ইউটিউব থেকে ইসলাম বিদ্বেষী মুভি ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ মুছে ফেলার নির্দেশ দিল মার্কিন আদালত

youtube 658ইসলাম বিদ্বেষী মুভি ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ এর ভিডিও ক্লিপ ইউটিউব থেকে মুছে ফেলতে সাইটটিকে নির্দেশ দিয়েছে মার্কিন আদালত। বুধবার অ্যামেরিকার একটি ফেডারেল আপিল কোর্ট গুগলের মালিকানাধীন ভিডিও শেয়ারিং সাইট ইউটিউবকে এই আদেশ দেয়।

সানফ্রানসিসকো থেকে জারিকৃত ঐ রুলিংয়ে বলা হয়, উল্লিখিত ভিডিও ক্লিপটি ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ মুভির অভিনেত্রী সিন্ডি লি গার্সিয়ার অভিনীত চরিত্রের প্রতি কপিরাইট ভঙ্গ করে। ফলে ছবিটির নির্মাতা ছাড়াও অভিনেত্রী নিজেই ঐ ফিল্মের ভিডিও ক্লিপ মুছে ফেলার দাবী জানাতে পারেন।

তুমুল বিতর্কিত মুভিটি সম্পর্কে গার্সিয়া বলেন, ছবিটিতে তার সাথে প্রতারণা করা হয়েছে। এর যে স্ক্রিপ্ট তাকে দেয়া হয়েছিল তাতে মুসলিম কিংবা মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর কোনও উল্লেখ ছিলনা। এমনকি অভিনয় শেষে গার্সিয়ার কণ্ঠও ডাবিং করে পরিবর্তন করা হয়েছিল। আর এজন্যই ক্লিপটি মুছে ফেলার জন্য মামলা করেছিলেন তিনি।

আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে, ২০১২ সালের ২৩ জুন যুক্তরাষ্ট্রে মুক্তি পায় ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ যা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পরার পর পরই মুসলিম বিশ্বে বিক্ষোভ শুরু হয়। এই মুভিতে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। এ নিয়ে মুসলিম বিশ্বে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে যার ফলশ্রুতিতে কয়েকজনের প্রাণহানিও হয়েছিল।

তখন হোয়াইট হাউস থেকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও সমালোচিত ঐ ভিডিও ক্লিপ মুছে ফেলতে ইউটিউবকে অনুরোধ করেন। কিন্তু ‘বাকস্বাধীনতা’র দোহাই দিয়ে গুগল ঐ ভিডিও ক্লিপগুলি সরিয়ে ফেলতে অস্বীকৃতি জানায়। ইউটিউব আরও জানায়, ‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ সাইটটির নীতিমালা ভঙ্গ করেনা।

‘ইনোসেন্স অব মুসলিমস’ এর ভিডিও ক্লিপ সাইট থেকে না সরানোয় ২০১২ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর রাতে বাংলাদেশ থেকে ইউটিউব এক্সেস ব্লক করে দেয় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি); সরকারের পক্ষ থেকে বিটিআরসি এ ব্যাপারে পূর্বে গুগলকে চিঠি দিলেও তাতে কাজ না হওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন। এরপর ২০১৩ সালের ৫ জুন বুধবার বিকেল থেকে বাংলাদেশে পুনরায় ইউটিউব এক্সেস চালু করা হয়

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 4,256 other subscribers

Comments