ওয়ারেন বাফেটের কিছু টিপস যা আপনার ভাল লাগবে

warren-buffett..

‘ওয়ারেন বাফেট’ নামটি শুনেছেন নিশ্চয়ই? তিনি হচ্ছেন একজন মার্কিন ব্যবসায়ী, বিনিয়োগকারী এবং জনহিতৈষী ব্যক্তিত্ব। তাঁকে বিংশ শতকের সবচেয়ে সফল বিনিয়োগকারী হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ওয়ারেন বাফেট বার্কশায়ার হ্যাথাওয়ে কোম্পানির চেয়ারম্যান, সিইও এবং বৃহৎ শেয়ারহোল্ডার। তিনি ধারাবাহিকভাবে বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছেন। বাফেট ২০১১ সালে বিশ্বের তৃতীয় ধনী ব্যক্তি ছিলেন। পরের বছর টাইম ম্যাগাজিন তাকে বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী ব্যক্তি ঘোষণা করে।

ওয়ারেন বাফেট বিপুল ধনসম্পদের মালিক হওয়া সত্ত্বেও অত্যন্ত মিতব্যয়ী। তিনি তাঁর সম্পদের ৯৯ শতাংশ জনকল্যাণমূলক কাজের জন্য দান করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এখানে ওয়ারেন বাফেটের কয়েকটি টিপস তুলে দেয়া হল।

উপার্জন করার ক্ষেত্রেঃ কখনও একটিমাত্র আয়ের উৎসের ওপর নির্ভরশীল হবেন না। দ্বিতীয় কোন উৎস তৈরির জন্য বিনিয়োগ করুন।

ব্যয়ের বেলায়ঃ আপনি যদি এমন কিছু কেনেন যা আপনার দরকার নেই, তবে শীঘ্রই (দৈনন্দিন খরচ মেটাতে) আপনার দরকারী জিনিসপত্র বিক্রি করে দিতে হবে।

সঞ্চয়ের ক্ষেত্রেঃ খরচ করে যেটুকু বাকি থাকে তা থেকে সঞ্চয় না করে বরং সঞ্চয় করে যা থেকে যায় সেখান থেকেই খরচ করুন।

ঝুঁকি নেয়ার সময়ঃ কখনোই উভয় পা পানিতে রেখে নদীর গভীরতা পরিমাপ করতে যাবেন না। অর্থাৎ, সব সময় কিছু সম্বল রেখে দেবেন। পুরোটাই ঝুঁকি নেয়ার জন্য ব্যবহার করবেন না।

বিনিয়োগের জন্যঃ সবগুলো ডিম একই ঝুড়ির মধ্যে নেবেন না। অর্থাৎ, একটি মাত্র ক্ষেত্রে বিনিয়োগ না করে ভিন্ন ভিন্ন অনেকগুলো খাতে ইনভেস্ট করুন, যাতে মূলধন হারানোর ঝুঁকি কম থাকে।

প্রত্যাশা করার ক্ষেত্রেঃ সততা হচ্ছে একটি অত্যন্ত ব্যববহুল উপহার; যেনতেন লোকদের নিকট এটি আশা করবেন না যেন!

Comments