৩০ হাজার টাকার মধ্যে সেরা স্মার্টফোন ২০২৪

২০ হাজার টাকা থেকে ৩০ হাজার টাকার মধ্যে বিভিন্ন ব্র‍্যান্ডের ভালো স্মার্টফোন পাওয়া যাচ্ছে দেশের বাজারে। স্যামসাং এর মত নামিদামি ব্র‍্যান্ডের পাশাপাশি শাওমি, রিয়েলমি, অপো, ভিভো এর মত জনপ্রিয় চীনা স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর অনেক ফোন অফিসিয়ালি পাওয়া যাচ্ছে বাংলাদেশে। চলুন জেনে নেয়া যাক, ২০ হাজার টাকা থেকে ৩০ হাজার টাকা বাজেট রেঞ্জের মধ্যে সেরা মোবাইল ফোনগুলো সম্পর্কে। তালিকার ফোনগুলো এদের বাজারমূল্যের অনুসারে সাজানো হয়েছে। মনে রাখবেন ডলারের দাম এবং বিশ্ব বাজারের অবস্থার সাথে সাথে দাম কমতে কিংবা বাড়তে পারে। তাই অনুগ্রহ করে একাধিক দোকান থেকে দাম সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারেন।

ইনফিনিক্স নোট ৩০ – Infinix Note 30

Infinix note 30 series launched

আকর্ষণীয় ডিজাইনের ফোন ইনফিনিক্স নোট ৩০ এর বেস ভ্যারিয়ান্ট পাওয়া যাবে ২০ হাজার টাকার মধ্যে, তবে ২৫৬ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়ান্টটিও পাওয়া যাবে বেশ সুলভ মূল্যে যা এটিকে ৩০ হাজার টাকার মধ্যে ভালো ফোন এর তালিকায় স্থান করে দিয়েছে। সাইড মাউন্টেড ফিংগারপ্রিন্ট এর এই ফোনটির ডিজাইন দেখতে অনেকটা ভিভোর মিড-রেঞ্জ ডিভাইসগুলোর মতই। 

৬.৭৮ ইঞ্চি পাঞ্চ-হোল ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট ডিসপ্লে থাকছে ইনফিনিক্স নোট ৩০ ফোনটিতে। ৬৪ মেগাপিক্সেল ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা ও ১৬ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা রয়েছে ফোনটিতে। ফোনটি দিয়ে ৪কে ভিডীও রেকর্ড করার অপশনও রয়েছে।

মিডিয়াটেক হেলিও জি৯৯ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে ইনফিনিক্স নোট ৩০ ফোনটিতে। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারির সাথে এখানে ৪৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধা ও রিভার্স চার্জিং সুবিধাও পেয়ে যাবেন।

ইনফিনিক্স নোট ৩০ এর দামঃ

  • ৮ জিবি র‍্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজঃ ১৮,৯৯৯ টাকা
  • ৮ জিবি র‍্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজঃ ২৩,৯৯৯ টাকা

রিয়েলমি ১১ ৫জি – Realme 11 5G

রিয়েলমি ১১ ৫জি - Realme 11 5G

১০৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরার ফোন রিয়েলমি ১১ ৫জি জায়গা করে নিয়েছে ৩০ হাজার টাকার মধ্যে সেরা স্মার্টফোন এর তালিকায়। ফোনটিতে ৬.৭২ ইঞ্চি পাঞ্চ-হোল ডিসপ্লে রয়েছে যা আবার ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট সাপোর্টেড, ফ্রন্টে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা।

মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৬১০০+ প্রসেসর থাকায় ফোনটিতে ৫জি সুবিধা পাওয়া যাবে। ৫০০০ মিলিএম্প এর ব্যাটারি থাকছে এই ফোনে, যার সাথে রয়েছে ৬৭ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধাও। ৮ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়ান্টে ফোনটির আনঅফিসিয়াল মডেল দেশের বাজারে পেয়ে যাবেন। 

রিয়েলমি ১১ ৫জি এর দামঃ ২৫,৯৯৯ টাকা (আনঅফিসিয়াল)

ইনফিনিক্স জিটি ১০ প্রো – Infinix GT 10 Pro

ইনফিনিক্স জিটি ১০ প্রো - Infinix GT 10 Pro

ইনফিনিক্স জিটি ১০ প্রো এর ইন্ডাস্ট্রিয়াল লুকিং ব্যাক ডিজাইন যে কারো পছন্দ হবে। ফোনের ব্যাকে সুন্দরভাবে স্থান পেয়েছে এর ক্যামেরা আইল্যান্ড ও ফ্রন্টে রয়েছে ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেটের ৬.৬৭ ইঞ্চি এমোলেড স্ক্রিন। 

১০৮ মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ রয়েছে ইনফিনিক্স জিটি ১০ প্রো ফোনটির ব্যাকে। ৩২ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা থাকছে ফোনটির ফ্রন্টে। এখানে প্রাইমারি ক্যামেরা দ্বারা ৪কে ও ফ্রন্ট ক্যামেরা দ্বারা ২কে ভিডিও রেকর্ড করার অপশন থাকছে।

মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৮০৫০ প্রসেসর দ্বারা চলবে ফোনটি। ৮ জিবি র‍্যাম ও ২৫৬ জিবি স্টোরেজ থাকছে ফোনটির বেস ভ্যারিয়ান্টে। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারির ফোন ইনফিনিক্স জিটি ১০ প্রো তে আরো পেয়ে যাবেন ৪৫ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধা।

ইনফিনিক্স জিটি ১০ প্রো এর দামঃ ২৮,৯৯০ টাকা (আনঅফিসিয়াল)

রিয়েলমি ১১এক্স ৫জি – Realme 11X 5G

রিয়েলমি ১১এক্স ৫জি - Realme 11X 5G

২০ হাজার টাকা প্রাইস রেঞ্জের আশেপাশে পেয়ে যাবেন আনঅফিসিয়াল রিয়েলমি ১১এক্স ৫জি ফোনটি। বেশ সুন্দর দেখতে এই ফোনটিতে থাকা মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৬১০০+ এর কল্যাণে পেয়ে যাবেন ৫জি সুবিধা।

৬.৭২ ইঞ্চি ডিসপ্লের এই ফোনে রয়েছে ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট সুবিধা। ৬৪ মেগাপিক্সেল ডুয়াল রিয়ার  ক্যামেরা ও ৮ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা থাকছে এই ফোনে। একাধিক র‍্যাম ও স্টোরেজ ভ্যারিয়ান্টে ফোনটি পাওয়া যাবে। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারির ফোনটিতে ৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধাও রয়েছে।

রিয়েলমি ১১এক্স ৫জি এর দামঃ 

  • ৬ জিবি র‍্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজঃ ২০,৯৯০ টাকা (আনঅফিসিয়াল)
  • ৮ জিবি র‍্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজঃ ২১,৯৯০ টাকা (আনঅফিসিয়াল)

শাওমি রেডমি নোট ১২ প্রো ৫জি – Xiaomi Redmi Note 12 Pro 5G (আনঅফিসিয়াল)

শাওমি রেডমি নোট ১২ প্রো ৫জি - Xiaomi Redmi Note 12 Pro 5G (আনঅফিসিয়াল)

প্রথমেই বলে রাখা ভালো ৩০ হাজার টাকার মধ্যে ভালো মোবাইল এর এই তালিকায় আমরা রেডমি শাওমি রেডমি নোট ১২ প্রো ৫জি এর আনঅফিসিয়াল মডেল এর কথা কথা উল্লেখ করছি। অফিসিয়াল শাওমি রেডমি নোট ১২ প্রো ৫জি ৮ জিবি র‍্যাম ও ২৫৬ জিবি স্টোরেজ এর দাম ৩৭,৯৯৯ টাকা। 

৬.৬৭ ইঞ্চির ওলেড ডিসপ্লের ফোন শাওমি রেডমি নোট ১২ প্রো ৫জি তে ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট ও সাইড মাউন্টেড ফিংগারপ্রিন্ট সেন্সর রয়েছে। ৫০ মেগাপিক্সেল ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটাপের সাথে ১৬ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা রয়েছে এই ফোনে। 

মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ১০৮০ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে শাওমি রেডমি নোট ১২ প্রো ৫জি ফোনটিত। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি ও ৬৭ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং ফিচারের এই ফোনটি একাধিক র‍্যাম ও স্টোরেজ ভ্যারিয়ান্টে পাওয়া যাবে আনঅফিসিয়ালি। 

শাওমি রেডমি নোট ১২ প্রো ৫জি  এর দামঃ 

  • ৬ জিবি র‍্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজঃ ২৬,৯৯৯ টাকা
  • ৮ জিবি র‍্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজঃ ২৭,৯৯৯ টাকা
  • ৮ জিবি র‍্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজঃ ২৮,৪৯৯ টাকা

পোকো এম৩ প্রো ৫জি – Poco M3 Pro 5G

Poco M3 Pro 5G

ফোনটি কয়েক বছরের পুরনো হয়ে গেলেও এটি এখনও ক্রেতাদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয় এর অসাধারণ পারফর্মেন্স ও ভালো ৫জি নেটওয়ার্কের জন্য। ৬.৫ ইঞ্চির এলসিডি ৯০ হার্টজ ডিসপ্লে আছে ফোনের সামনে। ফোনটি ডিজাইন করা হয়েছে ভালো পারফর্মেন্স আর গেমিংয়ের জন্য। আর তাই ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেকের ডাইমেন্সিটি ৭০০ ৫জি চিপ। এটি খুবই দুর্দান্ত পারফর্মেন্স দিতে পারে এবং সকল গেম খেলার ক্ষেত্রেও ভালো সুবিধা পাওয়া যায়।

ফোনে পাওয়া যাবে ৬ জিবি পর্যন্ত র‍্যাম। ফোনের ক্যামেরা সেকশনে আছে ট্রিপল ৪৮ মেগাপিক্সেলের সেটআপ। মূল ক্যামেরা থেকে ভালো ভালো ছবি তোলা সম্ভব। আর সামনে পাচ্ছেন ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি। ক্যামেরার দিকে বিশেষ দৃষ্টি না রাখায় ক্যামেরা পারফর্মেন্স পাওয়া যাবে মোটামুটি ধরণের। খুবই ভালো ৫০০০ মিলিএম্পের বড় ব্যাটারি আছে ফোনে যা ২ দিন পর্যন্ত ব্যাকাপ দিতে সক্ষম। ১৮ ওয়াটে চার্জ করা যাবে ফোনটিকে। এছাড়া ডুয়াল সিমেই ৫জি সুবিধা রয়েছে ফোনে। সব মিলিয়ে এই ফোনটি এখনও এই দামে বেশ ভালো একটি পছন্দ। 

পোকো এম৩ প্রো ৫জি এর দাম: ২৩,৯৯৯ টাকা

এমআই ১১ লাইট ৫জি এনই – MI 11 Lite 5G NE

এই বাজেটে যদি সুন্দর, পাতলা ও হালকা প্রিমিয়াম ডিজাইনের ফোন খুঁজে থাকেন তবে এই ফোনটি থাকতে পারে আপনার পছন্দের শীর্ষে। মাত্র ৬.৮ মিলিমিটার পাতলা ও ১৫৮ গ্রাম ওজনের এই ফোনটি হাতে ধরলেই ভালো লেগে যাবে। খুবই সুন্দর এই ফোনের সামনের ৬.৫৫ ইঞ্চির অ্যামোলেড ডিসপ্লেটিও অসাধারণ। এই ডিসপ্লে ১ বিলিয়ন কালার ও ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট সাপোর্ট করে। প্রিমিয়াম এই ডিসপ্লে কন্টেন্ট ওয়াচিংয়ের ক্ষেত্রে আপনাকে দিতে পারে সবথেকে ভালো অভিজ্ঞতা। পারফর্মেন্সের ক্ষেত্রেও ফোনটি যথেষ্ট ভালো। দেয়া রয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৭৭৮ ৫জি চিপ। এটি আপার মিডরেঞ্জের একটি চিপ এবং দৈনন্দিন কাজ এবং গেমিংয়ের ক্ষেত্রে খুব ভালো সাপোর্ট দিতে পারে।

৮ জিবি পর্যন্ত র‍্যাম পেয়ে যাবেন এই ফোনে। ফলে কোন কাজেই ফোনটি ল্যাগ বা ধীরগতির হবে না। ক্যামেরা হিসেবে পিছনে পাবেন ৬৪ মেগাপিক্সেলের মূল ক্যামেরা, ৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রাওয়াইড এবং ৫ মেগাপিক্সেলের টেলিফটো ম্যাক্রো ক্যামেরা। তিনটি ক্যামেরা থেকেই এই বাজেটের ফোন হিসেবে সেরা সব ছবি তোলা যায়। সামনের সেলফি ক্যামেরাটিও ২০ মেগাপিক্সেলের উন্নত মানের সেলফি তুলতে সক্ষম। সব মিলিয়ে ক্যামেরা যাদের ভালো চাই তাদের জন্যও এটি একটি ভালো ফোন। তবে ব্যাটারির ক্ষেত্রে ৪২৫০ মিলিএম্প ব্যাটারি পাওয়া যাবে যা দিনের মধ্যে একবার চার্জ দেবার দরকার হতে পারে। তবে ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জ সুবিধা থাকায় এটি নিয়েও চিন্তা নেই কোন। ফোনটি আনঅফিসিয়াল বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ৩০ হাজার টাকার মধ্যেই।

MI 11 Lite 5G NE

এমআই ১১ লাইট ৫জি এনই এর দাম (আনঅফিসিয়াল) : ৩০,০০০ টাকা

রেডমি কে৫০আই – Redmi K50i

পারফর্মেন্স আর গেমিং যাদের মূল লক্ষ্য তাদের জন্যই তৈরি এই ফোন। এই বাজেটের মধ্যে সেরা সব পারফর্মেন্স দেবে ৬.৬ ইঞ্চির এই এলসিডি ডিসপ্লের ফোনটি। তবে অ্যামোলেড না থাকলেও এতে রয়েছে ১৪৪ হার্টজের রিফ্রেশ রেট যা এই বাজেটের সেরা। এছাড়া ডিসপ্লেটি উজ্জ্বল এবং এইচডিআর১০, ডলবি ভিশনের সাপোর্ট রয়েছে। ফোনের পারফর্মেন্স দিচ্ছে মিডিয়াটেকের ৫ ন্যানোমিটারের ডাইমেন্সিটি ৮১০০ চিপ। এটি খুবই শক্তিশালী একটি চিপ এবং যে কোন ধরণের কাজ বা গেমিং এই ফোনের মাধ্যমে করা সম্ভব। গেমিংয়ে ফোন ঠাণ্ডা রাখতে এর মধ্যে লিকুইড কুল টেকনোলজি দেয়া আছে।

Redmi K50i

এছাড়া এলপিডিডিআর৫ র‍্যাম ও ইউএফএস ৩.১ স্টোরেজ থাকায় খুবই স্মুথভাবে যে কোন কাজ করে ফেলা যায়। কাজেই পারফর্মেন্স যাদের দরকারি তারা এই ফোনকেই নিজের তালিকায় রাখতে পারেন। এছাড়া ৬৪ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা, ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা ক্যামেরা সেকশনকেও ফোনটিকে ভালো অবস্থানে রেখেছে। ৫০৮০ লিমিএম্পের বিশাল ব্যাটারি ও ৬৭ ওয়াটের সুপার ফাস্ট চার্জ সুবিধা থাকায় ব্যাকাপ নিয়ে কখনও সমস্যায় পড়তে হবে না আপনাকে। এছাড়া এটি ৫জি ফোন হওয়ায় সুপার ফাস্ট ইন্টারনেটও উপভোগ করতে পারবেন।

রেডমি কে৫০আই এর দাম (আনঅফিসিয়াল) : ২৯,০০০ টাকা

শাওমি রেডমি নোট ১৩ প্রো ৫জি – Xiaomi Redmi Note 13 Pro 5G (আনঅফিসিয়াল)

Xiaomi Redmi Note 13 Pro 5G

৩০ হাজার টাকার মধ্যে সেরা স্মার্টফোন এর তালিকায় থাকছে আনঅফিসিয়াল শাওমি রেডমি নোট ১৩ প্রো ৫জি, এই ফোনটি এখনো অফিসিয়ালি দেশের বাজারে মুক্তি পায়নি। একাধিক র‍্যাম ও স্টোরেজ ভ্যারিয়ান্টে ফোনটি দেশের বাজারে পাওয়া যাবে।

৬.৬৭ ইঞ্চি ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট ওলেড স্ক্রিন থাকছে এই ফোনটিতে। শাওমি রেডমি নোট ১৩ প্রো ৫জি ফোনটির ব্যাকে রয়েছে ২০০ মেগাপিক্সেল ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ, ফ্রন্টে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। 

কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৭এস জেন ২ প্রসেসর দ্বারা চলবে এই ফোনটি। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারির ফোন শাওমি রেডমি নোট ১৩ প্রো ৫জি তে থাকছে ৬৭ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধা। বলে রাখা ভালো এখানে স্টাইলিশ ইন-ডিসপ্লে ফিংগারপ্রিন্ট সেন্সরও পেয়ে যাচ্ছেন।

শাওমি রেডমি নোট ১৩ প্রো ৫জি এর দামঃ

  • ৮ জিবি র‍্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজঃ ২৩,০০০ টাকা
  • ১২ জিবি র‍্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজঃ ২৮,০০০ টাকা
  • ১৬ জিবি র‍্যাম + ৫১২ জিবি স্টোরেজঃ ৩২,০০০ টাকা

শাওমি রেডমি নোট ১৩ ৫জি – Xiaomi Redmi Note 13 5G (আনঅফিসিয়াল)

শাওমি রেডমি নোট ১৩ ৫জি - Xiaomi Redmi Note 13 5G (আনঅফিসিয়াল)

শাওমির আরেকটি আনঅফিসিয়াল ফোন শাওমি রেডমি নোট ১৩ ৫জি স্থান করে নিয়েছে আমাদের ৩০ হাজার টাকার মধ্যে ভালো স্মার্টফোন এর তালিকায়। একাধিক র‍্যাম ও স্টোরেজ ভ্যারিয়ান্টে দেশের বাজারে এই ফোনটিও আনঅফিসিয়ালি পাওয়া যাবে। 

শাওমি রেডমি নোট ১৩ ৫জি ফোনটিতে ৬.৬৭ ইঞ্চি এমোলেড ডিসপ্লে রয়েছে যা আবার ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট সাপোর্টেড। ১০০ মেগাপিক্সেল ডুয়াল রিয়ার ক্যামেরা সেটাপের এ ফোনে ১৬ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা থাকছে।

মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৬০৮০ প্রসেসর দ্বারা চালিত শাওমি রেডমি নোট ১৩ ৫জি ফোনটিতে ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি ও ৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সুবিধা থাকছে।

শাওমি রেডমি নোট ১৩ ৫জি এর দামঃ

  • ৮ জিবি র‍্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজঃ ২০,০০০ টাকা
  • ৮ জিবি র‍্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজঃ ২৩,০০০ টাকা
  • ১২ জিবি র‍্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজঃ ২৬,০০০ টাকা

স্যামসাং গ্যালাক্সি এ২৩ – Samsung Galaxy A23

Samsung Galaxy A23

পারফর্মেন্স আর ক্যামেরায় ভারসাম্য রেখে স্যামসাংয়ের এই ফোনটি এই বাজেটের অন্যতম সেরা একটি ফোন। ফোনটির সামনে আছে ৬.৬ ইঞ্চির একটি এলসিডি ডিসপ্লে। তবে এলসিডি হলেও এখানে ৯০ হার্টজের হাই রিফ্রেশ রেট রয়েছে এবং স্যামসাং ডিসপ্লের মানও বেশ উন্নত। পারফর্মেন্সের ক্ষেত্রে এখানে পাবেন সেরা একটি চিপ, স্ন্যাপড্রাগন ৬৮০। এটি মিড বাজেটের একটি চিপ এবং বেশ শক্তিশালী। গেমিং বা দৈনন্দিন স্বাভাবিক কাজে বেশ ভালো পারফর্মেন্স দেবে এটি।

এছাড়া ৬ জিবি র‍্যাম থাকায় পুরো ফোন থেকেই স্মুথ অভিজ্ঞতা পাবেন। ফোনের ক্যামেরাও বেশ উন্নত মানের। চারটি ক্যামেরা রয়েছে পেছনে। মূল ৫০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরায় পাবেন ওআইএস সুবিধা। ফলে ছবির মানও অনেক উন্নত এবং এই বাজেটের অন্যতম সেরা। সামনের সেলফি ক্যামেরাটি ৮ মেগাপিক্সেলের এবং সাধারণ মানের। ফোনে থাকছে ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি যা সহজেই একদিন ব্যাকাপ দেবে। এছাড়া ২৫ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং ফিচারও দিয়েছে এখানে স্যামসাং। সব মিলিয়েই ফোনটি ক্রেতাদের কাছে বেশ প্রিয়।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এ২৩ এর দাম : ২৭,৪৯৯ টাকা

স্যামসাং গ্যালাক্সি এফ১৩ – Samsung Galaxy F13

Samsung Galaxy F13

এই বাজেটের মধ্যে সেরা ব্যাটারি ব্যাকাপ ও সুন্দর দেখতে একটি ফোন এফ১৩। প্রথমেই নজর কাড়বে এর ৬.৬ ইঞ্চির ডিসপ্লে। এলসিডি ডিসপ্লে হলেও এটি একটি ভালো মানের ডিসপ্লে। তবে হাই রিফ্রেশ রেটের কোন সুবিধা নেই। তবে পুরো ফোনটি গরিলা গ্লাস ৫ এর প্রোটেকশনযুক্ত। ফলে ফোনটি পড়ে গেলেও রক্ষা পাবে সহজে। ফোনের পারফর্মেন্স দিতে আছে স্যামসাংয়ের নিজস্ব এক্সিনোস ৮৫০ চিপ। এটি খুব শক্তিশালী চিপ না হলেও দৈনন্দিন কাজ বা টুকটাক গেমিং করতে সমস্যা হবে না।

এছাড়া ৬ জিবি র‍্যামও রয়েছে সহজ ও স্মুথ অভিজ্ঞতার জন্য। ফোনের ক্যামেরা সেকশনে আছে ৫০ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ যেখানে ৫ মেগাপিক্সেলের একটি আল্ট্রা ওয়াইড ক্যামেরাও থাকছে। আর সামনে আছে ৮ মেগাপিক্সেলের একটি সেলফি ক্যামেরা। ফোনের ক্যামেরা পারফর্মেন্স বাজেট অনুযায়ী যথেষ্ট ভালো। ফোনের মূল আকর্ষণ এর ৬০০০ মিলিএম্পের বিশাল ব্যাটারি। এটি সহজেই একদিনেরও বেশি সাপোর্ট দিতে পারবে এক চার্জেই। আছে ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জ করার সুবিধাও। দীর্ঘ ব্যাটারি ব্যাকাপের ভালো ফোন চাইলে এই ফোনটি অবশ্যই রাখা উচিত আপনার পছন্দের তালিকায়।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এফ১৩ এর দাম : ২৭,৪৯৯ টাকা

রিয়েলমি নারজো ৫০ প্রো – Realme Narzo 50 Pro

Realme Narzo 50 Pro

রিয়েলমির খুবই জনপ্রিয় ফোন নারজো ৫০ এর আরও উন্নত ভার্সন এই ফোনটি। নারজো সিরিজের অন্যান্য ফোনের মতোই এটিও গেমিংয়ের দিকে আলাদা দৃষ্টি রেখে এই ফোনটি বাজারে এনেছে। যাদের ৫ জি গেমিং ফোন দরকার তাদের জন্য এটি হতে পারে সেরা পছন্দ। সামনে পাবেন ৬.৪ ইঞ্চির সুন্দর একটি ৯০ হার্টজ সুপার অ্যামোলেড প্যানেল। গেমিং বা কন্টেন্ট ওয়াচিংয়ের ক্ষেত্রে সেরা অভিজ্ঞতা পাওয়া যাবে এই ডিসপ্লে থেকে। প্রসেসর হিসেবে আছে মিডিয়াটেকের ডাইমেন্সিটি ৯২০। এটি খুবই শক্তিশালী একটি চিপ যা গেমিংয়ের ক্ষেত্রে অসাধারণ সাপোর্ট দিতে পারে।

৮ জিবি র‍্যামকেও সফটওয়্যারের মাধ্যমে আরও ৫ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। ফলে সব মিলিয়ে খুবই সুন্দর ও স্মুথ পারফর্মেন্স দেয় এই ফোনটি। ক্যামেরা সেকশনে আছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সিস্টেম যেখানে ৮ মেগাপিক্সেলের একটি আল্ট্রা ওয়াইড লেন্সও থাকছে। ক্যামেরা পারফর্মেন্সেও এটি যথেষ্ট ভালো। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি ও ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জ সুবিধা দীর্ঘ সময় ব্যাটারি ব্যাকাপ ও দ্রুত চার্জ করতে সাহায্য করবে। এছাড়া স্টেরিও স্পিকার, খুবই ভালো কুলিং সিস্টেম গেমিং অভিজ্ঞতাকে আরও সুন্দর করবে।

রিয়েলমি নারজো ৫০ প্রো এর দাম (আনঅফিসিয়াল) : ২৮,০০০ টাকা

ভিভো ওয়াই৩৬ – Vivo Y36

Vivo Y36

সুন্দর ডিজাইন, ভালো পারফর্মেন্স আর ভালো ক্যামেরা নিয়ে এই ফোনটি সব দিকেই বেশ পারদর্শী। আর ক্রেতাদের কাছে এ বছর বাজারে আসার সঙ্গে সঙ্গেই পেয়েছে জনপ্রিয়তা। কেননা এই ফোনের সামনে থাকছে ৬.৬৪ ইঞ্চির বড় ৯০ হার্টজের একটি এলসিডি ডিসপ্লে। এটি উজ্জ্বল এবং উন্নত মানের একটি ডিসপ্লে। সেই সাথে পারফর্মেন্সের ক্ষেত্রে সাহায্য করছে স্ন্যাপড্রাগনের ৬৮০ চিপ। এটি এই বাজেটের জন্য খুবই ভালো ও শক্তিশালী একটি চিপ।

এর মাধ্যমে সহজেই সব কাজ ও কিছুটা গেমিংও করা সম্ভব। ফোনটি পাওয়া যাচ্ছে ৮ জিবি র‍্যামের সাথে যা সফটওয়্যারের মাধ্যমে আরও ৮ জিবি বাড়িয়ে ১৬ জিবি করে ফেলা সম্ভব। ক্যামেরার ক্ষেত্রেও ফোনটি যথেষ্ট ভালো। পিছনে ডুয়াল ক্যামেরা আছে যার মূল ৫০ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরাটি অসাধারণ সব ছবি তুলতে পারে। সামনের ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরাটিও বেশ উন্নত মানের। ফোনের অন্যতম আকর্ষণীয় দিক এর ব্যাটারি সেকশন। সারাদিন ব্যাকাপ দিতে ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি তো থাকছেই। আছে ৪৪ ওয়াট পর্যন্ত ফাস্ট চার্জের সুবিধা! ১৫ মিনিটেই এই ফোনটি ৩০ শতাংশ চার্জ করে ফেলা সম্ভব। সব মিলিয়েই ফোনটি দ্রুত নজর কেড়েছে সবার। 

ভিভো ওয়াই৩৬ এর দাম : ২৬,৯৯৯ টাকা

অপো এ৭৭এস – Oppo A77s

Oppo A77s

লেদার ব্যাকের সাথে অসাধারণ সুন্দর ডিজাইনের কারণে এই ফোনটি সবার নজর সহজেই কেড়ে নেয়। সেই সাথে ভালো ভালো বেশ কিছু ফিচার তো আছেই। ফোনের সামনে পাবেন ৬.৫৬ ইঞ্চির একটি আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে যেখানে রয়েছে ৯০ হার্টজের হাই রিফ্রেশ রেটের সুবিধা। ডিসপ্লেটি বেশ উজ্জ্বল ও স্মুথ কাজ করে। স্ন্যাপড্রাগন ৬৮০ চিপ থাকায় পারফর্মেন্সেও নেই কোন ঘাটতি। সকল ভারী কাজ ও গেমিং খুব সহজেই সামলাতে পারে এই চিপ।

এছাড়া আছে ৮ জিবি পর্যন্ত র‍্যাম যা সফটওয়্যারের সাহায্যে ১৬ জিবি করা সম্ভব। ফোনের ক্যামেরা সেকশনে আছে দুটি ক্যামেরা। মূল ক্যামেরাটি ৫০ মেগাপিক্সেলের এবং বেশ সুন্দর ছবি তোলা যায় এই বাজেটের ফোন ক্যামেরা হিসেবে। সামনে আছে ৮ মেগাপিক্সেলের একটি সেলফি শ্যুটার। ৫০০০ মিলিএম্পের বিশাল ব্যাটারি একদিন পর্যন্ত সহজেই ব্যাকাপ দিতে পারবে। আর চার্জ করতে আছে ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জের সুবিধা। স্টেরিও স্পিকার, আইপি রেটিং, ভালো ড্যুরাবিলিটি সব মিলিয়ে এই ফোনটি এই বাজেটে রেকমেন্ড করবার মতো একটি ফোন।

অপো এ৭৭এস এর দাম : ২৪,৯৯০ টাকা

ওয়ালটন প্রিমো জেডএক্স৪ – Walton Primo ZX4

Walton Primo ZX4

ওয়ালটনের স্মার্টফোন লাইনাপে বর্তমানে সবথেকে দামী ফোন এটি। তাই এখানে ফিচারেরও কমতি রাখনি ওয়ালটন। এই ফোনের সামনে আছে ৬.৬৭ ইঞ্চির বিশাল একটি এলসিডি প্যানেল। এই ডিসপ্লের মান বেশ ভালো এবং কন্টেন্ট ওয়াচিংয়ে ভালো অভিজ্ঞতা দেবে। প্রসেসর হিসেবে আছে মিডিয়াটেক হেলিও জি৯৫ চিপ। এটি বেশ শক্তিশালী চিপ বলে দৈনন্দিন সকল কাজ বা গেমিংয়ের ক্ষেত্রে স্মুথ ও দ্রুত কাজ করে। সেই সাথে ৮ জিবি র‍্যাম থাকায় এই ফোন থেকে পাওয়া যায় অসাধারণ পারফর্মেন্স। ফোনের পিছনে আছে ৬৪ মেগাপিক্সেলের সনির ৫ ক্যামেরা সেটআপ।

ক্যামেরার দিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখা হয়েছে বিধায় অসাধারণ সব ছবি পাওয়া যায় এই ফোন থেকে। আলট্রা ওয়াইড, ম্যাক্রো, ডেপথ, মনো সব ধরণের ক্যামেরাই পাবেন ফোনের পিছনে। আর সামনে পাওয়া যাবে ৩২ মেগাপিক্সেলের উন্নত মানের একটি সেলফি ক্যামেরা। অসধারন সব সেলফিও তোলা যায় এই ফোনে। ফোনে আরও আছে ৪০০০ মিলিএম্পের ব্যাটারির সুবিধা এবং ১৮ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং। এই ফোনটি যারা ভালো ফিচারযুক্ত ক্যামেরা চান তাদের কাছে বেশ জনপ্রিয়।

ওয়ালটন প্রিমো জেডএক্স৪ এর দাম : ২৬,৯৯০ টাকা

ইনফিনিক্স নোট ১২ প্রো – Infinix Note 12 Pro

Infinix Note 12 Pro

ইনফিনিক্স তাদের এই ফোনটির নাম দিয়েছে স্পিড মাস্টার। পারফর্মেন্স কেন্দ্রিক এই ফোনটি দেখতেও বেশ প্রিমিয়াম ও সুন্দর। সামনেই পাবেন ৬.৭ ইঞ্চির বিশাল সাইজের ডিসপ্লে। হাই রিফ্রেশ রেট না থাকলেও অ্যামোলেড ডিসপ্লে হওয়ায় কন্টেন্ট ওয়াচিং বা গেমিং করে পাবেন বাড়তি মজা। ফোনের প্রসেসর হিসেবে দেয়া হয়েছে মিডিয়াটেকের হেলিও জি৯৯। এটি বেশ শক্তিশালী একটি চিপ এবং বাজেটে গেমিং করার জন্য খুবই ভালো একটি পছন্দ হতে পারে। দৈনন্দিন কাজেও এটি ভালো পারফর্ম করে। ৮ জিবি র‍্যামের সাথে মিলে তাই এই ফোন থেকে খুবই ভালো গতি পাওয়া যাবে।

ফোনের ক্যামেরা সেকশনেও আছে চমক। ১০৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ দেয়া হয়েছে এখানে। এই ক্যামেরায় খুবই ভালো ছবি তোলা যায়। সামনে পাবেন ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। আর ফোনের ব্যাটারি হিসেবে আছে ৫০০০ মিলিএম্পের লম্বা ব্যাকাপের ব্যাটারি। সেই সাথে ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জের সুবিধা দেয়াই ফোনটির ব্যাকাপ নিয়ে কোন চিন্তাই থাকছে না। এই বাজেটে পরিপূর্ণ একটি প্যাকেজ এই ফোনটি।

ইনফিনিক্স নোট ১২ প্রো এর দাম : ২৬,৪৯৯ টাকা

টেকনো ক্যামন ২০ প্রো – Tecno Camon 20 Pro

Tecno Camon 20 Pro

টেকনোর ফোন বাজেটের মধ্যে সেরা সব ফিচার নিয়ে আসে সবসময়। এই ফোনটির মূল আকর্ষণই হচ্ছে এর ক্যামেরা। এই বাজেটের সেরা সব পোট্রেইট ছবি তুলতে সক্ষম এই ফোনটি। সুন্দর ও প্রিমিয়াম ডিজাইনের এই ফোনটির সামনে পাবেন ৬.৬৭ ইঞ্চির একটি অ্যামোলেড ১২০ হার্টজ প্যানেল। এই বাজেটের একটি সেরা ডিসপ্লে এটি। থাকছে মিডিয়াটেকের হেলিও জি৯৯ প্রসেসর। এটি একটি গেমিং প্রসেসর আর তাই বেশ শক্তিশালী। দৈনন্দিন কাজগুলো কিংবা গেমিংয়ে সেরা অভিজ্ঞতা পাবেন ৮ জিবি র‍্যামের সাথে মিলে। ফোনের ক্যামেরা সেটআপ এর সবথেকে আকর্ষণীয় দিক।

আছে ৬৪ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ। দিনে কিংবা রাতে খুবই সুন্দর সব ছবি তোলা যায় মূল লেন্স দিয়ে। সামনের সেলফি ক্যামেরাতেও দেয়া হয়েছে ৩২ মেগাপিক্সেলের একটি ভালো মানের লেন্স। ফলে সেলফিও তোলা যায় বেশ সুন্দর। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি ও ৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জ সুবিধা ফোনের ব্যাটারি ব্যাকাপের চিন্তাও দূর করেছে। এছাড়া আরও ভালো কিছু ফিচারের দেখাও পাবেন এই ফোনে।

টেকনো ক্যামন ২০ প্রো এর দাম : ২৪,৯৯০ টাকা

টেকনো পোভা ৪ প্রো – Tecno Pova 4 Pro

Tecno Pova 4 Pro

ব্যাটারি ব্যাকাপ ও সেরা পারফর্মেন্সের সাথে এই ফোন প্রিয় হয়ে উঠেছে অনেকের কাছেই। ফোনের সামনে পেয়ে যাবেন খুবই সুন্দর একটি ৬.৬৬ ইঞ্চির অ্যামোলেড প্যানেল যা ৯০ হার্টজ পর্যন্ত রিফ্রেশ রেট দেবে। এই ডিসপ্লেটি কন্টেন্ট ওয়াচিং করতে সেরা। এছাড়া ফোনের পারফর্মেন্স সেকশনেও বাড়তি নজর রাখা হয়েছে। দেয়া হয়েছে হেলিও জি৯৯ গেমিং প্রসেসর। ভারী কাজ বা গেমিং এর জন্য খুব ভালো প্রসেসর এটি। সেই সঙ্গে ৮ জিবি র‍্যাম মিলে পুরো ফোনটি স্মুথভাবে কাজ করে।

ফোনের পেছনে পাবেন ৫০ মেগাপিক্সেলের ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ। বাজেট হিসেবে বেশ ভালো ছবি তোলা যায় এই ফোনের ক্যামেরাতে। সামনে ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরাও পেয়ে যাবেন। ফোনের সবথেকে সেরা দিক হচ্ছে এর ৬০০০ মিলিএম্পের ব্যাটারি। খুব সহজে ভারী ব্যভারেও একদিন ব্যাকাপ পাওয়া যাবে এই বিশাল সাইজের ব্যাটারির মাধ্যমে। ৪৫ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং থাকায় খুব দ্রুত চার্জও করে ফেলা যাবে ফোনটি। অর্থাৎ যাদের শক্তিশালী এবং ভালো ব্যাকাপের ফোন দরকার তাদের জন্য এই ফোনটি হতে পারে সেরা পছন্দ।

টেকনো পোভা ৪ প্রো এর দাম : ২৬,৯৯০ টাকা

ওয়ানপ্লাস নর্ড সিই ২ লাইট – Oneplus Nord CE 2 Lite

Oneplus Nord CE 2 Lite

ওয়ানপ্লাসের এই ফোনটিকে বলা যায় ৩০ হাজার টাকা বাজেটের মধ্যে অন্যতম সেরা একটি ফোন। এই ফোনের সবদিকেই আছে অসাধারণ সব ফিচার ও স্পেক। ফোনের সামনেই পাবেন ৬.৫৯ ইঞ্চির একটি ডিসপ্লে। এটি এলসিডি ডিসপ্লে হলেও এখানে ১২০ হার্টজের সুবিধা আছে, এছাড়া ডিসপ্লের মানও বেশ অসাধারণ। ফোনের পারফর্মেন্স দিতে আছে স্ন্যাপড্রাগন ৬৯৫ ৫জি চিপ। এই বাজেটের সেরা চিপ এটি। গেমিং কিংবা দৈনন্দিন কাজগুলো সহজেই করা যায় এই প্রসেসরে।

এছাড়া ফোনে আছে ৮ জিবি র‍্যাম। তাই সকল কাজই খুব সাবলিলভাবে সামলাতে পারে ফোনটি। ফোনের ক্যামেরা সেকশনে আছে ৬৪ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা। বাজেট অনুযায়ী এর ক্যামেরা পারফর্মেন্সও অসাধারণ। সামনে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরাও উন্নত মানের সেলফি তুলতে পারে। ৫০০০ মিলিএম্পের বড় ব্যাটারি সারাদিন ব্যাকাপ দিতে সক্ষম, আর আছে ৩৩ ওয়াটের সুপার ফাস্ট চার্জ সুবিধা। এছাড়া ৫জি সুবিধা তো থাকছেই। সব মিলিয়ে এই ফোনটি খুবই জনপ্রিয় একটি ফোন হয়ে উঠেছে।

ওয়ানপ্লাস নর্ড সিই ২ লাইট এর দাম : ২৯,৬০০ টাকা

পোকো এক্স৪ প্রো ৫জি – Poco X4 Pro 5G

পোকো এক্স৪ প্রো ৫জি – Poco X4 Pro 5G

শাওমির পোকো সিরিজের ফোন বরাবরই বাজেটের মধ্যে সেরা হয়ে থাকে। এই ফোনটিও তার ব্যতিক্রম নয়। যদিও বাংলাদেশের বাজারে এই ফোনটি অফিসিয়ালি আসে নি, তবে আপনি আনফিসিয়ালি ৩০ হাজার টাকার মধ্যেই এই জনপ্রিয় মডেলটি পেয়ে যাবেন। এতে ব্যবহার করা হয়েছে স্ন্যাপড্রাগনের নতুন ৬৯৫ চিপ যা ৬ ন্যানোমিটারের বলে বেশ আধুনিক। পারফর্মেন্সের ক্ষেত্রে এটি সব কাজ ভালোভাবে করার সাথে সাথে গেমিং করতেও পারদর্শী।

৬.৬৭ ইঞ্চির বড় অ্যামোলেড ১২০ হার্টজের প্যানেল আছে এতে যা বেশ সুন্দর ও প্রিমিয়াম। তাছাড়া ১০৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ আছে এতে। ৫০০০ মিলিএম্পের ব্যাটারি থাকায় এতে সারাদিন ব্যাটারি ব্যাকাপ পাওয়া যাবে সহজেই। এছাড়া ৫জি সুবিধা, মাইক্রোএসডি কার্ড, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, ৬৭ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিংয়ের মতো অসাধারন কিছু ফিচারও পেয়ে যাবেন।

পোকো এক্স৪ প্রো ৫জি এর দাম (আনঅফিসিয়াল): ২৩,০০০ টাকা

শাওমি ১১আই / রেডমি নোট ১১ প্রো – Xiaomi 11i / Redmi Note 11 Pro

শাওমি ১১আই / রেডমি নোট ১১ প্রো – Xiaomi 11i / Redmi Note 11 Pro

২০২২ সালে বাজারে সাড়া ফেলে দেয়া ফোন এটি। যদিও বাংলাদেশের বাজারে এই ফোনটি অফিসিয়ালি আসে নি তবে শাওমি ১১আই আনফিসিয়াল বাজারে পেয়ে যাবেন ৩০ হাজার টাকা বা এর আশেপাশেই। এই ফোনটির ভারতীয় ভ্যারিয়্যান্ট রেডমি নোট ১১ প্রো নামে পরিচিত। ৬.৬৭ ইঞ্চির ১২০ হার্টজের অ্যামোলেড  প্যানেল আছে এই ফোনটিতেও। মিডিয়াটেকের ডাইমেনসিটি ৯২০ চিপসেট আছে এতে যা গেমিং বা পারফর্মেন্স সব ক্ষেত্রেই এই বাজেটে আপনাকে সেরা সার্ভিস দিতে সক্ষম।

দেখতে খুব সুন্দর প্রিমিয়াম এই ফোনটির ক্যামেরা সেকশনে আছে ১০৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ। সেলফির জন্য আছে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। বেশ ভালো ছবি তুলতে পারে এই ফোন। ৫১৬০ মিলিএম্প ব্যাটারি থাকায় এই ফোন খুব ভালো ব্যাটারি ব্যাকআপ দিতেও সক্ষম। তাছাড়া ফোনটি ৬৭ ওয়াটে ফাস্ট চার্জ হতে পারে। এছাড়া ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, ডলবি সাউন্ড, গরিলা গ্লাস ৫ এর প্রোটেকশন, মাইক্রো এসডি কার্ড স্লটের মতো বাড়তি কিছু ফিচারও পেয়ে যাবেন।

শাওমি ১১আই এর দাম (আনঅফিসিয়াল): ৩০,৫০০ টাকা

রেডমি নোট ১১এস– Redmi Note 11S

রেডমি নোট ১১এস– Redmi Note 11S

শাওমির রেডমি নোট সিরিজ প্রতিবছর ৩০ হাজার টাকা বাজেটে সেরা ফোনটি বাজারে এনে থাকে। যদি ৩০ হাজার টাকা বাজেটে শাওমির অফিসিয়াল ফোন কিনতে চান তবে এটি হতে পারে আপনার সেরা পছন্দ। এই ফোনে শাওমি বেশ কিছু ভালো ফিচার রেখেছে। আছে ৯০ হার্টজের অ্যামোলেড ডিসপ্লে। ক্যামেরার দিকে দৃষ্টি রেখে শাওমি এখানে তাদের ১০৮ মেগাপিক্সেলের কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ দিয়েছে যেখানে আছে আল্ট্রা ওয়াইড, ম্যাক্রো ও ডেপথ সেন্সরও।

সেলফি ক্যামেরা হিসেবেও আছে ১৬ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। হেলিও জি৯৬ চিপ দেয়া হয়েছে এই ফোনে যা এই দামে সেরা চিপ না হলেও দৈনন্দিন স্বাভাবিক কাজ ও টুকটাক গেমিং করার জন্য বেশ ভালো। তাছাড়া ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং ও ৫০০০ মিলিএম্পের ব্যাটারিও আছে এখানে। সুন্দর দেখতে এই ফোনটি এই বাজেটের অন্যতম সেরা একটি ফোন।

রেডমি নোট ১১এস এর দাম: ২৭,৯৯৯ টাকা

রিয়েলমি ৯ স্পিড এডিশন – Realme 9 Speed Edition

রিয়েলমি ৯ স্পিড এডিশন – Realme 9 Speed Edition

২০২২ সালে বাজারে সাড়া ফেলা অন্যতম ফোন রিয়েলমি ৯ স্পিড এডিশন। তবে এই ফোনটিও অফিসিয়ালভাবে বাজারে আনেনি রিয়েলমি। তবে আনফিসিয়াল বাজারে ফোনটি ৩০ হাজার টাকার নিচেই পাওয়া যাচ্ছে। এই ফোনটি মূলত পারফর্মেন্সের দিক থেকে নজর কেড়েছে। আছে স্ন্যাপড্রাগন ৭৭৮জি গেমিং প্রসেসর যা এই বাজেটে দুর্দান্ত গতিতে কাজ করতে পারে।

তবে ডিসপ্লের ক্ষেত্রে কিছুটা কমতি আছে, ব্যবহার করা হয়েছে এলসিডি ডিসপ্লে। তবে দেয়া আছে ১৪৪ হার্টজের রিফ্রেশ রেট যা এই বাজেটের অন্য কোন ফোনে পাবেন না। ক্যামেরা সেকশনেও এটি বেশ ভালো, আছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল ক্যামেরা। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি, ৩০ ওয়াট চার্জিং সুবিধা থাকায় ব্যাকাপ নিয়েও নিশ্চিন্ত থাকতে পারেন।

রিয়েলমি ৯ স্পিড এডিশন এর দাম (আনঅফিসিয়াল): ২৬,০০০ টাকা

রিয়েলমি ৯ প্রো ৫জি – Realme 9 Pro 5G

রিয়েলমি ৯ প্রো ৫জি – Realme 9 Pro 5G

৩০ হাজার টাকা বাজেট রিয়েলমির সেরা অফিসিয়াল স্মার্টফোন খুঁজলে এটিই হতে পারে আপনার একমাত্র পছন্দ। ৩০ হাজার টাকার মধ্যে বাংলাদেশের বাজারে অন্যতম সেরা স্মার্টফোন এটি। কেননা এটির পারফর্মেন্স দুর্দান্ত এর আধুনিক ৬ ন্যানোমিটারের স্ন্যাপড্রাগন ৬৯৫ চিপসেটের জন্য। ৫জি সাপোর্টেড এই ফোনে তাই অসাধারণ গতিতে সকল কাজ করে ফেলতে পারবেন। এছাড়াও ৮ জিবি মেমোরি ও ১২৮ জিবি স্টোরেজ রয়েছে।

তবে ডিসপ্লের ক্ষেত্রে কিছুটা কমতি আছে এখানেও। দেয়া হয়েছে ১২০ হার্টজের ৬.৬ ইঞ্চির এলসিডি প্যানেল। ক্যামেরার দিক থেকেও ফোনটি বেশ ভালো সেবা দেবে। ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপে মেইন সেন্সরটি ৬৪ মেগাপিক্সেলের। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি ও ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং সুবিধা থাকায় সারাদিন ব্যাকাপ পাওয়া যাবে ফোনটি থেকে। তাছাড়া ফোনটি দেখতেও বেশ সুন্দর ও প্রিমিয়াম। ৩০ হাজার টাকা বাজেটে বেশ ভালো একটি প্যাকেজ এই ফোনটি।

রিয়েলমি ৯ প্রো ৫জি এর দাম: ২৯,৯৯৯ টাকা

ভিভো ভি২৫ই – Vivo V25e

ভিভো ভি২৫ই – Vivo V25e

কিছুদিন আগে বাজারে আসা ভিভোর এই ফোনটি হতে পারে বয়স্ক ও টেকনোলজি সম্পর্কে কম জ্ঞান রাখা মানুষদের জন্য সেরা পছন্দ। বেশ সুন্দর দেখতে এই প্রিমিয়াম ফোনটি খুব পাতলা ও হালকা। তাই হতে ধরে ব্যবহার করতে আরাম পাবে সবাই। সেই সাথে হেলিও জি৯৯ এর ৬ ন্যানোমিটারের প্রসেসর থাকায় সকল কাজ সহজেই করা যাবে। পারফর্মেন্সের দিক থেকে কোনো চিন্তা নেই। আছে অ্যামোলেড ডিসপ্লে যা ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট দিতে পারে।

ফোনটির ক্যামেরা সেকশনে আলাদাভাবে দৃষ্টি দিয়েছে ভিভো। ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ রয়েছে পিছনে। ৬৪ মেগাপিক্সেলের মূল ক্যামেরা ছাড়াও ম্যাক্রো ও ডেপথ ক্যামেরাও রয়েছে। সেলফি তুলতে যারা ভালবাসেন তাদের জন্য সেরা পছন্দ হতে পারে এই ফোন কেননা ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা আছে এখানে। তাছাড়া ৪৪ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিংয়ের সাথে ৪৫০০ মিলিএম্প ব্যাটারিও আছে। ফোনটি বেশ শক্ত ডিজাইনের, তাই বহুদিন সার্ভিস দিতে পারবে বলেও আশা করা যায়। ৩০ হাজার টাকা থেকে কিছুটা বেশি মূল্যে এই ফোনটি বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। 

ভিভো ভি২৫ই এর দাম: ৩১,৯৯৯ টাকা

অপো এফ২১ প্রো – Oppo F21 Pro

অপো এফ২১ প্রো – Oppo F21 Pro

অপো এফ২১ প্রো প্রায় ভিভোর ভি ২৫ই এর মতোই স্পেক নিয়ে বাজারে এলেও পার্থক্য রয়েছে চিপসেটের ক্ষেত্রে। এতে আছে স্ন্যাপড্রাগনের নতুন প্রজন্মের ৬ ন্যানোমিটার চিপসেট ৬৮০। এই ফোনটি ৪ জি ফোন হলেও পারফর্মেন্সের দিক থেকে বেশ ভালো সেবা দিতে পারবে। সেই সাথে আছে অসাধারণ ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ। ভিভো ফোনটির মতোই এতেও আছে ৬৪ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা আর ৩২ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা।

তাই সাধারণ ফটোগ্রাফি বা সেলফি সবদিকেই এই ফোন বেশ পারদর্শী। ডিসপ্লে সেকশনে আছে ৬.৪৩ ইঞ্চির ৯০ হার্টজ অ্যামোলেড প্যানেল। এই ফোনের ক্যামেরার পিছনে একটি রিং লাইট রয়েছে যা অন্য কোনো ফোনে দেখা যায় না। ফোনের ডিজাইনটি বেশ প্রিমিয়াম এবং পিছনে লেদারের মতো টেক্সচার রয়েছে যা দেখতে বেশ স্টাইলিশ। তাছাড়া ৪৫০০ মিলিএম্প ব্যাটারি, আন্ডার ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট, ৩৩ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিংয়ের মতো প্রিমিয়াম ফিচারগুলো উপস্থিত। ৩০ হাজার টাকা বাজেটে নিঃসন্দেহে এটি অপোর সেরা ফোন।

অপো এফ২১ প্রো এর দাম: ২৮,২০০ টাকা

মটোরোলা এজ ২০ ফিউশন – Motorola Edge 20 Fusion

মটোরোলা এজ ২০ ফিউশন – Motorola Edge 20 Fusion

বাজারে মটোরোলা বেশ কিছু ভালো ফোন নিয়ে এলেও ৩০ হাজার টাকা বাজেটের মধ্যে এটি মটোরোলার সেরা ফোন বলা যায়। এই ফোনে মিডিয়াটেকের ডাইমেনসিটি ৮০০ইউ চিপসেট দিয়েছে মটোরোলা যা বাজারের অন্য প্রসেসর হতে কিছুটা কম শক্তিশালী হলেও দৈনন্দিন কাজ ও গেমিংয়ে ভালোই পারফর্মেন্স দিতে পারবে।

এছাড়াও ৬.৭ ইঞ্চির বড় ৯০ হার্টজের ওলেড ডিসপ্লে থাকায় ভিডিও দেখেও মজা পাবেন। ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ আছে পিছনে। এই বাজেটের অফিসিয়াল ফোনগুলোর মধ্যে সবথেকে বেশি ১০৮ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা দিচ্ছে এই ফোন। সাথে সেলফি ক্যামেরাও রয়েছে ৩২ মেগাপিক্সেলের। সুতরাং ফটোগ্রাফির জন্য এই ফোন বেশ ভালো একটি পছন্দ হতে পারে। ৫০০০ মিলিএম্প ব্যাটারি থাকায় সারাদিন ব্যাকআপ পেতেও সমস্যা হবে না। অফার প্রেস বাজারে এই ফোন ৩০ হাজার টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন। তাই এই ফোনটি ৩০ হাজার টাকা বাজেটে বিবেচনা করতে পারেন সহজেই।

মটোরোলা এজ ২০ ফিউশন এর দাম: ৩১,৫০০ টাকা

🔥🔥 গুগল নিউজে বাংলাটেক সাইট ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন তারপর ফলো করুন 🔥🔥

আরও জানুনঃ বর্তমানে বিশ্বের সেরা স্মার্টফোন তালিকা

ভিভো ভি২০ এসই – Vivo V20 SE

ভিভো ভি২০ এসই - Vivo V20 SE
ভিভো ভি২০ এসই

ভিভোর ফোন যাদের পছন্দ, তাদের জন্য আমাদের তালিকার এই অসাধারণ ফোনটি। বলছি ভিভো ভি২০ এসই ফোনটির কথা। এটি মুলত ভিভোর ভি২০ ফোনটির স্পেশাল এডিশন। ৬.৪৪ ইঞ্চির অ্যামোলেড ডিসপ্লে থাকছে ভিভো ভি২০ এসই ফোনটিতে।

ভিভো ভি২০ এসই তে থাকছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটাপ ও ৩২ মেগাপিক্সেলের অসাধারণ সেল্ফি ক্যামেরা। সেল্ফি লাভারদের জন্য ২৫ হাজার টাকার মধ্যে ভিভো ভি২০ এসই ফোনটি পারে সেরা পছন্দ।

ভিভো ভি২০ এসই এর ৪১০০ মিলিএম্প এর ব্যাটারি ৩০ মিনিটে ৬২ শতাংশ চার্জ করা যায় ৩৩ ওয়াট এর ফ্ল্যাশচার্জার দ্বারা। ফোনটির প্রসেসর কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৬৫ তেমন শক্তিশালী না হলেও ৮ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজ এর কম্বো ফোনটির ইউজার এক্সপেরিয়েন্সে কোনো বাধার সৃষ্টি করবে না।

ভিভো ভি২০ এসই এর দামঃ ২২,৫০০ টাকা

রিয়েলমি ৮ ৪জি – Realme 8 5G

আমাদের এই তালিকার একমাত্র ৫জি কানেক্টিভিটি সাপোর্টেড স্মার্টফোন হলো রিয়েলমি ৮ ৫জি এডিশন। ফোনটির একটি ৪জি ভার্সন রয়েছে, যা মিডিয়াটেক এর হেলিও জি৯৫ প্রসেসর যুক্ত। তবে রিয়েলমি ৮ ৫জি এডিশনে নতুন প্রসেসর, মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৭০০ এর কল্যাণেই যুক্ত হয়েছে ৫জি সুবিধা।

realme 8 5g

রিয়েলমি ৮ ৫জি তে রয়েছে ৪৮মেগাপিক্সেলের থ্রিপল ক্যামেরা সেটাপ। ৫০০০মিলিএম্প এর ব্যাটারির ফোনটিতে থাকছে ৮জিবি র‍্যাম ও ১২৮জিবি স্টোরেজ। এছাড়াও ফোনটির ৬.৫ইঞ্চির ডিসপ্লে ৯০হার্‌জ রিফ্রেশ রেট সাপোর্টেড।

রিয়েলমি ৮ ৫জি এর দামঃ ২২,৯৯০টাকা

শাওমি রেডমি নোট ১০ প্রো – Xiaomi Redmi Note 10 Pro

শাওমি রেডমি নোট ১০ সিরিজের প্রো ভার্সনটি বাজেটের মধ্যে সকল প্রয়োজন মেটাতে সক্ষম। অসাধারণ ডিজাইন ও দারুণ সব ফিচারে ভরা রেডমি নোট ১০ প্রো।

redmi note 10 pro
শাওমি রেডমি নোট ১০ প্রো

কোয়াড ক্যামেরা সেটাপের ফোনটিতে রয়েছে ৫০২০ মিলিএম্প এর ব্যাটারি, যা নোট ১০ এর মতো ৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্টেড। এছাড়াও ফোনটির ৬.৬৭ ইঞ্চির সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লেটি ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট সাপোর্টেড।

মোট ৪টি ভ্যারিয়েন্টে পাওয়া যাবে শাওমি রেডমি নোট ১০ প্রো। রেডমি নোট ১০ প্রো এর বিভিন্ন ভ্যারিয়েন্ট এর দামসমুহ হলোঃ

  • ৬৪মেগাপিক্সেল ক্যামেরা + ৬জিবি র‍্যাম + ৬৪জিবি স্টোরেজ – ২৫,৯৯৯ টাকা
  • ৬৪মেগাপিক্সেল ক্যামেরা + ৬জিবি র‍্যাম + ১২৮জিবি স্টোরেজ – ২৬,৯৯৯ টাকা
  • ১০৮মেগাপিক্সেল ক্যামেরা + ৬জিবি র‍্যাম + ৬৪জিবি স্টোরেজ – ২৬,৯৯৯ টাকা
  • ১০৮মেগাপিক্সেল ক্যামেরা + ৬জিবি র‍্যাম + ১২৮জিবি স্টোরেজ – ২৭,৯৯৯ টাকা।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এ৩২  – Samsung Galaxy A32

যারা স্যামসাং ফোন ভালোবাসেন, তাদের জন্য অসাধারণ একটি ফোন হতে পারে স্যামসাং গ্যালাক্সি ৩২। ফোনটির অসাধারণ ডিজাইন যে কারো নজর কাড়তে বাধ্য। ফোনটির ৬.৪ইঞ্চির সুপার অ্যামোলেড ডিসপ্লেটি ৯০ হার্জ রিফ্রেশ রেট সাপোর্টেড।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এ৩২

স্যামসাং গ্যালাক্সি এ৩২ ফোনটিতে রয়েছে কোয়াড ক্যামেরা সেটাপ। থাকছে ২০ মেগাপিক্সেলের সেল্ফি ক্যামেরা। ৫০০০মিলিএম্প এর ব্যাটারির ফোনটিতে রয়েছে ৬ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজ।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এ৩২ এর দামঃ ২৬,৯৯৯ টাকা

স্যামসাং গ্যালাক্সি এফ২৩ – Samsung Galaxy F23

স্যামসাং গ্যালাক্সি এফ২৩ দিচ্ছে ৫জি ফোনে দারুণ চমক

মিড-রেঞ্জ বাজেটে বর্তমানে স্যামসাং বেশ শক্ত অবস্থানে রয়েছে। ৩০হাজার টাকার মধ্যে অল-রাউন্ডার একটি ফোন হলো স্যামসাং এর স্যামসাং গ্যালাক্সি এফ২৩। ৫০মেগাপিক্সেল ক্যামেরার পাশাপাশি ৫জি সুবিধাও রয়েছে ফোনটিতে। অর্থাৎ বাজেটের মধ্যেই পেয়ে যাচ্ছেন পারফরম্যান্স ও ক্যামেরা উভয়ই। স্ন্যাপড্রাগন ৭৫০জি রয়েছে ফোনটিতে, যার ফলে পারফরম্যান্স ও ৫জি সুবিধা পেয়ে যাচ্ছেন ফোনটি থেকে।

স্যামসাং গ্যালাক্সি এফ২৩ ৫জি এর দাম ২০,৫৯৯টাকা

পোকো এক্স৩ প্রো – Poco X3 Pro

৩০ হাজার টাকা বাজেটের মধ্যে ফ্ল্যাগশিপ গ্রেডের স্মার্টফোন পারফরম্যান্স দিতে পারে, এমন ফোন দেশের বাজারে অফিসিয়ালি পাওয়া যাচ্ছে। কথা বলছি পোকো এক্স৩ প্রো ফোনটিকে নিয়ে।

পোকো এক্স৩ প্রো

মাত্র ২৯,৯৯০ টাকার ফোন, পোকো এক্স৩ প্রো এর ৬ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্ট দেশের বাজারে অফিসিয়ালি পাওয়া যাচ্ছে। ফোনটিতে কোয়ালকমের লেটেস্ট ও গ্রেটেস্ট চিপসেট, স্ন্যাপড্রাগন ৮৮৮ এর না থাকলেও, থাকছে শক্তিশালি স্ন্যাপড্রাগন ৮৬০ প্রসেসর। স্ন্যাপড্রাগন ৮৮৮ এর মতো অনেক পাওয়ারফুল না হলেই যেকোনো ধরনের অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীকে সন্তুষ্ট করতে সক্ষম পোকো এক্স৩ প্রো ফোনটির পারফরম্যান্স।

পোকো এক্স৩ প্রো ফোনটিতে রয়েছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের কোয়াড ক্যামেরা সেটাপ। ফোনটিতে রয়েছে ২০ মেগাপিক্সেলের সেল্ফি ক্যামেরা। ৫১৬০ মিলিএম্প ব্যাটারি ও ৬.৬৭ ইঞ্চির ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেটযুক্ত ডিসপ্লের ফোন, পোকো এক্স৩ প্রো ৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করে।

পোকো এক্স৩ প্রো এর দামঃ ২৯,৯৯৯ টাকা

👉 নকিয়া ফোনের দাম জানুন

উল্লেখ্য যে, ৩০ হাজার টাকার সেরা ফোনের এই তালিকার সকল ফোনের দাম নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে সংগ্রহিত। সময়ের সাথে বদলাতে পারে স্মার্টফোনগুলোর দাম। ফোনগুলোর আপডেট প্রাইস জানতে ভিজিট করতে পারেন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট।

📌 পোস্টটি শেয়ার করুন! 🔥

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 8,561 other subscribers

1 Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *