এবার ৫ প্রতিষ্ঠানকে ফোরজি লাইসেন্স দিচ্ছে বিটিআরসি!

4gকিছুদিন আগেই ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে থ্রিজি প্রযুক্তির লাইসেন্স নিয়েছে বাংলাদেশের ৫ মোবাইল অপারেটর কোম্পানি। এর রেশ কাটতে না কাটতেই এবার পাঁচ প্রতিষ্ঠানকে আরও দ্রুত গতির তারবিহীন ইন্টারনেট প্রযুক্তি ফোরজি লাইসেন্স দিতে যাচ্ছে বিটিআরসি।

লং টার্ম ইভল্যুশন বা ‘এলটিই’ নামেও পরিচিত এই সেবা দেশে আরও সুলভে ইন্টারনেট দেবে বলে আশা করছেন বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোস। বিডিনিউজ২৪ ডটকম মিঃ বোসের উক্তিতে জানাচ্ছে, “দেশে ইন্টারনেট আরো সহজলভ্য করতেই ৫ প্রতিষ্ঠানকে ‘এলটিই’ লাইসেন্স দেয়ার এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।”

রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিযোগাযোগ কোম্পানি বিটিসিএল, বাংলাদেশ ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ লিমিটেড (বিআইইএল), বাংলালায়ন, কিউবি, এবং ম্যাংগো এই সেবা চালুর লাইসেন্স পাচ্ছে। লাইসেন্স বাবদ এই প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানকে গুণতে হবে ২৪৬ কোটি টাকা।

রাশিয়ান প্রতিষ্ঠান মাল্টিনেটের মালিকাধীন বাংলাদেশ ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ লিমিটেড (বিআইইএল) ইতোমধ্যেই ২৪৬ কোটি টাকা প্রদান করে এলটিই লাইসেন্স ও ২৬০০ ব্যান্ডে তরঙ্গ বরাদ্দ পেয়েছে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক বিটিআরসি কর্মকর্তা।

সুনীল কান্তি বোস বলেন, “নীতিমালা অনুযায়ী এই অপারেটর কেবল ডেটা সার্ভিস দিতে পারবে, কোনভাবেই ভয়েস সার্ভিস দিতে পারবে না।”

ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব আবু বকর সিদ্দিক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ওয়াইম্যাক্স প্রযুক্তি পুরনো হয়ে যাওয়ায় প্রতিষ্ঠানগুলোকে নতুন প্রযুক্তিতে নিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।”

মোবাইল অপারেটরদের অভিযোগ, প্রতি মেগাহার্টজ থ্রিজির মূল্য যেখানে ২ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার (২১০০ ব্যান্ড) ছিল, সেখানে তুলনামূলকভাবে খুব কম দামেই ওয়াইম্যাক্স অপারেটররা আরো আধুনিক (২৬০০ ব্যান্ড) প্রযুক্তিতে চলে যাচ্ছে।

এ ব্যাপারে বিটিআরসি চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোস বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “সব ধরনের নিয়মনীতি অনুসরন করেই এ লাইসেন্স দেয়া হচ্ছে, এর ফলে মোবাইল অপারেটরদের ব্যবসায় ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা নেই।”

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 4,085 other subscribers

Comments