এই চিঠিটি ফেসবুকে একজন মা তার ছেলেকে শাসন করতে লিখেছেন

fb letter

সম্প্রতি ফেসবুকে একজন মা তার ১৩ বছর বয়সী বেয়াড়া ছেলেকে শাসন করার জন্য তাকে উদ্দেশ্য করে ফেসবুকে একটি চিঠি প্রকাশ করেন। যদিও তিনি চেয়েছিলেন এটা শুধু তার পরিবারের মধ্যেই থাকবে, কিন্তু অনলাইনে ‘পাবলিক’ অবস্থায় থাকায় চিঠিটি এখন বিশ্বজুড়ে আলোচিত হচ্ছে। ছেলেটি তার মাকে একজন ‘রুমমেট’ হিসেবে ভাবতে শুরু করেছিল। চলুন দেখি ‘অ্যারন’ নামের ছেলেটির উদ্দেশ্যে চিঠিতে তিনি কী লিখেছিলেন (সারকথা):

“প্রিয় অ্যারন,

যেহেতু অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে তুমি ভুলে গেছো যে আমি তোমার মা, আর তোমার বয়স মাত্র ১৩ বছর, এবং তুমি কারও কথা শুনবে না, আমার মনে হয় তোমার স্বাধীনতার ব্যাপারে একটা শিক্ষা হওয়া দরকার। তুমি আমাকে মুখের উপর এটাও বলেছো যে, তুমি এখন উপার্জন করছো, সুতরাং অতীতে তোমার জন্য আমি যা যা কিনেছি সেগুলোও তুমি নিজ থেকেই কিনে নিতে পারবে।

তুমি যদি তোমার লাইটবাল্ব/বাতি কিংবা ইন্টারনেট সংযোগ পছন্দ করে থাকো, তাহলে সেগুলো ব্যবহার করতে চাইলে তোমাকে এজন্য (আমাকে) খরচ দিতে হবে।

বাড়ী ভাড়াঃ ৪৩০ ডলার

বিদ্যুৎ বিলঃ ১১৬ ডলার

ইন্টারনেট বিলঃ ২১ ডলার

খাবার খরচঃ ১৫০ ডলার

এছাড়া তোমাকে সোমবার, বুধবার ও শুক্রবার ডাস্টবিন পরিষ্কার করতে হবে, সপ্তাহে এক দিন বাথরুম পরিষ্কার করতে হবে এবং নিজের খাবার তৈরি করতে হবে। যদি তুমি তা করতে ব্যর্থ হও এবং আমাকেই যদি তা করতে হয় তাহলে প্রত্যেকবারের জন্য আমাকে ৩০ ডলার করে ফি দিতে হবে।

তুমি যদি আমার সাথে একজন রুমমেট হিসেবে না থেকে বরং আমার সন্তান হিসেবে থাকতে চাও, তাহলে আমরা আলোচনা করে উপরের শর্তগুলো পরিবর্তন করতে পারি”

যদিও এই চিঠি নিয়ে ফেসবুকে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে, তবে এটি কাজে লেগেছে। পরে ছেলেটির  মা ফেসবুকে এক পোস্টে বলেন, “এটা এখনও অগ্রগতির  পথেই আছে। এ ঘটনা গত সপ্তাহেই ঘটেছে। যদিও এটা একটু ভিন্নতা ঘটিয়েছে। আমি যখন তাকে কিছু করতে বলেছি, সে আমার কথা মেনেছে।”

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,422 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.