উইন্ডোজ ১১ আপনার পিসিতে চলবে কিনা জেনে নিন

windows 11 logo

যদিও উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের শেষ ভার্সন হওয়ার কথা ছিল উইন্ডোজ ১০, কিন্তু সময়ের সাথে অনেক কিছুই বদলে যায়। মাইক্রোসফট এবং কোম্পানিটির সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যাপারে খোঁজ রাখলে এতক্ষণে নিশ্চয়ই এর মানে উপলব্ধি করতে পারছেন। তো, গত ২৪ জুন উইন্ডোজ ১১ প্রকাশ করেছে মাইক্রোসফট।

নতুন নতুন ফিচার নিয়ে এলেও সেই সাথে এসেছে নতুন সিস্টেম রিকোয়্যারমেন্ট। অর্থাৎ, এখন আপনাকে চিন্তা করতে হবে যে উইন্ডোজ ১১ আপনার কম্পিউটারে চলবে কি না।

আপনার পিসি উইন্ডোজ ১১ এর জন্য প্রস্তুত কি না তা জানার জন্যই এই পোস্ট। এটা পরীক্ষা করার জন্য মাইক্রোসফটের ছোট্ট একটি টুল রয়েছে যার মাধ্যমে সহজেই এই প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে।

প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক উইন্ডোজ ১১ এর ব্যাসিক সিস্টেম রিকোয়্যারমেন্ট। এক্ষেত্রে কমপক্ষে চার গিগাবাইট র‍্যাম, ৬৪ গিগাবাইট সিস্টেম ড্রাইভ স্টোরেজ (সহজভাবে বললে সি ড্রাইভ), এবং ১ গিগাহার্টজ বা তার বেশি দুই বা ততোধিক কোর বিশিষ্ট ৬৪ বিট প্রসেসর দরকার হবে। এছাড়া টিপিএম ২ সিস্টেম ফার্মওয়্যারও দরকার হবে। তবে আপনার এত কিছু নিয়ে ভাবতে হবেনা, পোস্টটি পড়তে থাকুন।

আপনার পিসি যদি গত তিন বা চার বছরের মধ্যে কিনে থাকেন, তাহলে আশা করা যায় এতে উইন্ডোজ ১১ চলবে। তবে এটা নিশ্চিত হতে হলে ছোট্ট একটি টেস্ট করে নিতে পারেন।

বোনাসঃ উইন্ডোজ ১১ এর নতুন ফিচারসমুহ জেনে নিন

এজন্য মাইক্রোসফট রিলিজ করেছে নতুন ছোট্ট একটি সফটওয়্যার যার নাম উইন্ডোজ পিসি হেলথ চেক। এখান থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করে নিন। এজন্য একটি উইন্ডোজ ১০ চালিত পিসি থেকে লিংকটি ভিজিট করতে হবে।

উপরের লিংক থেকে পিসি হেলথ চেক অ্যাপ ডাউনলোড করা হলে সেটি আপনার উইন্ডোজ পিসিতে ইনস্টল করুন। ইনস্টল করার শেষ পর্যায়ে স্ক্রিনে দুটি অপশন আসবে। সেগুলোর মধ্য থেকে “ওপেন উইন্ডোজ পিসি হেলথ চেক” এ টিক দিয়ে “ফিনিশ” বাটনে চাপ দিন।

উইন্ডোজ পিসি হেলথ চেক 1

এরপর অ্যাপটি আপনার পিসিতে চালু হবে। নিচের স্ক্রিনশটের মত একটি উইন্ডো দেখতে পাবেন।

উইন্ডোজ পিসি হেলথ চেক 2

সেখানে শুরুতেই Check Now বাটন থাকবে। উইন্ডোজ ১১ এর একটি ব্যানারও দেখা যাবে। চেক নাউ বাটনে ক্লিক করুন। আপনার পিসি যদি উইন্ডোজ ১১ চলার জন্য প্রস্তুত থাকে তাহলে এটি আপনাকে তখন তা জানিয়ে দেবে। সেক্ষেত্রে নিচের স্ক্রিনশটের মত কিছু একটা দেখতে পাবেন।

উইন্ডোজ পিসি হেলথ চেক

আর যদি আপনার পিসি উইন্ডোজ ১১ চলার জন্য উপযোগী না হয়ে থাকে তাহলে তাও জানিয়ে দেওয়া হবে।

উইন্ডোজ পিসি হেলথ চেক

এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে সম্ভাব্য কারণও বলে দেওয়া হবে যে কেন আপনার পিসিটি উইন্ডোজ ১১ চালাতে পারবেনা।

উইন্ডোজ ১১ একটি ফ্রি আপগ্রেড হবে। আপনার যদি ইতোমধ্যে জেনুইন উইন্ডোজ ১০ থেকে থাকে তাহলে উইন্ডোজ ১১ মুক্তি পেলে আপনি (সাপোর্টেড পিসিতে) উইন্ডোজ ১১ আপডেট ফ্রি’তে ব্যবহার করতে পারবেন। উইন্ডোজ ১১ এর চূড়ান্ত সংস্করণ মুক্তি পাবে এই বছরের শেষ দিকে।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 5,237 other subscribers

[★★] প্ৰযুক্তি নিয়ে লেখালেখি করতে চান? এক্ষুণি একটি টেকবাজ একাউন্ট খুলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে পোস্ট করুন! techbaaj.com ভিজিট করে নতুন একাউন্ট তৈরি করুন। হয়ে উঠুন একজন দুর্দান্ত টেকবাজ!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.