উইন্ডোজ ১০ এর বাধ্যতামূলক অটো আপডেট বন্ধ হচ্ছে

By -

উইন্ডোজ ১০ যখন প্রথম বাজারে এলো, তখন সবাই এর ইউজার ইন্টারফেস ডিজাইন ও ফিচার পছন্দ করেছিলেন। কারণ উইন্ডোজ ৮ এর স্টার্ট বাটন না থাকা ও টাইলস ভিত্তিক বিশাল আকারের স্টার্ট মেন্যুর সাথে ব্যবহারকারীরা ঠিক খাপ খাইয়ে নিতে পারছিলেননা। শেষ পর্যন্ত অনেকটা উইন্ডোজ ৭ স্টাইলের ছোট স্টার্ট মেন্যু ও নতুন স্টার্ট বাটন নিয়ে এসেছিল উইন্ডোজ ১০।

সর্বশেষ প্রযুক্তি বিষয়ক তথ্য সরাসরি আপনার ইমেইলে পেতে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

Join 1,355 other subscribers

কিন্তু উইন্ডোজ ১০ নিয়েও হইচই শুরু হতে খুব বেশি সময় লাগেনি। এটি ব্যবহারকারীদের অগোচরেই আপডেট নিয়ে থাকে (এখন পর্যন্ত)। বর্তমানে উইন্ডোজ ১০ এ অটোম্যাটিক ওএস আপডেট হয়। ব্যবহারকারীর জন্য এই স্বয়ংক্রিয় আপডেট বন্ধ করার কোনো সহজ উপায় দেয়নি মাইক্রোসফট। এর ফলে লোকজনের পিসি ব্যবহারের মাঝখানে হঠাত হঠাত স্ক্রিনে আপডেট নোটিফিকেশন চলে আসে। অনেকের পিসি তো কাজের মাঝখানে রিস্টার্ট নিয়ে আপডেট ইনস্টল করা শুরু করেছে, এমন বহু ঘটনা আছে।

কিন্তু এভাবে যদি উইন্ডোজ কোনো কিছু না বলে অটো আপডেট ডাউনলোড করতে থাকে, তাহলে ইন্টারনেট ব্রাউজ করার সময় কানেকশন ধীর গতির হয়ে যায় এবং যাদের সীমিত ডেটা প্যাকেজ, তাদের মেগাবাইটগুলো আপডেট ডাউনলোড হয়ে ফুরিয়ে যায়।

অনেক ব্যবহারকারীর মনে এই নিয়ে এক ধরনের ‘আপডেট-ভীতি’ দেখা দিয়েছিল, যা এখনও আছে।

তবে আর বেশিদিন আপডেটের ভয়ে টম-অ্যান্ড-জেরির মত নেটের সাথে লুকোচুরি খেলতে হবেনা। মাইক্রোসফট আগামী এপ্রিলে উইন্ডোজ ক্রিয়েটরস আপডেট রিলিজের সাথে উইন্ডোজ ১০ এ নতুন একটি ফিচার দিচ্ছে যার মাধ্যমে উইন্ডোজের আপডেট অটো ডাউনলোড হয়ার পথ বন্ধ রাখা যাবে। নতুন সফটওয়্যার আপডেট রিলিজ হলে ব্যবহারকারী একটি নোটিফিকেশন পাবেন, এরপর সেই আপডেট ইনস্টল করা কিংবা হাইড করে রাখা, সবই ব্যবহারকারীর ইচ্ছেমত হবে।

আপনি চাইলে একটি রিমাইন্ডার দিয়ে রাখতে পারবেন যাতে করে নির্দিষ্ট সময় পর কম্পিউটার আপনাকে আপডেটের কথা স্মরণ করিয়ে দিতে পারে। অথবা অনেকদিনের জন্য হাইড করে রাখতে পারবেন। কম্পিউটার এই আপডেটের জন্য নিজ থেকে আর কখনওই রিস্টার্ট নেবেনা।

অবশ্য ক্রিয়েটরস আপডেট রিলিজ হওয়ার আগেই আপনি চাইলে উইন্ডোজ ১০ এর অটো আপডেট বন্ধ করতে পারেন। সেক্ষেত্রে পিসির আপডেট প্রসেস বন্ধ করতে হয় অথবা ওয়াইফাই কানেকশনকে ‘মিটারড’ হিসেবে সেট করে রাখতে হয়। কীভাবে তা করবেন তা জানার জন্য আমার এই পোস্টটি দেখতে পারেন।

উইন্ডোজ ১০ ক্রিয়েটরস আপডেটে বিভিন্ন প্রফেশনাল, ডিজাইনার ও গেমারদের জন্য থাকছে বেশ কিছু নতুন ফিচার। এগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে গেম মুড, যা প্রযুক্তি বিশ্বে সাড়া ফেলে দিয়েছে।

উইন্ডোজ ১০ এর নতুন গেম মুড ফিচারটি কম্পিউটারে ভিডিও গেম খেলার জন্য বাড়তি সুবিধা দেবে। গেম মুড অপশন চালু করলে উইন্ডোজ ১০ সাময়িকভাবে বিভিন্ন ব্যাকগ্রাউন্ড প্রসেস থামিয়ে দিয়ে কম্পিউটারের কার্যক্ষমতা ভিডিও গেম খেলার জন্য বরাদ্দ করবে। ফলে পিসির কনফিগারেশন অনুযায়ী সর্বোত্তম গেমিং পারফরমেন্স পাওয়া যাবে।

ল্যাপটপের পাওয়ার সেভিং মুডের সাথে উইন্ডোজ ১০ গেম মুড’কে তুলনা করা যেতে পারে। পাওয়ার সেভিং চালু করলে পিসির বিভিন্ন ইফেক্ট ও ব্যাকগ্রাউন্ড সার্ভিস বন্ধ হয়ে যায়, ফলে কম ব্যাটারি ব্যবহৃত হয়। এতে করে স্বাভাবিক অবস্থার চেয়ে ব্যাটারির চার্জ বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়। গেম মুড প্রায় একই কাজ করবে, তবে সেটা কম বিদ্যুৎ খরচ করার জন্য নয়, বরং কম্পিউটারের প্রসেসিং পাওয়ার গেমসের জন্য সরবরাহ করার উদ্দেশ্যে।

প্রযুক্তির সব তথ্য জানতে ভিজিট করুন www.banglatech24.com সাইট। নতুন পোস্টের নোটিফিকেশন ইমেইলে পেতে এই লিংকে গিয়ে ফ্রি সাবস্ক্রাইব করুন!

 

Comments

Leave a Reply