মাইক্রোসফট তৈরি করছে স্বয়ংক্রিয় ও ইন্টার‍্যাক্টিভ হোয়াইটবোর্ড

By -

Microsoft.............সফটওয়্যার জায়ান্ট মাইক্রোসফট নতুন এক প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে যা থেকে আবিষ্কৃত টাচস্ক্রিন যুক্ত হোয়াইটবোর্ড আপনার মনের ভাষা বুঝবে। এটি একটি ইন্টার‍্যাক্টিভ ক্যানভাস যা ব্যবহারকারীর স্কেচ ও অন্যান্য চিহ্ন অনুমান করে নিজে থেকেই অঙ্কন বা এ ধরণের কাজ সম্পন্ন করে দেবে। এই মুহুর্তে মেশিনটির উন্নয়ন প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

বিবিসি জানাচ্ছে, চমকপ্রদ এই পণ্যের পরীক্ষামূলক ভার্সন কোম্পানিটির বার্ষিক টেকফেস্টে দেখানো হবে। উক্ত অনুষ্ঠানে মাইক্রোসফট গবেষকরা তাদের সমকালীন প্রকল্প সম্বন্ধে বিভিন্ন তথ্য প্রকাশ করে থাকেন। মাইক্রোসফটের এই ডিজিটাল ক্যানভাস বর্তমান সময়ে বহুল প্রচলিত ধারণা “বিগ ডেটা” নিয়ে কাজ করবে, যেখানে নানা রকম সেন্সর ও অন্যান্য উৎস থেকে তথ্য-উপাত্তের পরিমাণ ও তার ব্যবহার ক্রমান্বয়ে বেড়েই চলছে।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 1,398 other subscribers

প্রযুক্তি বিশ্লেষকদের মতে রেডমন্ডের সাম্প্রতিক এই স্বয়ংক্রিয় বোর্ড একটি চাহিদাসম্পন্ন পণ্য হতে পারে, যদি কিনা প্রতিষ্ঠানটি এর দক্ষতা প্রমাণে সফল হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের কোম্পানি মাইক্রোসফট গবেষণা ও উন্নয়ন (আর এন্ড ডি) খাতে বেশ উল্লেখযোগ্য অংকের তহবিল খরচ করে থাকে। গত অর্থ বছরে এর পরিমাণ ছিল ৯.৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা দক্ষিণ কোরীয় স্যামসাং ইলেকট্রনিকসের ১০.৫ বিলিয়ন ডলারের চেয়ে কম হলেও অ্যাপলের ৩.৪, সনি’র ৪.৬ এবং গুগলের ৬.৮ বিলিয়ন ডলার রিসার্স এন্ড ডেভলপমেন্ট ব্যয় থেকে বেশি।

সেলফ-স্কেচিং হোয়াইটবোর্ড ওয়াশিংটনে মাইক্রোসফটের রেডমন্ড হেডকোয়ার্টারে প্রদর্শন করা হবে। এর ইউজার ইন্টারফেস ডিজাইন বিশেষজ্ঞ প্রকল্পটির পেছেনে ২০০৬ সাল থেকে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি দেখাবেন কিভাবে ব্যবহারকারীর পূর্বের তথ্য বিশ্লেষণ করে বিশাল এক টাচস্ক্রিনে ইন্টার‍্যাক্টিভ টেবিল, চার্ট, ছবি প্রভৃতি আঁকা যায়।

এই বোর্ডে মাইক্রোসফট অফিসের বিভিন্ন এপ্লিকেশন যেমন পাওয়ারপয়েন্ট, এক্সেল ইত্যাদি বিল্ট ইন থাকবে। ফলে একই সাথে বিভিন্ন বিষয়বস্তু তৈরির পাশাপাশি উপস্থাপনও সম্ভব হবে এতে।

মাইক্রোসফট টাচ হোয়াইটবোর্ড সফল হলে এটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যায়। চলুন দেখা যাক কবে নাগাদ এটি বাজারে আসে ও বাস্তবে ব্যবহৃত হতে শুরু করে।

প্রযুক্তির সব তথ্য জানতে ভিজিট করুন www.banglatech24.com সাইট। নতুন পোস্টের নোটিফিকেশন ইমেইলে পেতে এই লিংকে গিয়ে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

 

Comments

Leave a Reply