শাওমি কি নিজেই আনঅফিসিয়াল ফোন ব্লক করে দেবে?

বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এখন পর্যন্ত অফিসিয়ালভাবে ফোন বিক্রি শুরু করেনি শাওমি। আপনি হয়ত জেনে অবাক হবেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও শাওমি অফিসিয়ালভাবে ফোন বিক্রি করেনা। কিন্তু তার পরেও সেসব দেশে বিভিন্ন ফোন বিক্রেতা আনঅফিসিয়ালভাবে শাওমি ফোন বিক্রি করে থাকেন। এতদিন পর্যন্ত একটা বড় অংশের শাওমি ব্যবহারকারীই কোনো না কোনো সময় একটা আনঅফিসিয়াল শাওমি ডিভাইস ব্যবহার করেছেন। 

আবার কেউ কেউ হয়ত জীবনেও কোনোদিন অফিসিয়াল শাওমি ফোন কেনেননি। হতে পারে তাদের দেশে শাওমি আদৌ অফিসিয়ালভাবে যায়নি, অথবা নির্দিষ্ট কোনো মডেল হয়ত কোনো কোনো দেশে লঞ্চ করেনি শাওমি। তাই সব মিলিয়ে শাওমি যেসব দেশে অফিসিয়ালভাবে ফোন বিক্রি করে সেখানেও হয়ত কিছু কিছু শাওমি ফোন মডেল বৈধভাবে বিক্রি হয়না।

কিন্তু তাই বলে কি কোনোদিন শুনেছেন যে একটা আনঅফিসিয়াল শাওমি ফোন অন্য দেশের জন্য তৈরি হওয়ার কারণে ব্লক হয়ে যাচ্ছে? ফোনটি চালুই হচ্ছেনা, এমনটি কি কখনো শুনেছেন? যদি না শুনে থাকেন তাহলে আজ শুনবেন।

কিউবা, ইরান, সিরিয়া, উত্তর কোরিয়া সুদান এবং ক্রিমিয়া – এই দেশগুলো থেকে সম্প্রতি বেশ কিছু ফোন ব্যবহারকারী জানিয়েছেন যে তাদের শাওমি ফোন স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্লক হয়ে যাচ্ছে। ফোন আর ব্যবহারই করা যাচ্ছেনা। উল্লিখিত এসব দেশে শাওমি অফিসিয়ালভাবে ফোন রপ্তানি করেনা। তাদের পলিসিতে এমনটিই বলা আছে। 

কিন্তু এতদিন ওসব দেশে আনঅফিসিয়ালভাবে আমদানি করা শাওমি ফোন দিব্যি ব্যবহার করা যেত। আর শাওমির পলিসিতে এখন পর্যন্ত এরকম কোনো লেখা দেখা যায়নি যে তারা আনঅফিসিয়াল ফোন ব্লক করে দেবে।

তবুও এখন শাওমি নিজেই উপরোক্ত দেশগুলোতে একটিভ করা শাওমি ফোন ব্লক করে দিচ্ছে। ফোনগুলো আর চালু হচ্ছেনা। ব্ল্যাক স্ক্রিনে একটি সতর্কতামূলক বার্তা উঠে থাকছে যার সারমর্ম হল, “আপনি যে দেশে বা অঞ্চলে এই পণ্যটি সক্রিয় করার চেষ্টা করছেন সেখানে শাওমি ফোন বিক্রি বা সরবরাহ করা শাওমির নীতিমালা অনুযায়ী অনুমোদিত নয়। আরো তথ্যের জন্য অনুগ্রহ করে বিক্রেতার সাথে যোগাযোগ করুন।”

রেডিট থেকে প্রাপ্ত ছবি

বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া গ্রুপ এবং সংবাদপত্রের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, কয়েক মাস ধরেই এরকম ঘটনা ঘটছিল। কিন্তু গত কয়েক সপ্তাহে শাওমির এই ব্লক করে দেয়ার ঘটনা অনেক বেশি ঘটতে শোনা যাচ্ছে।

আরো জানুনঃ শাওমি মি একাউন্ট কি? Mi Account এর সুবিধা কি?

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, কিছুদিন ব্যবহার করার পর উল্লিখিত অঞ্চলে সক্রিয় শাওমি ফোনগুলো নিজ থেকেই লক হয়ে যাচ্ছে। শাওমি নিজেই তাদের সার্ভার থেকে ফোনগুলো অচল করে দিচ্ছে।

আরো জানুনঃ হারানো এন্ড্রয়েড ফোন খুঁজে পাওয়ার সহজ উপায়

তবে, কিছু কিছু ব্যবহারকারী দাবি করছেন, যদি ডিভাইসগুলো প্রথমবার চালু করার সময় তাদের অফিসিয়াল রিজিওন সিলেক্ট করা হত তাহলে সেগুলো আর বন্ধ হতনা। অর্থাৎ, ফোনগুলো যে দেশের জন্য তৈরি করা হয়েছে সেই দেশকেই যদি একটিভেট করার সময় সিলেক্ট করা হয় তাহলে ফোনগুলো চলতে থাকত। যদিও এই দাবি নিরপেক্ষভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি। এছাড়া সেক্ষেত্রে ফোন ব্যবহারের সময়ও কিছু উটকো সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় অনেক সময়।

তবে অনেক ব্যবহারকারী জানাচ্ছেন যে, কাস্টম রম ইনস্টল করলে সেই শাওমি ফোনগুলো আর ব্লক হয়ে যাচ্ছেনা। অর্থাৎ যারা কাস্টম রম চালাচ্ছেন তাদের শাওমি ফোন আনঅফিসিয়াল হলেও দিব্যি চলছে। এখন কথা হচ্ছে কতজনই বা কাস্টম রম ইনস্টল করতে পারে। কে জানে, ফোন বিক্রেতারা হয়ত এরও একটা উপায় বের করে ফেলবে!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 6,006 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.