড় নষ্ট হয়ে যায়। চিকিৎসকরা তার জন্য ইলাস্ট্রেটর এর মত সফটওয়্যার দিয়ে একটি নকল ইস্পাতের হাড় ডিজাইন করেন এবং তা ত্রিমাত্রিক প্রিন্টারে প্রিন্ট করে বসিয়ে দেয়া হয় রোগীর পাঁজরে।

আর এবার শুধু চিকিৎসা বিজ্ঞানেই নয় মানুষের গৃহ সমস্যা সমাধানেও ব্যবহার করা হবে এই ত্রিমারিক মুদ্রণ প্রযুক্তি। ইতালির রিটিতে গত শুক্রবার একদল ডিজাইনার WASP (World’s Advanced Saving Project) পৃথিবীর  সর্ববৃহৎ থ্রিডি প্রিন্টার উন্মোচন করেন। এর নাম বিগ ডেল্টা যা আকারে ৪০ ফুট লম্বা এবং এর ২০ ফুট ব্যাস।

বিগ ডেলটা থ্রিডি প্রিন্টার যথেষ্ট বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী। এটি মাত্র ১০০ ওয়াট বিদ্যুৎ খরচ করে বাড়ি তৈরি করতে পারবে। এ কাজে যন্ত্রটি সচরাচর উপলভ্য কাঁচামাল ব্যবহার করবে। বৃহৎ আকৃতির কারনে বিগ ডেল্টা খুব সহজে এবং দ্রুততার সাথে বাড়ি তৈরি করতে পারবে।

এটি মূলত দুর্যোগপ্রবণ/দুর্যোগ আক্রান্ত এলাকাতে গৃহহীন মানুষের জন্য ঘর তৈরি করবে এবং এতে খরচও কম হবে। যন্ত্রটির নির্মাতা কোম্পানি কর্তৃক প্রদত্ত তথ্য অনুসারে আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে সারা পৃথিবীর প্রায় ৪ বিলিয়ন মানুষের আবাসনের ব্যাপারে সাহায্য করবে বিগ ডেল্টা।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 5,052 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.