ওয়ানপ্লাস ৬ এলো ৬.৩ ইঞ্চি স্ক্রিন ও ক্যামেরার দুর্দান্ত চমক নিয়ে

By -

ওয়ানপ্লাস ৬

রেকর্ড পরিমাণ লিকের পর অবশেষে লন্ডনে জাঁকজমকপূর্ণ ইভেন্টের মাধ্যমে অফিশিয়ালি রিলিজ হলো ওয়ানপ্লাস ৬ স্মার্টফোন। এক সময় খুবই কম দামে ফ্ল্যাগশিপ স্পেসিফিকেশন দিয়ে সুনাম কুড়িয়েছিল ওয়ানপ্লাস। চীনের এই কোম্পানিটি ওয়ানপ্লাস ৫ ও ৫টি দিয়ে বেশি দামের দিকে ঝুঁকলেও অন্যান্য ব্র্যান্ডের তুলনায় বেশ কমদামেই ফ্ল্যাগশিপ ফোন দিচ্ছে। তাই বাজেট ক্রেতাদের নজরে ওয়ানপ্লাসের নতুন ফোন থাকে বিশেষ আকর্ষণ নিয়ে।

ডিজাইনের দিক থেকে বলতে গেলে, ওয়ানপ্লাস ৬ ফোনের সামনের দিকটা আইফোন ১০ এর মতো নচ যুক্ত হলেও স্পেসিফিকেশনের দিক থেকে কাগজে-কলমে যথেষ্ট উন্নতি নিয়ে এসেছে ওয়ানপ্লাস।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 2,406 other subscribers

ওয়ানপ্লাস ৬ ফোনে রয়েছে ৬.৩ ইঞ্চি (স্পেসিফিক্যালি ৬.২৮ ইঞ্চি) ফুল এইচডি রেজুলেশনের এক বিশাল অ্যামোলেড স্ক্রিন (১০৮০ x ২২৮০পি, ৪০২পিপিআই)। তবে ১৯:৯ এস্পেক্ট রেশিও ও বেজেললেস ডিজাইনের কারণে এটা ততোটা বড়ও লাগে না। আগেই বলেছি, এর ডিসপ্লেতে ট্রেন্ডি আইফোন ১০ এর মত নচ আছে।

ওয়ানপ্লাস ৬

প্রোটেকশন হিসেবে রয়েছে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৫। আগের সব ফ্ল্যাগশিপ ওয়ানপ্লাস ফোনের মতো মেটাল ব্যাকপার্টে না গিয়ে এবার ওয়ানপ্লাস বডি ম্যাটেরিয়াল হিসেবে পুরোপুরি গ্লাস ব্যবহার করেছে। বডি অত্যন্ত চিকন হলেও ৩.৫ মিমি অডিও জ্যাক দিতে ভোলেনি ওয়ানপ্লাস। এতে লেটেস্ট ব্লুটুথ ৫.০ এবং টাইপ সি ইউএসবি পোর্ট ও আছে।

ওয়ানপ্লাস ৬

পিছনের দিকের মাঝখানে রয়েছে ক্যামেরা মডিউল ও এর নিচে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। আরও আছে ফেইস আনলক সিস্টেম। এন্ড্রয়েড ৮.১ অরিও অপারেটিং সিস্টেমে চলা ওয়ানপ্লাস সিক্স ফোনটিতে এনএফসি থাকলেও থাকছে না কোন ওয়্যারলেস চার্জিং সিস্টেম। ওয়াটার রেজিস্ট্যান্স সার্টিফিকেশনও নেই ওয়ানপ্লাস ৬ এর।

কোয়ালকমের লেটেস্ট ফ্ল্যাগশিপ স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ চিপসেট ইউজ করা হয়েছে ওয়ানপ্লাস ৬ ফোনে। পারফরমেন্সের ব্যাপারে তাই কোন প্রশ্নই থাকবেনা আশা করা যায়। সাথে রয়েছে ৬ জিবি বা ৮ জিবি পর্যন্ত র‍্যাম। এবার ওয়ানপ্লাস ৬৪ থেকে ২৫৬ জিবি পর্যন্ত ইন্টারনাল স্টোরেজ অফার করছে। ডুয়াল সিম স্লট থাকলেও এতে কোনো এসডিকার্ড স্লট থাকছে না।

ওয়ানপ্লাস ৬ ফোনে থাকা ৩৩০০ মিলিএম্প এর লি-প্রো ব্যাটারি অনেকের কাছে কম মনে হলেও এর বিখ্যাত ৫ ভোল্ট/৪ এম্প এর ড্যাশ চার্জিং সিস্টেম আপনাকে তা পুষিয়ে দিতে বাধ্য। মাত্র আধা ঘন্টা চার্জেই আপনি পুরো দিনের ব্যাকআপ পাবেন।

ক্যামেরাতে এসেছে যথেষ্ট উন্নতি। ওয়ানপ্লাস ৬ ফোনের পিছনে ১৬ মেগাপিক্সেল + ২০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সেন্সর রয়েছে। উভয় সেন্সরই সনির তৈরী। এতে ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশনের জন্য ইআইএস এবং ওআইএস দুই ধরনের সিস্টেমই রয়েছে। ৪কে রেজ্যুলেশনে সর্বোচ্চ ৬০ এফপিএস এ ভিডিও করা যাবে ওয়ানপ্লাস ৬ ফোনে। তবে স্লো-মোশন মোডে ফুল এইচডিতে ২৪০ এফপিএস পর্যন্ত ভিডিও করা যাবে।

ওয়ানপ্লাস ৬

ইমেজ কোয়ালিটিতেও এসেছে উন্নয়ন। কম আলোতে ভালো ছবি পাওয়ার জন্য ওয়ানপ্লাস তাদের এই ফ্ল্যাগশিপ ফোনের ক্যামেরা সেন্সরের পিক্সেল আগের চেয়ে বাড়িয়েছে । ফ্রন্টেও সেলফির জন্য ১৬ মেগাপিক্সেল সনি ক্যামেরা সেন্সর ব্যবহৃত হয়েছে।

সিল্ক হোয়াইট, মিরর ব্ল্যাক আর মিডনাইট ব্ল্যাক নামের তিনটি রঙে এ মাসের ২২ তারিখ থেকেই বিক্রি শুরু হবে ওয়ানপ্লাস ৬ স্মার্টফোন।

৬ জিবি/৬৪ জিবির বেইজ মডেলটির দাম ধরা হয়েছে ৫২৯ মার্কিন ডলার। ৮জিবি/১২৮জিবি ভার্সনের দাম ৫৭৯ মার্কিন ডলার। এবং ৮জিবি/২৫৬জিবি ভ্যারিয়েন্টের দাম হবে ৬২৯ ডলার।

আপনি কি কিনবেন ওয়ানপ্লাস ৬ স্মার্টফোন?

     
প্রযুক্তির সব তথ্য জানতে ভিজিট করুন www.banglatech24.com সাইট। নতুন পোস্টের নোটিফিকেশন ইমেইলে পেতে এই লিংকে গিয়ে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Comments

Mahadi Hasan Sojol says:

20000-27000 টাকার মধ্যে সব দিক দিয়ে কোন ব্রান্ডের ফোন সবচচেয়ে ভালো হবে…?
আশা করি আমাকে একটু সাহায্য করবেন………

আরাফাত বিন সুলতান says:

আপনার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। এখানে কয়েকটি ফোনের মডেল ও সম্ভাব্য দাম উল্লেখ করা হলঃ

  • শাওমি রেডমি ৫ প্লাস (১৭ থেকে ২১ হাজার টাকা)
  • শাওমি রেডমি নোট ৫ প্রো (২১ হাজারের বেশি হতে পারে তবে ২৭ এর কম)
  • শাওমি মি এ১ (২১-২৩ হাজার টাকা)
  • Samsung Galaxy J7 Max (24 হাজার টাকা)
  • Huawei Nova 2i (২৫ হাজারের মত)
  • অপো এফ৫ (২৫-২৭ হাজারের মত)
    এগুলো থেকে কোনো একটা নিতে পারেন।