গ্যালাক্সি এস৪’কে পেছনে ফেলে স্পিডের রেকর্ড গড়ল আইফোন ৫এস!

iphone and other android phones comparedযুক্তরাজ্যের গবেষণামূলক প্রতিষ্ঠান “হুইচ?” এর সাম্প্রতিক এক পরীক্ষণ ফলাফল অনুযায়ী অ্যাপল আইফোন ৫এস হচ্ছে “এ পর্যন্ত টেস্ট করা বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুতগতির স্মার্টফোন”; অ্যাপল, স্যামসাং, এইচটিসি ও এলজি নির্মিত বিভিন্ন মডেলের হ্যান্ডসেটের ওপর পরিচালিত বেঞ্চমার্ক স্কোরিংয়ে এই তথ্য উঠে এসেছে। অ্যাপল আইওএসের সাথে স্পিডে এবার আর গুগলের এন্ড্রয়েড চালিত স্মার্টফোনগুলো পারলনা।

উক্ত তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে এলজির জি২, তৃতীয় স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি এস৪, চতুর্থ এইচটিসি ওয়ান ও পঞ্চম স্থানে রয়েছে গ্যালাক্সি এস৪ মিনি। এতে সবচেয়ে ধীরগতির ফোন হিসেবে স্থান পেয়েছে এইচটিসি ওয়ান মিনি।

প্রতিদ্বন্দ্বী এন্ড্রয়েড স্মার্টফোনের তুলনায় সবচেয়ে দ্রুত আইফোন ৫এস!

রিসার্স ফার্মটি বলছে, আইফোন ৫এসে আছে ১.৩ গিগাহার্টজ ডুয়াল কোর প্রসেসর। অপর দিকে গ্যালাক্সি এস৪ সহ আইফোন ৫এসের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী ডিভাইসগুলোতে রয়েছে কোয়াড কোর সিপিইউ। “হুইচ?” এর মতে প্রসেসরের কোর সংখ্যা বেশি হলেই তার পারফরমেন্স ভাল হবে এমন কোন কথা নেই। তাই তারা সকল স্মার্টফোনের জন্য একটি আদর্শ পরীক্ষণ পদ্ধতি ব্যবহার করে থাকে যা ডিভাইসের মেমোরি ও সিপিইউর সম্মিলিত কার্যক্ষমতাকে “গিকবেঞ্চ” স্কোরে প্রকাশ করে। যে ডিভাইসের গিকবেঞ্চ স্কোর যত বেশি, সেটি তত দ্রুত গতিসম্পন্ন হবে।

সর্বশেষ এই র‍্যাংকিংয়ের ফলাফল অনুযায়ী ৭টি স্মার্টফোন মডেলের সিঙ্গেল কোর ও মাল্টি কোর পারফরমেন্স স্কোর এখানে তুলে ধরা হল। এক্ষেত্রে প্রথম স্কোরটি সিঙ্গেল ও দ্বিতীয়টি মাল্টিকোর ইউসেজের জন্য প্রাপ্তঃ

  • ১. অ্যাপল আইফোন ৫এস: ১৪১০-২৫৬১
  • ২. এলজি জি২: ৮৮২-২৩৫৫
  • ৩. স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৪: ৬৮৭-১৯৩৯
  • ৪. এইচটিসি ওয়ান: ৬৪৩-১৮০৫
  • ৫. অ্যাপল আইফোন ৫সি: ৭১১-১২৮১
  • ৬. স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৪ মিনি: ৬৪৯-১১৩৫
  • ৭. এইচটিসি ওয়ান মিনি: ৪৭৭-৮৮০

চলতি বছর জুন মাসে একই প্রতিষ্ঠানের করা এক বেঞ্চমার্ক টেস্টে (গিকবেঞ্চ স্কোরে) প্রথম স্থান দখল করেছিল স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৪; তখন বাজারের লেটেস্ট অ্যাপল আইফোন ৫ এর গিকবেঞ্চ অবস্থান ছিল ৭ নম্বরে।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 4,682 other subscribers

Comments