প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে ইউরোপে চাপের মুখে গুগল

google-corporate-office-headquartersইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) কর্মকর্তারা ওয়েব কোম্পানি গুগলের বিরুদ্ধে ব্যবহারকারী গোপনীয়তা লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে এই গ্রীষ্মে আইনী ব্যবস্থা নেয়ার পরিকল্পনা করছে বলে জানিয়েছে ফ্রান্সের প্রাইভেসি রেগুলেটর সিআইএনএল। গত মার্চ মাস থেকে গুগল তাদের পুরো প্ল্যাটফর্ম থেকে সার্চ এবং অন্যান্য সেবা সম্পর্কিত ব্যবহারকারীর দেয়া তথ্য সংগ্রহে রাখছে এবং এসব ডেটা বিজ্ঞাপনদাতের স্বার্থে ব্যবহৃত হবে ইইউ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ আশঙ্কা করছেন।

২০১২ সালের অক্টোবরে ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে গুগলকে তার গোপনীয়তা নীতি পরিবর্তন করে গ্রাহক বান্ধব পলিসিতে রূপ দেয়ার জন্য চার মাসের সময় বেঁধে দেয়া হয়েছিল। কোম্পানিটি বলছে তারা এ ব্যাপারে কাজ করেছে এবং তা ইইউ আইনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হয়েছে।

ইইউ গ্রাহকের সুবিধার জন্য গুগলকে “কোন অবস্থায় তথ্য দেয়া হবে” তা নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি আলাদা বাটন চালু করার পরামর্শ দিয়েছিল। এছাড়া গুগলের কোন সেবায়, কি কারণে তথ্য নেয়া হবে সেসব বিষয়ের নিয়ন্ত্রণ ব্যবহারকারীর ইচ্ছের ওপর রেখে দিতে বলা হয়েছিল। কিন্তু কর্তৃপক্ষ বলছে এগুলো সম্পন্ন করেনি ঐ ওয়েব ফার্ম।

সিআইএনএল জানাচ্ছে নিয়ন্ত্রক কমিশন যেসব বিষয়ে সংশোধনী চেয়েছিল ইন্টারনেট কোম্পানিটি এখনও তা পূরণ করেনি। “গুগল কোন স্পষ্ট এবং কার্যকর উত্তর দেয়নি। এমতাবস্থায় ইইউ তথ্য রক্ষাকারী (ডেটা প্রোটেকশন) কর্তৃপক্ষ পদক্ষেপ নেয়া এবং অনুসন্ধান চালনোয় অঙ্গীকারবদ্ধ। এ কারণেই তারা সিআইএনএলের নেতৃত্বে গৃষ্মের আগেই একটি দল গঠন করতে চায় যা সার্চ কোম্পানিটির প্রতিক্রিয়া ও কর্তৃপক্ষের সাথে সমন্বয় সাধন করবে”।

গুগল দাবী করেছে যে, তারা ইউরোপীয় আইনের প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়েছে এবং সামনের দিকে সিআইএনএলের সাথে সহযোগিতা করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছে।

যে নতুন প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে কথা হচ্ছে সেটি আসলে গুগলের পূর্ববর্তী ৬০টি গোপনীয়তা নীতি একসাথে করে একটি একক সম্মতি (এগ্রিমেন্ট), যা নিয়ে এর আগেও সমালোচিত হয়েছে এই সার্চ সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 4,806 other subscribers

Comments