মোবাইল বাজারে এন্ড্রয়েডের দাপটে উদ্বিগ্ন চীন

android56356356কয়েক বছর ধরেই মোবাইল ইকোসিস্টেমে আধিপত্য বিস্তার করে চলেছে এন্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম। এই ব্যাপারটি সবার কাছ থেকে স্বাগতম না পেলেও এখন পর্যন্ত একে থামাতেও পারছেনা প্রতিযোগীরা। অ্যাপল, মাইক্রোসফট, নকিয়া, ব্ল্যাকবেরি সহ বেশ কিছু কোম্পানি এন্ড্রয়েডের সাথে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এবার চীন রাষ্ট্রীয়ভাবে ওএসটির প্রসারের ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। কেননা এন্ড্রয়েডের হাতে মোবাইল প্ল্যাটফর্ম দখল থাকা আর গুগলের কাছে এর নিয়ন্ত্রণ চলে যাওয়া মোটামুটি একই কথা। কারণ, সফটওয়্যারটির নির্মাতা হচ্ছে এই সার্চ কোম্পানি গুগল।

এন্ড্রয়েড একটি ফ্রি এবং ওপেন সোর্স অপারেটিং সিস্টেম। তবে এতে বিজ্ঞাপন দেয়ার সুবিধার্থে গুগলের বিরুদ্ধে ব্যবহারকারীর তথ্য হাতানোর অভিযোগ রয়েছে এবং ইউরোপ-আমেরিকায় এ নিয়ে অনুসন্ধানও চালানো হয়েছে।

চীনের শিল্প ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের একটি সাম্প্রতিক গবেষণাপত্রে এন্ড্রয়েডকে ওপেন সোর্স স্বীকার করেই দেশটির কর্তপক্ষ বলেছে এর “মূল প্রযুক্তি এবং প্রযুক্তি নকশা গুগল কর্তৃক কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে”।

দেশটি উদ্বেগের সাথে বলছে “আমাদের দেশের মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম সঙ্ক্রান্ত গবেষণা এবং উন্নয়ন কার্যাবলী এন্ড্রয়েডের উপর অত্যন্ত নির্ভরশীল”।

বিভিন্ন চীনা কোম্পানি যেমন বাইদু এবং হুয়াওয়েই ইতোমধ্যেই নিজদের অপারেটিং সিস্টেম তৈরিতে হাত দিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। আর ২০১১ সালের জুলাই মাসে চীনা ওয়েব জায়ান্ট আলিবাবা তো নিজস্ব মোবাইল ওএস উন্মুক্তই করেছে। আলিয়ান নামের এই সফটওয়্যার চালিত ডিভাইস গুগলের নজর এড়াতে পারেনি। তারা আলিয়ানকে এন্ড্রয়েডের ফর্কড-ইনকম্প্যাটিবল ভার্সন বলে উল্লেখ করে ওএসটি চালিত এসার ফোন বাজারে আসার পথে বাঁধা দিয়েছিল। তবে গুগলের অভিযোগ অস্বীকার করেছে আলিবাবা।

উল্লেখ্য, সফটওয়্যারের “ফর্কড ভার্সন” হচ্ছে কোন প্রজেক্টের সোর্স কোড নিয়ে সেটির পরিবর্তন-পরিবর্ধন করে ডেভলপকৃত একই প্রকার আরেকটি সফটওয়্যার প্যাকেজ। ফ্রি ওপেন সোর্স সফটওয়্যারের ফর্ক তৈরি করার জন্য সাধারণত কোন পূর্বানুমতি দরকার হয়না। তবে কম্প্যাটিবিলিটি ও আরও কিছু কারণে এক্ষেত্রে ডেভলপারদের অবশ্যই নির্দিষ্ট একটি নীতিমালা অনুসরণ করতে হয়।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 3,359 other subscribers

Comments