নকিয়া লুমিয়া ১৫২০ রিভিউ

IMG_9761

লুমিয়া সিরিজের উইন্ডোজ ফোনগুলো দেখতে সবসময়ই ভাল লাগে। আর মাইক্রোসফট এর তৃতীয় আপডেটে উইন্ডোউজ ফোন ওএসকে ১০৮০পি ডিসপ্লের সাপোর্ট দেওয়ায় লুমিয়া ডিভাইসের সাথে আরও একটি নতুন ফিচার যুক্ত হলো। আজকের পোস্টে আমরা লুমিয়া ১৫২০ এর সংক্ষিপ্ত রিভিউ দেখবো।

এটি একটি ৬ ইঞ্চি ১০৮০পি ডিসপ্লের মোবাইল। মাইক্রোসফট ও নকিয়া তাদের আগের উইন্ডোজ ফোনগুলোতে “good” স্পেসিফিকেশনস দিলেও, তারা এবার লুমিয়া ১৫২০ -এ “best yet” ফিচার দিয়েছে। দেখা যাক এত ভালো হার্ডওয়ার নিয়ে উইন্ডোউজ ফোন ৮ কেমন পারফমেন্স করে! চলুন দেখে নি!

হার্ডওয়্যার

লুমিয়া ১৫২০ ফোনটি নোকিয়ার আগের সকল লুমিয়া ফোন গুলোর মতোই! কিন্তু এর একটি বিশেষ আকর্ষণ হচ্ছে ৬” ডিসপ্লে হলেও এটি এইচটিসি ওয়ান -এর থেকে চিকন! ১৫২০ এর সরু, মোটা ও লম্বা কার্ভড সাইড গুলোকে ধন্যবাদ! লুমিয়া ১০২০ এর থেকে ১৫২০ এর সাইড গুলো আরো গোল। এই ফোনে আছে একটি ২০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা আছে। ঠিক এরকম ক্যামেরাই ছিল লুমিয়া ৯২৫-এ! ক্যামেরাটির ঠিক উপরে আছে একটি এলইডি ফ্ল্যাস। তাছাড়া ফোনটির নিচে রয়েছে গ্রিল দিয়ে ডাকা এনএফসি। এনএফসি দিয়ে আপনি ওয়্যারলেস চার্জার, স্পিকার ব্যবহার করতে পারবেন।

অন্য কিছুতে যাওয়ার আগে আপনাদেরকে প্রথমেই বলে দেই যে, নোকিয়া এই ফোনটিতে ৪টি মাইক্রফোন রেখেছে। তারা মোবাইলটির পেছনে ২টি মাইক্রফোন রেখেছে। এটি তারা রেখেছে ভিডিও রেকর্ডিং এর জন্য। বিশেষ করে কনসার্ট এর জন্য।

ফোনটির বাম পাশে আপনি পাবেন একটি মাইক্রো এসডি কার্ড রিডার (৬৪ জিবি পর্যন্ত মেমরি এক্সপ্যান্ড করতে পারবেন) তাছাড়া আছে একটি সিম স্লট,যার সাইজ আইফোন ৫/৫এস এর মতো। হেডফোন জ্যাকের সাইজ ৩.৫ মিমি।আর মোবাইলের নিচের প্রান্তে রয়েছে একটি ইউএসবি পোর্ট।

ক্যামেরা

লুমিয়া ১৫২০ এর ক্যামেরা ৯২৫ এর মতো। এর পেছনে রয়েছে ২০ মেগাপিক্সেল (পিওরভিউ) ও সামনে ৩.২ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা। আরও আছে নোকিয়া কিছু নতুন এ্যাপ যেমন- নোকিয়া রিফোকাস, নোকিয়া প্রো ক্যামেরা। নোকিয়া রিফোকাস একদম নতুন! এই এ্যাপটি দিয়ে আপনি ছবি তোলার পর যেকোনো জায়গায় ফোকাস করতে পারবেন!

প্রসেসর

নোকিয়ায় এই লুমিয়াটিতে রয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৮০০!  অন্য উইন্ডোউজ ফোন গুলোতে এ্যাপ লোড হতে কিছু সময় নিলেও এতে খুবই কম সময় নেয়। এই ক্ষেত্রে এই ফোন ১০ এ ১০ পাবে!

আপনি যদি উইন্ডোজ ফোনের একজন বড় ফ্যান হন তাহলে এই মোবাইলটি ব্যবহার না করলে অনেক কিছু মিস করবেন! তাছাড়া আপনি একটি ভালো স্ক্রিনও পাচ্ছেন, যেটি আমাদের দেশে রোদের আলোতে খুব ভালো করেই ব্যবহার করতে পারবেন। এই ফোনটি ইউরোপের কিছু দেশে ২২ নভেম্বর বাজারে ছাড়া হবে। তবে এটি বাংলাদেশে আরো ৪-৫ মাস পরে আসবে। এর দাম ৭৫০ ডলারের মত হতে পারে।

আশা করি আপনারা আমাদের রিভিউটি পছন্দ করেছেন! নিম্নের কমেন্ট বক্সে আপনাদের মতামত ও রেটিং বক্সে এই মোবাইলটিকে রেট করুন!

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,410 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.