বন্ধু হল নকিয়া ও অ্যাপল

By -

নিজেদের মধ্যে থাকা সকল আইনি লড়াই মিটিয়ে একে অন্যের সহযোগিতা করার ঘোষণা দিয়েছে টেক জায়ান্ট অ্যাপল ও নকিয়া। আজ অ্যাপলের ওয়েবসাইটে উভয় কোম্পানির এক যৌথ বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানদুটি জানিয়েছে নকিয়া এবং অ্যাপল পরস্পরের মধ্যে পেটেন্ট লাইসেন্সিং ও ব্যবসায়িক সহযোগিতার চুক্তি করেছে, যার ফলে অ্যাপল তাদের ডিভাইস ও সার্ভিসে নকিয়ার নেটওয়ার্ক অবকাঠামো ব্যবহার করবে এবং অ্যাপল স্টোরে নকিয়ার স্বাস্থ্য বিষয়ক পণ্য বিক্রি করবে।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 1,399 other subscribers

কিন্তু অ্যাপল ও নকিয়ার মধ্যে উল্লিখিত সমঝোতা এমনি এমনি হয়নি। গত বছর ডিসেম্বরে পেটেন্ট লঙ্ঘনের অভিযোগে অ্যাপলের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল নকিয়া। ফিনল্যান্ডের টেলিকম কোম্পানি নকিয়া তখন দাবি করে যে, অ্যাপল তাদের ডিভাইসে নকিয়ার ৩২টি পেটেন্টকৃত প্রযুক্তি বেআইনিভাবে ব্যবহার করছে। তখন অ্যাপল ও নকিয়ার মধ্যে সম্পর্ক তিক্ত হয়ে গিয়েছিল। ইতোপূর্বে নকিয়ার হেলথ প্রোডাক্ট অ্যাপল স্টোরে পাওয়া যেত, যা ঐ মামলার পরে তুলে নিয়েছিল অ্যাপল।

দৃশ্যত, অ্যাপল বুঝতে পেরেছে যে নকিয়ার পেটেন্টকৃত প্রযুক্তি তারা আসলেই বেআইনিভাবে তাদের ব্যবহার করেছে। এসব প্রযুক্তির মধ্যে রয়েছে ডিসপ্লে, ইউজার ইন্টারফেস, সফটওয়্যার, এন্টেনা, চিপসেট এবং ভিডিও এনকোডিং। ইউরোপ এবং যুক্তরাষ্ট্রের আদালতে ঐ আইনি লড়াই সম্পন্ন হতে বছরের পর বছর লেগে যেতে পারত। আর শেষটা হয়ত খুব বেশি ভাল হতনা, তাই উভয় কোম্পানিই আপোষে এলো।

তবে এই সমঝোতায় কী পরিমাণ অর্থের লেনদেন হচ্ছে তা জানা যায়নি। বিবিসি জানাচ্ছে, বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন, এই চুক্তির ফলে পকেট ভারী হবে নকিয়ার। অর্থাৎ প্রতি বছর এই চুক্তির কারণে নকিয়াকে শত শত মিলিয়ন ডলার লাইসেন্স ফি দেবে অ্যাপল।

নকিয়া বলেছে তারা অ্যাপলকে সহযোগিতা করে যাবে। আর অ্যাপল আনুষ্ঠানিকভাবেই বলেছে তারা এই সমাধানে খুশি।

২০১৬ সালের আগে ২০০৯ এবং ২০১১ সালেও অ্যাপল ও নকিয়ার মধ্যে আইনি লড়াই হয়েছে। এখন দুই কোম্পানির মধ্যে আর কোনো আইনি বিরোধ রইলনা।

প্রযুক্তির সব তথ্য জানতে ভিজিট করুন www.banglatech24.com সাইট। নতুন পোস্টের নোটিফিকেশন ইমেইলে পেতে এই লিংকে গিয়ে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

 

Comments

Leave a Reply