অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হচ্ছে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৮?

স্যামসাংয়ের সাম্প্রতিক ফোনগুলো বেশ সুন্দর হচ্ছে। নিজস্ব ধাঁচের ডিজাইন, স্পেসিফিকেশন সবই আকর্ষণীয়। ফ্ল্যাগশিপ ফোনের কেসিংয়ে কাঁচের ব্যবহার স্থায়িত্বের দিক থেকে কিছুটা প্রশ্নের উদ্রেক করে বটে। কিন্তু ইউটিউবার JerryRifEverything (যার মূল নাম জ্যাক) তার স্থায়িত্ব পরীক্ষার জন্য এবারে গ্যালাক্সি এস৮ বেছে নিয়েছিলেন, যেখানে ফোনটিকে অনেক প্রতিকূল পরিবেশের মধ্যে টিকে থাকতে দেখা গেছে এবং শেষ পর্যন্ত অগ্নিপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে বলেই মনে হচ্ছে।
 

এসব ডিউরেবিলিটি টেস্টে ফোনে দাগ পড়ানো, দৃঢ়তা পরীক্ষা, এমনকি অনেক সময় আগুনে পোড়ানোও হয়ে থাকে। ভিডিও দেখে যা বোঝা যাচ্ছে, গ্যালাক্সি এস৮ এ সকল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পেরেছে।

গ্যালাক্সি এস৮ এর ব্যাটারি নিয়ে ইউটিউব চ্যানেল ‘What’s Inside?’ এর একটি পরীক্ষায় দেখা যায়, ফোনটির ব্যাটারিতে চূড়ান্ত প্রতিকূল অবস্থায় শর্ট সার্কিট সৃষ্টি করার পরেও অগ্নি পরীক্ষার সময় এটা বিস্ফোরিত হয়নি, বরং সামান্য একটু ধোঁয়া বেরুতে দেখা গেছে, যা স্যামসাং এবং স্যামসাং ফোন ব্যবহারকারীদের জন্য বিরাট সুখবর। এমনকি একটি ছুরি দিয়ে বার বার ব্যাটারির উপর গর্ত সৃষ্টি করানোর ফলেও একটুও আগুনের সৃষ্টি হতে দেখা যায়নি, যেখানে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির ধর্মই হচ্ছে এমন অবস্থায় আগুনের সৃষ্টি হওয়া!
 

ইউটিউবে আরও কিছু কঠিন পরীক্ষার সম্মুখীন হয়েছে গ্যালাক্সি এস৮, যার সবগুলোতেই লেটার মার্কস পেয়ে পাশ করেছে ডিভাইসটি। এসব পরীক্ষার মধ্যে আছে হাতুড়ি দিয়ে ফোনকে আঘাত করা, উঁচু থেকে ফেলে দেয়া, ফুটন্ত পানিতে ফেলা দেয়া প্রভৃতি।

আমরা জানি, ইন্টারনেটের সকল কিছু বিশ্বাসযোগ্য নয়। তারপরও আশা করা যাচ্ছে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৮ সকল স্যামসাং ভক্তের আশা পূরণে সক্ষম হবে। এই পোস্টের মধ্যে দুটি ভিডিও এমবেড করে দেয়া হলো। আপনি সেগুলো দেখে আপনার মতামত জানাতে পারেন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,418 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.