ফরেক্স ট্রেডিং কি ও কিভাবে কাজ করে?

ফরেক্স বা ফরেক্স ট্রেডিং এর নাম কমবেশি সবাই হয়ত শুনেছেন। কিন্তু অনেকেই ফরেক্স কিভাবে কাজ করে বা কিভাবে ফরেক্স ট্রেডিং করতে হয় সেই সম্পর্কে তেমন একটা কিছুই জানিনা। চলুন জেনে নেয়া যাক Forex Trading বা ফরেক্স ট্রেডিং কি, ফরেক্স ট্রেডিং এর কার্যক্রম, ঝুঁকি, বৈধতা, ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত। এই পোস্টে আপনাকে ফরেক্স এ উৎসাহিত বা নিরুৎসাহিত করা উদ্দেশ্য না। বরং আপনাকে কিছু তথ্য জানানো যাতে আপনার জানার পরিধি বৃদ্ধি পায়।

ফরেক্স ট্রেডিং কি? – What is Forex Trading?

ফরেক্স ট্রেডিং এর ফরেক্স মানে হলো ফরেন এক্সচেঞ্জ (Foreign Exchange) যার মানে দাঁড়ায় বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেন। অর্থাৎ একদম সহজ ভাষায় বিদেশী মুদ্রার আদানপ্রদানকেই ফরেক্স ট্রেডিং হিসেবে গণ্য করা হয়। ফরেন এক্সচেঞ্জ FX ও ফরেক্স নামেও পরিচিত। ২০১৯ সালের এপ্রিল মাসের হিসাবে বিশ্বব্যাপী প্রতিদিন ৬.৬ট্রিলিয়ন ফরেন এক্সচেঞ্জ সেটেলমেন্ট করা হয়। ফরেক্স মার্কেট হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ফাইন্যানসিয়াল মার্কেট।

কমার্স, ট্রেডিং বা ট্যুরিজম এর মত জনপ্রিয় সেক্টরগুলোতে এক দেশের মুদ্রা অন্য দেশের মুদ্রায় পরিণত করার ব্যাপারটি দারুণভাবে যুক্ত বলে ফরেন এক্সচেঞ্জ বা ফরেক্স এতো জনপ্রিয়।

ফরেক্স ট্রেডিং কিভাবে কাজ করে

চলুন আরেকটু ভালোভাবে বুঝে নেওয়া যাক ফরেক্স ট্রেডিং এর কাজ সম্পর্কে। ধরুন, ‘ক’ থাকেন আমেরিকাতে। সেক্ষেত্রে তিনি যদি ফ্রান্স থেকে কোনো প্রোডাক্ট অর্ডার করুন, সেক্ষেত্রে তাকে ইউরোতে পে করতে হবে। কিন্তু তার মুদ্রা কিন্তু মার্কিন ডলার। সেক্ষেত্রে সে তার কাছে থাকা ডলারকে ইউরোর সমান মুদ্রায় পরিণত করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন ফরেক্স ট্রেডিং এর সাহায্যে। 

আবার পিরামিড দেখতে মিশরে যাওয়া ফ্রান্সের মানুষ টিকিটের পেমেন্ট তার দেশের মুদ্রার মাধ্যমে করতে পারবেনা। সেক্ষেত্রে ফ্রান্সের দর্শনার্থীকে তার কাছে থাকা ইউরোকে মিশরীয় পাউন্ডে রুপান্তর করে ব্যবহার করতে হবে। এগুলো খুবই সরল উদাহরণ।

ফরেক্স মার্কেট এর সবচেয়ে সেরা সুবিধা হলো ফরেন এক্সচেঞ্জের জন্য কোনো কেন্দ্রীয় মার্কেটপ্লেসের প্রয়োজন পড়েনা। ফরেন এক্সচেঞ্জ ইলেকট্রনিক্যালি পরিচালিত হয়, ওভার দ্যা কাউন্টার (ওটিসি) এর মাধ্যমে।

যেহেতু ফরেন এক্সচেঞ্জ বা ফরেক্স ট্রেডিং এর জন্য কোনো কেন্দ্রীয় মার্কেটপ্লেসের লাগে না, তাই এই মার্কেট সপ্তাহের ৫দিন (+ আরো অর্ধদিবস), ২৪ঘন্টাই খোলা থাকে। তবে টাইমজোনের কারণে ফরেক্স ট্রেডিং মার্কেটে উঠানামা দেখা যায়। যেমনঃ যুক্তরাষ্ট্রে যখন ট্রেডিং মার্কেট বন্ধ হয়, টোকিও ও হংকংয়ে তখন ওইদিনের ট্রেডিং মার্কেট শুরু হয়। যার মানে হলো ফরেক্স ট্রেডিং মার্কেট যেকোনো সময়ে সক্রিয় হয়। এবং মুদ্রার দামের ক্রমাগত পরিবর্তনের সম্ভাবনা সবসময়ই থাকে।

ফরেক্স ট্রেডিং কি ও কিভাবে কাজ করে

ফরেক্স ট্রেডিং সম্পর্কে যেসব ব্যাপার জানা উচিত

ফরেক্স ট্রেডিং এর ক্ষেত্রে কিছু গুরুত্বপূর্ণ টার্মস বা বিষয় সম্পর্কে জানা একান্ত জরুরি। ফরেক্স ট্রেডিং সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয়সমুহ সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো।

আরো জানুনঃ ফ্রিল্যান্সিং কি ও ফ্রিল্যান্সিং করে কিভাবে অনলাইনে আয় করবেন

ফরেক্স একাউন্ট

ফরেক্স অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে কারেন্সি এক্সচেঞ্জ করা হয়। লট সাইজের উপর নির্ভর করে তিন ধরনের ফরেক্স একাউন্ট হয়ে থাকে। যেমনঃ

  • মাইক্রো ফরেক্স অ্যাকাউন্টঃ এই ধরনের অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে প্রতি লটে ১০০০ ডলার পর্যন্ত ট্রেড করা যায়
  • মিনি ফরেক্স অ্যাকাউন্টঃ এই ধরনের অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে প্রতি লটে ১০,০০০ ডলার পর্যন্ত ট্রেড করা যায়
  • স্ট্যান্ডার্ড ফরেক্স অ্যাকাউন্টঃ এই ধরনের অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে প্রতি লটে ১০০,০০০ ডলার পর্যন্ত ট্রেড করা যায়।

উল্লেখ্য যে, প্রতি লটে যত বেশি ট্রেড করা যাবে, লেভারেজ এর জন্য তত বড় অংকের মুদ্রা ট্রেড করা যাবে।

আস্ক

আস্ক (Ask) হলো সর্বনিম্ন যে দামে কোনো গ্রাহক কারেন্সি কিনতে আগ্রহী। আস্ক প্রায়ই মূলত বিড প্রাইস থেকে বেশি হয়ে থাকে।

বিড

বিড (Bid) হলো যে দামে একজন সেলার কারেন্সি সেল করতে আগ্রহী। বায়ার এর রিকুয়েষ্টে একজন মার্কেট মেকার বিড স্থাপন করে থাকেন। বিড প্রাইস মূলত চাহিদার সাথে মিল রেখে ওঠানামা করে।

বেয়ার মার্কেট

যে মার্কেটে সকল কারেন্সির দাম কমে যায়, এমন মার্কেটকে বলা হয় বেয়ার মার্কেট (Bear Market)। বেয়ার মার্কেট মূলত ট্রেডিং মার্কেটের মন্দা ও অর্থনৈতিক সংকটের একটি প্রধান নির্দেশক।

বুল মার্কেট

বুল মার্কেট (Bull Market) হলো এমন একটি ট্রেডিং মার্কেট যেখানে সকল কারেন্সির দাম বেড়ে যায়। বুল মার্কেট দ্বারা কোনো মার্কেটের উন্নতি ও বৈশ্বিক অর্থনীতির উন্নতিকে নির্দেশ করা হয়।

আরো জানুনঃ বিকাশ রিওয়ার্ড কি ও কিভাবে পাবো?

লেভারেজ

লাভ বাড়াতে ধার করে ব্যবহার করা মূলধনকে বলা হয় লিভারেজ। ফরেক্স মার্কেট উচ্চ লেভারেজ দ্বারা প্রভাবিত হয়। ট্রেডারগণ প্রায়সই লেভারেজ ব্যবহার করে তাদের পজিশন বুস্ট করে থাকেন।

লট

কারেন্সি মূলত লট আকারে এক্সচেঞ্জ করা হয়ে থাকে। অর্থাৎ একটি নির্দিষ্ট অংকের অর্থকে ট্রেডিং করা হলে, ওই অর্থকে একত্রে বলা হচ্ছে লট। লট এর সাইজ যত বেশি হবে, লাভ ও ক্ষতির সম্ভাবনা একই সাথে বেশি হবে। উপরে আমরা যে স্ট্যান্ডার্ড, মিনি, মাইক্রো একাউন্টের কথা বললাম ওগুলো লট সাইজ হিসেবেও ব্যবহৃত হয়।

মার্জিন

কারেন্সি ট্রেডিং এর জন্য আলাদা অ্যাকাউন্টে রাখা অর্থকে বলা হচ্ছে মার্জিন। আর্থিকভাবে ব্রোকারকে সচ্ছল রাখতে ও ট্রেডার এর দিক থেকে বাধ্যবাধকতা পূরণে সক্ষম হওয়ার ক্ষেত্রে মার্জিন বিশাল ভূমিকা পালন করে।

ফরেক্স ট্রেডিং এর সুবিধাসমুহ

ফরেক্স ট্রেডিং কেন করবো বা ফরেক্স কেন করবো – এসব যদি হয় প্রশ্ন, সেক্ষেত্রে উত্তরসমুহ যেকাউকেই স্বভাবতই ফরেক্স ট্রেডিংয়ের দিকেই আকৃষ্ট করবে। 

প্রথমত বর্তমানে ফরেক্স ট্রেডিং করতে অনেক ধনসম্পদের মালিক হওয়ার দরকার পড়ে না। যেকেউ মাত্র ৫০ ডলার ইনভেস্ট করেও ফরেক্স ট্রেডিং এ ট্রেডার হিসাবে কাজ শুরু করতে পারে। দিনদিন ফরেক্স ট্রেডিং এর চাহিদা ও জনপ্রিয়তা বাড়ছে।

আবার ফরেক্স ট্রেডিং করার জন্য আহামরি কোনো সরঞ্জামের প্রয়োজন নেই। আপনার কাছে থাকে ইন্টারনেটে যুক্ত যেকোনো ডিভাউস, যেমনঃ কম্পিউটার, ট্যাবলেট, এমনকি স্মার্টফোন এর সাহায্যেও ফরেক্স ট্রেডিং শুরু করা যাবে। একটি মোবাইল দিয়ে আয় করার উপায় হতে পারে ফরেক্স ট্রেডিং।

ফরেক্স ট্রেডিং মার্কেট এর ক্ষেত্রে একটি অসাধারণ ব্যাপার হলো কেউ সহজে এই বাজারকে ম্যানিপুলেট বা নিজের ইচ্ছেমত ওঠানামা করাতে পারে না।

ফরেক্স ট্রেডিং মার্কেটে যেহেতু আহামরি দামের ওঠানামা হয় না, সেক্ষেত্রে ট্রেডার যদি ক্ষতির সম্মুখীন হন সেক্ষেত্রে পরে আবার লাভ করতে বেশি সময়ও লাগবেনা। আবার গ্লোবাল মার্কেট হওয়ায় বিশ্বের যেকোনো স্থান থেকে ট্রেডিংও করা যায়। পাশাপাশি এউ মার্কেটের কোনো স্বত্বাধিকারী না থাকায় সরাসরি কেনা-বেচা করার স্বাধীনতা রয়েছে।

আপনার কাছে যদি সময় আর ফরেক্স ট্রেডিং সম্পর্কে যথেষ্ট জ্ঞান থাকে, সেক্ষেত্রে ফরেক্স ট্রেডিং করে আর্থিকভাবে সফলতা অর্জন করা সময়ের ব্যাপার।

ফরেক্স ট্রেডিং এর ঝুঁকি

ফরেক্স ট্রেডিং এর ক্ষেত্রে ঝুঁকি থেকেই যায়। আমরা আগেই জেনেছি যে ফরেক্স ট্রেডিং মার্কেটপ্লেস সবসময় উঠানামা করতে থাকে। সেই কারণে ফরেক্স ট্রেডিং সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা না নিয়ে এই ব্যবসায় নামা উচিত নয়। তাই কেউ যদি ফরেক্স ট্রেডিং শুরু করতে চায়, সেক্ষেত্রে অবশ্যই ফরেক্স ট্রেডিং এর খুঁটিনাটি সম্পর্কে ভালোভাবে বিস্তারিত জেনে নিতে হবে।

আরো জানুনঃ ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়

ফরেক্স ট্রেডিং করে আয়

আপনি যদি অনলাইনে আয় সম্পর্কে উৎসুকদের একজন হয়ে থাকেন তবে ফরেক্স ট্রেডিং করে আয় এর সম্পর্কে হয়তো আগেও শুনেছেন। তবে ফরেক্স ট্রেডিং করে আয় করার ব্যাপারটি যতটুকু সহজ শোনায়, বাস্তবিক পক্ষে এটি করা বেশ কঠিন।

ফরেক্স ট্রেডিং করে আয় করতে গেলে প্রয়োজন ইনভেস্টমেন্ট ও সময়ের। এই দুইটি প্রয়োজনীয় বিষয় একসাথে করে এরপর ফরেক্স ট্রেডিং মার্কেট সম্পর্কে একদম আপ-টু-ডেট থাকতে হবে। কেউ যদি ফরেক্স ট্রেডিংকে সাইড ব্যবসা হিসেবে চালাতে চায়, সেক্ষেত্রেও মার্কেট এনালাইজ করে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় দিতে হবে।

বাংলাদেশে ফরেক্স ট্রেডিং কি বৈধ?

ফরেন এক্সচেঞ্জ রেগুলেশন অ্যাক্ট ১৯৪৭ অনুসারে, বাংলাদেশে ফরেন কারেন্সি বা বৈদেশিক মুদ্রা আদানপ্রদান শুধুমাত্র বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক অথোরাইজড ডিলার বা মানি চেঞ্জার দ্বারা করা যাবে। অর্থাৎ বাংলাদেশ ব্যাংক এর অনুমোদনবিহীন উপায়ে কেউ যদি ফরেক্স ট্রেডিং করে, সেক্ষেত্রে সেটা বেআইনি এবং দন্ডযোগ্য অপরাধ।

এক কথায় আমরা বলতে পারি, বাংলাদেশে ফরেক্স ট্রেডিং অবৈধ নয় তবে তা অবশ্যই বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়মনীতি অনুসারে হতে হবে। আরো জানতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 7,421 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.