ফক্সকনের সাথে এন্ড্রয়েড পেটেন্ট চুক্তি স্বাক্ষর করল মাইক্রোসফট

foxconn worksতাইওয়ানিজ ম্যানুফ্যাকচারার কোম্পানি ফক্সকনের সাথে এন্ড্রয়েড ও ক্রোম অপারেটিং সিস্টেমের পেটেন্ট লাইসেন্সিং সংশ্লিষ্ট চুক্তি সম্পাদন করেছে মাইক্রোসফট। যদিও প্রতিষ্ঠানদুটির পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে এ সম্পর্কিত কোন ঘোষণা দেয়া হয়নি, বিশ্বের বৃহত্তম কন্ট্রাক্ট ম্যানুফ্যাকচারিং প্রতিষ্ঠান সাম্প্রতিক ঐ চুক্তির আওতায় গুগলের উক্ত দুই অপারেটিং সিস্টেম চালিত ডিভাইস তৈরি করলে মাইক্রোসফটকে নির্দিষ্ট পরিমাণ রয়্যালটি দেবে। আগেও হয়ত জেনে থাকবেন, বিশ্বের মোট কনস্যুমার ইলেকট্রনিকস পণ্যের প্রায় ৪০ শতাংশই তৈরি করে ফক্সকন যা চীন সহ অন্যান্য দেশে অবস্থিত কারখানায় সম্পন্ন হয়।

এইচটিসি, স্যামসাং, এলজি, শার্প এবং এসার সহ অন্যান্য কোম্পানি যারা ফক্সকনের কাছ থেকে ম্যানুফ্যাকচারিং সেবা নিয়ে থাকে তারাও রয়্যালটি দিতে রাজী হয়েছে। প্রযুক্তি সাইট এআরএস টেকনিকা জানাচ্ছে, এই চুক্তিটির মাধ্যমে উইন্ডোজ নির্মাতার সর্ববৃহৎ পেটেন্ট লাইসেন্স গ্রহীতা হিসেবে আবির্ভুত হল ফক্সকন।

এন্ড্রয়েড ডিভাইসের পেটেন্ট লাইসেন্সিংয়ের মাধ্যমে উইন্ডোজ মোবাইলের চেয়ে কয়েকগুন বেশি আয় করে মাইক্রোসফট!

অবশ্য বেশ কয়েকটি ওইএম (অরিজিনাল ইকুইপমেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার) যেমন এসারের সাথে আগে থেকেই মাইক্রোসফটের একই প্রকার চুক্তি সম্পাদিত রয়েছে যারা ফক্সকনের কাছ থেকে প্রোডাক্ট তৈরি করিয়ে নেয়। এসব ক্ষেত্রেও রেডমন্ড প্রতি ডিভাইসের জন্য একবারই রয়্যালটি সংগ্রহ করবে। সেক্ষেত্রে কোন পক্ষ (ওইএম কোম্পানি নাকি ফক্সকন) অর্থ দেবে সে বিষয়ে উভয়ে আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেবে।

হোন-হাইয়ের মালিকানাধীন ফক্সকনের সাথে ইতোপূর্বেই পেটেন্ট নিয়ে দ্বন্দ্বের মুখোমুখি হয়েছে মাইক্রোসফট। ২০১১ সালে বার্নিস এন্ড নোবেলের “নুক ই-রিডার” তৈরির সময় ফক্সকনের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল উইন্ডোজ ডেভলপার।

অবশ্য গুগলের সফটওয়্যার কোড মাইক্রোসফটের পেটেন্টকৃত প্রযুক্তি ব্যবহার করে বলে রেডমন্ড যে দাবী তুলেছে তা অস্বীকার করেছে সার্চ সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু ওয়েব জায়ান্টের মটোরোলা মবিলিটি ইতোমধ্যেই এই সংশ্লিষ্ট বেশ কিছু পেটেন্ট মামলায় পরাজিত হয়েছে যার ফলে অন্যান্য কোম্পানি আগে থেকেই এসব সমস্যার সমাধান খুঁজে নিচ্ছে।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 3,609 other subscribers

Comments