ব্যবহারকারীদের গোপনীয়তা বিনষ্ট করবে “ফেসবুক হোম”?

fb home ..সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুক সম্প্রতি এন্ড্রয়েড স্মার্টফোনের জন্য সাইটটির লঞ্চার এপ্লিকেশন “হোম” উন্মুক্ত করেছে। এটি মোবাইলের মূল কার্যক্রমের সাথে ফেসবুক সেবাসমূহকে আরও গভীরভাবে একীভূত করে তুলবে। “হোম” সফটওয়্যার সক্রিয় থাকলে আপনার হ্যান্ডসেটটি কার্যত “ফেসবুক ফোন” হিসেবে আবির্ভূত হবে। কিন্তু সফটওয়্যারটি প্রকাশ করার মাত্র ১ দিনের মধ্যেই বিভিন্ন প্রযুক্তি বিশ্লেষক এবং শিল্প পর্যবেক্ষকরা এটি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তাদের মতে “ফেসবুক হোম” ব্যবহারকারীদের গোপনীয়তা মারাত্নকভাবে বিনষ্ট করতে পারে।

এপ্লিকেশনটি সম্পর্কে মন্তব্যকারীদের বেশিরভাগই বলছেন, “হোম” ফেসবুক গ্রাহকদের যেসব তথ্য সংগ্রহ করবে তা ব্যক্তিগত জীবনকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলতে পারে। সফটওয়্যারটির অন্যতম শ্লোগান হচ্ছে এটি এপের বদলে লোকজনকেই মোবাইল অভিজ্ঞতার কেন্দ্রে স্থান দিয়ে থাকে। কিন্তু এর বিপরীতে ফেসবুকের বিরুদ্ধে বিজ্ঞাপন বিক্রির নতুন এক কৌশলের অভিযোগ উঠেছে।

ক্যালিফোর্নিয়ায় আয়োজিত এক ইভেন্টে সামাজিক যোগাযোগের সাইটটির প্রতিষ্ঠাতা সিইও মার্ক জুকারবার্গ হোম এপ্লিকেশন অবমুক্ত করেন। সফটওয়্যারটিকে এপ-কেন্দ্রীক কম্পিউটিং বিশ্বে নতুন ধারণা হিসেবে উপস্থাপন করেন তিনি। একই অনুষ্ঠানে এইচটিসির সাথে যৌথভাবে “ফেসবুকীয়” “ফার্স্ট” স্মার্টফোন বাজারে আনারও ঘোষণা দেন মিঃ জুকারবার্গ।

শুধুমাত্র (আপাতত) এন্ড্রয়েড ৪x ভার্সন সমর্থিত ফেসবুক হোম ইনস্টল করার পরে এটি আপনার স্মার্টফোনের মূল ডিসপ্লে এবং লক স্ক্রিনের দখল নিয়ে নেবে। এপ্লিকেশনটি সক্রিয় করলে ফোনের হোম স্ক্রিনে ফেসবুক বন্ধুদের লাইভ ফিড প্রদর্শিত হবে। আর ডিভাইস লক মুডেও আইডল স্ক্রিনে ফেসবুক ফিড দেখতে পাবেন। এক্ষেত্রে সবসময়ই অনলাইনে সংযুক্ত থাকতে হবে, যা ডেটা এবং ব্যাটারি চার্জ- দুটোকেই প্রভাবিত করবে। আর রাস্তাঘাটে চলাচলের সময় অথবা সেটটি কিছুক্ষনের জন্য কোথাও রাখলে (হতে পারে চার্জিংয়ে) হঠাত মোবাইল স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে যে কেউ আপনার ফেসবুক ফিড দেখতে পারবে (কেননা এর কনটেন্ট ফোনের লক স্ক্রিনেও চলে আসবে)।

ফেসবুক হোম চালু রাখলে কোম্পানিটি আপনার প্রতি পদক্ষেপ অনুসরন করতে পারবে। এক্ষেত্রে হ্যান্ডসেটের জিপিএস এবং অন্যান্য সেন্সর বা ডেটা কালেক্টর ব্যবহৃত হতে পারে।

ক্যামব্রিজ ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ফরেস্টার রিসার্সের বিশ্লেষক চার্লস গ্লোভিন ফেসবুকের সাম্প্রতিক এসব কর্মকান্ড সম্পর্কে বলেন, “প্রকৃতপক্ষে ব্যবহারকারীদের নিকট ফেসবুক যতটা গুরুত্বপূর্ণ, কোম্পানিটির ধারণা (সেবাটির গুরুত্ব) তার চেয়েও অনেক বেশি”; তিনি আরও বলেন, বেশিরভাগ লোকজনের কাছেই মোবাইল অভিজ্ঞতার ক্ষেত্রে ফেসবুকই সবকিছু নয়। বরং গ্রাহকদের প্রতিক্রিয়া থেকে বোঝা যায়, তারা কোম্পানিটির প্রত্যাশার চেয়েও সেবাটির প্রতি অধিক উদাসীন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,826 other subscribers

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.